বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > করোনায় আক্রান্ত আলিপুরদুয়ারের বিজেপি বিধায়ক, খাবার পৌঁছলেন তৃণমূল নেতা
বিজেপি বিধায়কের পরিবারের পাশে তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত পুরসভার চেয়ারম্যান।
বিজেপি বিধায়কের পরিবারের পাশে তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত পুরসভার চেয়ারম্যান।

করোনায় আক্রান্ত আলিপুরদুয়ারের বিজেপি বিধায়ক, খাবার পৌঁছলেন তৃণমূল নেতা

  • করোনাভাইরাস এখন যে হারে হচ্ছে তাতে ঘরে ঘরে আক্রান্তের খবর মিলছে। চিকিৎসকরাও আক্রান্ত হয়ে পড়ছেন।

রাজ্যজুড়ে করোনাভাইরাসের দাপট বেড়ে চলেছে। তাতে পুলিশ থেকে রাজনীতিবিদ কেউ বাদ যাচ্ছেন না। সবাই এই সংক্রমণে আক্রান্ত হচ্ছেন। এই পরিস্থিতিতে বিজেপি বিধায়কের পরিবারের পাশে দাঁড়িয়ে সৌজন্যের নজির গড়লেন তৃণমূল কংগ্রেস পরিচালিত পুরসভার চেয়ারম্যান। এমন ঘটনা যে ঘটতে পারে তা ভাবতে পারেননি বিজেপি বিধায়ক।

করোনাভাইরাস এখন যে হারে হচ্ছে তাতে ঘরে ঘরে আক্রান্তের খবর মিলছে। চিকিৎসকরাও আক্রান্ত হয়ে পড়ছেন। তার উপর ওমিক্রণ আতঙ্ক মাথাচাড়া দিয়েছে। সেখানে এই করোনাভাইরাসই যুযুধান প্রতিপক্ষ বিজেপি–তৃণমূল কংগ্রেসকে কাছে আনল। এমনই ঘটনা দেখা গেল আলিপুরদুয়ারে। যা এখন এলাকায় চর্চিত বিষয় হয়ে উঠেছে।

ঠিক কী ঘটেছে আলিপুরদুয়ারে?‌ আলিপুরদুয়ারের বিজেপি বিধায়ক সুমন কাঞ্জিলাল। স্ত্রী–কন্যাকে নিয়ে কলকাতা গিয়েছিলেন তিনি। ফিরেছেন করোনাভাইরাস নিয়ে। এই খবর পেয়েই বৃহস্পতিবার সকালে বিধায়কের বাড়ি হাজির হলেন আলিপুরদুয়ার পুরসভার চেয়ারপার্সন বাবলু কর, ভাইস চেয়ারপার্সন রানা চক্রবর্তী এবং পুরপ্রশাসক বোর্ডের সদস্য প্রদ্যুৎ আচার্য।

এই ঘটনা তখন বিদ্যুৎ গতিতে ছড়িয়ে পড়েছে। তবে তাঁরা শুধু সৌজন্য সাক্ষাৎ করতে আসেননি। বরং এদিন পুরসভার পক্ষ থেকে বিধায়কের পরিবারের হাতে তুলে দেন ডিম, কলা, কমলালেবু, দু’‌কেজি চাল, এক কৌটো ঘি–সহ নানা প্রোটিন জাতীয় খাদ্য সামগ্রী। বিধায়ক এই ঘটনা দেখে অবাক। দূর থেকেই বিধায়কের সঙ্গে কথা বলে খোঁজ নেন পরিবারের সদস্যদের। আর তাতেই আপ্লুত বিজেপি বিধায়ক।

এই ঘটনার পর আলিপুরদুয়ারের বিধায়ক সুমন কাঞ্জিলাল বলেন, ‘‌রাজনীতি আর মানবিকতা আলাদা জায়গায়। যিনি এসেছিলেন তিনি তৃণমূল কংগ্রেস নেতা। কিন্তু আগে উনি এই পাড়ার ছেলে। আমরা ছোট থেকে একসঙ্গে বড় হয়েছি। এই কাজ অবশ্যই প্রশংসার যোগ্য।’‌ আর আলিপুরদুয়ার পুরসভার প্রশাসক প্রদ্যুৎ আচার্য বলেন, ‘‌এখানে তৃণমূল কংগ্রে–বিজেপি কিছুই না, আগে মানুষ। আমি পুরপ্রশাসক, আমার দায়িত্ব কোনও নাগরিক অসুবিধায় পড়লে তা সমাধান করা।’‌

বন্ধ করুন