বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > ভুয়ো পুলিশ অফিসার পরিচয়ে শ্রমিকদের মোবাইল ছিনতাই, ধৃত ‌'তৃণমূল নেতা'
ভুয়ো পুলিশ অফিসার পরিচয়ে পরিয়ায়ী শ্রমিকদের মোবাইল ‘‌ছিনতাই’‌! ধৃত ‌তৃণমূল নেতা:ছবি (‌স্ক্রিন শর্ট)‌
ভুয়ো পুলিশ অফিসার পরিচয়ে পরিয়ায়ী শ্রমিকদের মোবাইল ‘‌ছিনতাই’‌! ধৃত ‌তৃণমূল নেতা:ছবি (‌স্ক্রিন শর্ট)‌

ভুয়ো পুলিশ অফিসার পরিচয়ে শ্রমিকদের মোবাইল ছিনতাই, ধৃত ‌'তৃণমূল নেতা'

ভূমি ও ভূমি সংস্কার দফতরের সরকারি আধিকারিককে অপহরণ করার অভিযোগ রয়েছে।

ভুয়ো পুলিশ অফিসার পরিচয় দিয়ে ছিনতাই করতে গিয়ে গ্রেফতার ‌মালদহের 'যুব তৃণমূল নেতা'। নিরাপত্তারক্ষীদের সঙ্গে নিয়ে ছিনতাই করার অভিযোগে উত্তেজনা ছড়িয়েছে গোটা এলাকায়। বাকি অভিযুক্তদের খোঁজে তল্লাশি চালাচ্ছে পুলিশ। চাঞ্চল্যকর এই ঘটনাটি ঘটেছে মালদহ টাউন স্টেশন লাগোয়া ঝলঝলিয়া এলাকায়। অভিযুক্ত 'তৃণমূল নেতার' বিরুদ্ধে উত্তর দিনাজপুরের কালিয়াগঞ্জের বাসিন্দা ৫ পরিযায়ী শ্রমিকের কাছ থেকে মোবাইল ছিনতাইয়ের অভিযোগ উঠেছে। 

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, শনিবার রাতে বেঙ্গালুরু থেকে ট্রেনে পাঁচ ন পরিযায়ী শ্রমিক মালদহ টাউন স্টেশনে এসে পৌঁছান। ওই পাঁচ পরিযায়ী শ্রমিকের বাড়ি উত্তর দিনাজপুর জেলায়। মালদহ টাউন স্টেশন থেকে পায়ে হেঁটেই গাড়ি ধরার জন্য ওই পাঁচ শ্রমিক রাস্তা দিয়ে যাচ্ছিলেন। সেই সময় বাইকে চেপে ওই 'যুব তৃণমূল নেতা' (নিজেকে তেমনটাই দাবি করেছেন) ও তাঁর সাগরেদরা লাঠি নিয়ে তাঁদের পথ আটকান। ইংরেজবাজার থানার পুলিশ অফিসারের পরিচয় দিয়ে পাঁচ জনের মোবাইল এবং নগদ কিছু টাকা ছিনতাই করে নেওয়া হয় বলে অভিযোগ। তবে থানায় না নিয়ে গিয়ে রাস্তাতেই ছেড়ে দেওয়া হয় ওই পরিযায়ী শ্রমিকদের। এতেই সন্দেহ হয় ওই পরিযায়ী শ্রমিকদের৷ ইংরেজবাজার থানায় গিয়ে পুলিশের সঙ্গে যোগাযোগ করেন তাঁরা। অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা রুজু করেছে পুলিশ।

পুলিশ সূত্রে জানা গিয়েছে, অভিযুক্তেক নাম ‌প্রিয়ার্ঘ সাহা ওরফে আকাশ সাহা। এপ্রসঙ্গে মালদহের পুলিশ সুপার আলোক রাজোরিয়া বলেন, ‘‌ওই যুবকের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ সামনে এসেছে। নিজেকে পুলিশ পরিচয় দিয়েছিলেন তিনি। ধরা পড়ার পর নিজেকে তৃণমূলের নেতা বলে পরিচয় দেন। তাঁর বিরুদ্ধে জামিন অযোগ্য ধারায় মামলা রজু করে তদন্ত শুরু করা হয়েছে। পুলিশ সূত্রে আরও জানা গিয়েছে,অভিযুক্ত তৃণমূল নেতা বেশ কিছুদিন ধরেই ব্যক্তিগত নিরাপত্তা রক্ষী সঙ্গে নিয়ে ওই এলাকায় ঘুরছিল। শুধু তাই নয়, ওই তৃণমূল নেতার বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে, পুলিশ পরিচয় দিয়ে ওই এলাকায় তোলাবাজি চালাচ্ছিলেন। ধৃত ওই যুবক নিজেকে ইংরেজবাজার থানার ইন্সপেক্টর বলে পরিচয় দিয়েছিলেন বলে অভিযোগ। ধরা পড়ে যাওয়ার পর নিজেকে যুব তৃণমূলের রাজ্য নেতা বলে পরিচয় দেন ওই অভিযুক্ত।

বন্ধ করুন