বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > আবারও ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়তে পারে? সম্ভাব্য নিম্নচাপ নিয়ে কী বলছে মৌসম ভবন?
আবারও ঘূর্ণিঝড়ের ভ্রুকুটি! গভীর নিম্নচাপ সৃষ্টির পূর্বাভাস মৌসম ভবনের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
আবারও ঘূর্ণিঝড়ের ভ্রুকুটি! গভীর নিম্নচাপ সৃষ্টির পূর্বাভাস মৌসম ভবনের। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

আবারও ঘূর্ণিঝড় আছড়ে পড়তে পারে? সম্ভাব্য নিম্নচাপ নিয়ে কী বলছে মৌসম ভবন?

আগামী কয়েকদিন উত্তরবঙ্গে বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে।

আগামী শুক্রবার (১১ জুন) উত্তর বঙ্গোসাগর ও পার্শ্ববর্তী এলাকায় তৈরি হবে একটি নিম্নচাপ।তবে তা ঘূর্ণিঝড় পরিণত হওয়ার সম্ভাবনা আছে কিনা, সে বিষয়ে মৌসম ভবনের তরফে কিছু জানানো হয়নি।

মৌসম ভবনের তরফে জানানো হয়েছে, সেই নিম্নচাপের হাত ধরে পূর্ব ভারতে বর্ষার পথ প্রশস্ত হচ্ছে। শনিবার ও রবিবারের মধ্যে ওড়িশা, পশ্চিমবঙ্গ ও ঝাড়খণ্ডের বেশিরভাগ অংশ এবং বিহারের কিছু অংশে বর্ষা পুরোপুরি ঢুকে পড়বে।

তবে নিম্নচাপের প্রভাবে বৃহস্পতিবার থেকেই পূর্ব ভারতের অধিকাংশ এলাকা এবং পার্শ্ববর্তী মধ্যে ভারতে বৃষ্টি শুরু হবে। মঙ্গলবার থেকে শুক্রবার পর্যন্ত ওড়িশায় ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাত হতে পারে। বৃহস্পতিবার ও শুক্রবার গাঙ্গেয় পশ্চিমবঙ্গ এবং শুক্রবার ঝাড়খণ্ডে ভারী থেকে অতি ভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। আর শুক্রবার পর্যন্ত মধ্যপ্রদেশ, বিদর্ভ এবং ছত্তিশগড়ে বৃষ্টি চলবে। আগামী চার-পাঁচদিনে উত্তর-পূর্ব ভারতেও বৃষ্টির পূর্বাভাস দিয়েছে মৌসম ভবন।

আগামী কয়েকদিন উত্তরবঙ্গে বৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। হাওয়া অফিসের তরফে জানানো হয়েছে, ইতিমধ্যে বর্ষা ঢুকে যাওয়ায় উত্তরবঙ্গের আটটি জেলায় বৃষ্টি হবে। আজ (মঙ্গলবার) দার্জিলিং এবং আলিপুরদুয়ারে দিনভর ৭০ থেকে ২০০ মিলিমিটার পর্যন্ত পর্যন্ত বৃষ্টি হতে পারে। কালিম্পং, জলপাইগুড়ি এবং কোচবিহারে মঙ্গলবার ৭০ থেকে ১১০ মিলিমিটার বর্ষণের সম্ভাবনা আছে। বাকি জেলাগুলিতে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত হতে পারে। বুধবার কোচবিহার এবং আলিপুরদুয়ারে ৭০ থেকে ১১০ মিলিমিটার বৃৃষ্টির পূর্বাভাস দেওয়া হয়েছে। বাকি সব জেলাগুলিতে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে। আগামিকাল (বুধবার) বৃষ্টির মাত্রা আরও বাড়বে।

বন্ধ করুন