বাংলা নিউজ > ময়দান > হরভজনই অনুপ্রেরণা, কিংবদন্তি স্পিনারকে টপকে তাঁরই বন্দনায় মাতলেন অশ্বিন
উইকেট নিয়ে পূজারার সঙ্গে অশ্বিনের সেলিব্রশেন। ছবি- এএনআই। (ANI)

হরভজনই অনুপ্রেরণা, কিংবদন্তি স্পিনারকে টপকে তাঁরই বন্দনায় মাতলেন অশ্বিন

  • কানপুরে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে হরভজনের উইকেট সংখ্যা টপকে ভারতের হয়ে টেস্টে তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেট শিকারী হন অশ্বিন।

অশ্বিনই (৪১৯) টেস্ট ক্রিকেটে ভারতের হয়ে তৃতীয় সর্বোচ্চ উইকেটশিকারী। দুরন্ত নজির গড়ে স্বভাবতই অশ্বিন খুশি হলেও ভাজ্জুই যে তাঁর অনুপ্রেরণা, তা একবাক্যে স্বীকার করে নিচ্ছেন তিনি।

কানপুর টেস্টে চতুর্থ দিনের শেষবেলায় উইল ইয়ংয়ের উইকেট নিয়ে হরভজনের উইকেট সংখ্যা স্পর্শ করার পর পঞ্চম দিনে টম লাথামকে বোল্ড করে তাঁকে অতিক্রম করে যান অশ্বিন। তবে ২০০১ সালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ঐতিহাসিক সিরিজে হরভজনের বোলিং দেখেই অফস্পিন করা শুরু করেছিলেন বলে জানান তামিলনাড়ুজাত ভারতীয় তারকা।

bcci.tv-তে পোস্ট করা ভিডিয়োয় শ্রেয়স আইয়ারের সঙ্গে কথোপকথনে তিনি জানান, ‘এই পরিসংখ্যানগুলো আমার দীর্ঘদিনের পরিশ্রমের ফল। এটা নিঃসন্দেহে একটা দারুণ কৃতিত্ব, তবে কোন পরিসংখ্যান পার করছি না করছি, তা নিয়ে আমার বিন্দুমাত্র মাথাব্যথা নেই। হরভজন সিং যখন ২০০১ সালে (ইডেন টেস্টে) সেই বিখ্যাত স্পেলটা করেছিলেন, তার আগে অবধি আমি অফস্পিনার হওয়ার কথা ভাবিওনি। ও আমায় অনুপ্রেরণা জুগিয়েছিল এবং আজ আমি এখানে দাঁড়িয়ে।’

অতীতের স্মৃতিচারণ করে অশ্বিন জানান সেই বিখ্যাত ২০০১ সিরিজের পরেই তাঁর ব্যাটার থেকে বোলার হওয়ার যাত্রাপথ শুরু হয়। ‘অনেকেই জানেন যে আমি আদপে কিন্তু একজন ব্যাটার ছিলাম। ২০০১ সালের বর্ডার-গাভাসকর ট্রফির পরেই আমি স্পিন বোলিং করতে শুরু করি। এভাবেই আমার যাত্রাপথ শুরু হয়। জানিনা এখন আর হরভজনের স্টাইলটা কপি করতে পারব কিনা।’ বলেন অশ্বিন।

বন্ধ করুন