বাংলা নিউজ > ভাগ্যলিপি > Hanuman Jayanti 2022: হনুমান জয়ন্তীতে পড়ছে বিশেষ যোগ! বাধা-বিঘ্ন দূর করতে বজরংবলীকে দিন এই ৮ প্রসাদ

Hanuman Jayanti 2022: হনুমান জয়ন্তীতে পড়ছে বিশেষ যোগ! বাধা-বিঘ্ন দূর করতে বজরংবলীকে দিন এই ৮ প্রসাদ

নিত্য হনুমান চালিসা পাঠ করলে, বজরংবলীর বিশেষ কৃপা পাওয়া যায়।

শাস্ত্র মতে, শ্রীরামচন্দ্রের জন্মের ৬ দিন পর জন্ম নেন হনুমানজি। পবনপুত্র হনুমানের রুদ্রাবতার ঘিরে 'রামায়ণে' বিভিন্ন ধরনের ঘটনা উঠে এসেছে। আর হনুমানজির জন্মের এই পূণ্য তিথিতে এবার বিশেষ এক যোগ তৈরি হচ্ছে।

হিন্দুধর্মের শাস্ত্র মতে, চলতি মাসে শুক্লপক্ষের পূর্ণিমার দিন জন্মগ্রহণ করেন বজরংবলী। আর সেই কারণে এমন দিনে ধুমধাম সহকারে দেশ জুড়ে বজরংবলীর পুজো করা হয়। ২০২২ সালের হনুমান জয়ন্তীর তিথি পড়েছে ১৬ এপ্রিল। জ্যোতিষমতে বলা হচ্ছে, এমন দিনে বিশেষ এক যোগ পড়ছে। এমন দিনে বজরংবলীর পুজো সঠিকভাবে করলে দূর হয় বাধা বিঘ্ন। পুজোর সময়ক্ষণ থেকে ভোগ প্রসাদ ঘিরে কিছু জ্যোতিষ টিপস একনজরে।

শ্রীরামচন্দ্রের জন্মের ৬ দিন পর বজরংবলীর জন্ম

শাস্ত্র মতে, শ্রীরামচন্দ্রের জন্মের ৬ দিন পর জন্ম নেন হনুমানজি। পবনপুত্র হনুমানের রুদ্রাবতার ঘিরে 'রামায়ণে' বিভিন্ন ধরনের ঘটনা উঠে এসেছে। আর হনুমানজির জন্মের এই পূণ্য তিথিতে এবার বিশেষ এক যোগ তৈরি হচ্ছে।

হনুমান জয়ন্তীতে বিশেষ যোগ

শনিবার ১৬ এপ্রিল পড়ছে হনুমান জয়ন্তী। এমন দিনে বিশেষ রবি যোগ তৈরি হচ্ছে। এদিকে শনিবার হনুমান জয়ন্তীর দিন ভোর ৫ টা ৫৫ মিনিট থেকে পড়ছে তিথি। সকাল ৮ টা ৪০ মিনিট পর্যন্ত থাকবে এর সময়কাল। এই দিনে হস্ত নক্ষত্র সকাল ৮ টা ৪০ পর্যন্ত রয়েছে, তারপর চিত্রা নক্ষত্র শুরু হবে।

হনুমান জয়ন্তীর দিনের শুভ সময়

হনুমান জয়ন্তীর দিনের শুভ সময় হল বেলা ১১ টা ৫৫ মিনিট থেকে দুপুর ১২ টা ৪৭ মিনিট পর্যন্ত। এই সময়টি শনিবার ১৬ এপ্রিলের সবচেয়ে শুভ সময়। যেকোনও ভাল কাজ এই সময় করতে পারেন।

দুটি বিশেষ 'সময়' বাধা বিঘ্ন দূর করতে সক্ষম

শনিবার হনুমান জয়ন্তীর দিন ১৬ এপ্রিল তৈরি হচ্ছে রবি যোগ। বিভিন্ন ধরনের দোষ দূর করতে বা বাধা বিঘ্ন দূর করতে এই যোগ সাহায্য করে। এদিকে, হস্ত নক্ষত্র ও চিত্রা নক্ষত্র দুটিই যেকোনও শুভ কাজ শুরু করার পক্ষে দারুন ভাল দিন।

বাধা দূর করতে কী করণীয়?

২০২২ সালে হনুমান জয়ন্তী পড়েছে ১৬ এপ্রিল শনিবার । শনিদেবের কোপ দৃষ্টিতে যাঁরা রয়েছেন বা যাঁদের শনির সাড়েসাতি চলছে তাঁরা এই দিন বিশেষভাবে হনুমানজিকে পুজো করতে পারেন। এছাড়াও বজরংবলীর কৃপা পেতে ও যাবতীয় সমস্যা দূর করতে এমন দিনে হনুমানজির পুজোয় দিন ৮ টি বিশেষ ভোগ প্রসাদ।

কোন ৮ টি প্রসাদ অর্পণ করা উচিত?

-কেশরী রঙের মোতিচুরের লাড্ডু এই দিন প্রসাদে রাখতে পারেন।

-বেসনের লাড্ডুতেও পবনপুত্র খুশি হন। মনে করা হয়, পবনপুত্রের কৃপায় কেটে যায় বিভিন্ন সমস্যা।

-হনুমানজিকে এমন শুভ দিনে প্রসাদে পান দিতে ভুলবেন না। পাবেন কৃপা। জীবনে বহু সমস্যা জটিলতা থাকলে তা কেটে যাবে।

-কেশরের তৈরি জিনিস ইমারতি দিন পবনপুত্র হনুমানকে।

-এছাড়াও গুড়, এলাচ, নারকেলগুঁড়ো, ঘি, দুধ দিয়ে তৈরি মিঠি রোটি তৈরি করে প্রসাদ দিন পবনপুত্রকে।

-গুড় ও ছোলাও বজরংবলীর পছন্দের। ফলে প্রসাদের থালায় এইগুলি রাখতে ভুলবেন না।

-বোঁদে দিয়ে প্রসাদ অর্পণ করতে হবে বজরংবলীকে। তবে দেখতে হবে শুধু কেশর রঙের বোঁদেই যেন দেওয়া হয়।

বন্ধ করুন