বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > Sukanya Mondal: টেট পাশ না করেই পেয়েছিলেন চাকরি, বাড়ি বসে সই করেই বেতন তুলতেন অনুব্রতর মেয়ে
সুকন্যা মণ্ডল ও অনুব্রত মণ্ডল।

Sukanya Mondal: টেট পাশ না করেই পেয়েছিলেন চাকরি, বাড়ি বসে সই করেই বেতন তুলতেন অনুব্রতর মেয়ে

  • আবেদনকারীদের দাবি, ২০১২ সালে বাড়ির পাশেই কালিকাপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরি পান অনুব্রত মণ্ডলের মেয়ে সুকন্যা। কিন্তু সেবার টেট পাশ করতে পারেননি তিনি। টেট পাশ না করেও নিয়োগ পেয়ে যান অনুব্রতর মেয়ে।

নিয়োগ দুর্নীতি মামলায় অনুব্রত মণ্ডলের কন্যা সুকন্যা মণ্ডলসহ তাঁর পরিবারের ৬ জনকে বৃহস্পতিবার কলকাতা হাইকোর্টে হাজিরা দিতে বলেছেন বিচারপতি অভিজিৎ গঙ্গোপাধ্যায়। তার মধ্যেই অনুব্রত কন্যার নামে উঠে এল একের পর এক চাঞ্চল্যকর তথ্য। অভিযোগ, টেট পাশ না করেই প্রাথমিক স্কুলে চাকরি পেয়েছিলেন সুকন্য। শুধু তাই নয়, কোনও দিন স্কুলে যাননি তিনি, অধিকাংশ দিন হাজিরা খাতায় সই করতেন বাড়িতে বসেই।

আবেদনকারীদের দাবি, ২০১২ সালে বাড়ির পাশেই কালিকাপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ে চাকরি পান অনুব্রত মণ্ডলের মেয়ে সুকন্যা। কিন্তু সেবার টেট পাশ করতে পারেননি তিনি। টেট পাশ না করেও নিয়োগ পেয়ে যান অনুব্রতর মেয়ে। শুধু তাই নয়, ওই সময় প্রাথমিকে চাকরি পেয়েছেন অনুব্রতর পরিবারের আরও ৫ সদস্য। তারা হলেন, অনুব্রতর ভাই সুমিত মণ্ডল, অর্ক দত্ত, সাত্যকি মণ্ডল, কস্তুরী চৌধুরী ও সুজিত বাগদি। অভিযোগ এই বেনিয়ম যখন চলছে তখন জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের সভাপতির পদে রয়েছেন অনুব্রতর ভাগ্নে রাজা ঘোষ।

গ্রামবাসীর শিরচ্ছেদ করে কাটা মুণ্ডু নিয়ে ২৫ কিমি হেঁটে থানায় যুবক

অনুব্রতর মেয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ রয়েছে আরও। অভিযোগ, বাড়ির পাশের স্কুলে বেআইনিভাবে চাকরি পেলেও কোনও দিন স্কুলে যাননি সুকন্যা। নিয়মিত তাঁর বাড়িতে পৌঁছে যেত স্কুলের হাজিরা খাতা। বাড়ি বসেই হাজিরা খাতায় সই করে বেতন তুলতেন তিনি। এভাবেই বছরের পর বছর তিনি বেতন তুলেছেন।

স্থানীয়রা জানাচ্ছেন, অনুব্রতর মেয়ের চাকরি পাওয়ার কাহিনী এলাকায় সবাই জানলেও কেষ্টর দাপটের মুখে মুখ খুলতে সাহস পাননি কেউ।

আদালতের নির্দেশ অনুসারে বৃহস্পতিবার অনুব্রতর মেয়েসহ বেআইনিভাবে চাকরি পাওয়া ৬ জনকে আদালতে হাজির করাতে হবে বীরভূমের পুলিশ সুপারকে। হাজিরা এড়ালে কড়া পদক্ষেপের হুঁশিয়ারিও দিয়েছেন বিচারপতি।

 

বন্ধ করুন