বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > অন্য দুর্গা: সাঁতরে অথবা একাই দাঁড় বেয়ে ঘাটালের আশা দিদি গেলেন দুর্গতর দুয়ারে
দাঁড় বেয়ে একাই দুর্গত বাসিন্দাদের কাছে যাচ্ছেন আশাকর্মী (ফেসবুক)
দাঁড় বেয়ে একাই দুর্গত বাসিন্দাদের কাছে যাচ্ছেন আশাকর্মী (ফেসবুক)

অন্য দুর্গা: সাঁতরে অথবা একাই দাঁড় বেয়ে ঘাটালের আশা দিদি গেলেন দুর্গতর দুয়ারে

  • মহকুমা শাসক ফেসবুক লিখেছেন, আমাদের আশা দিদিমণিরা আমাদের গর্ব, আমাদের অহঙ্কার।

আশাকর্মীদের  নানা রকম দাবি দাওয়া, আন্দোলন, বঞ্চনার কথা শুনতেই অভ্যস্ত বাংলা। তবে এসবের মধ্যেই সামনে এল প্রাণের ঝুঁকি তুচ্ছ করে আশা কর্মীর কর্তব্যবোধের ছবি। জলমগ্ন পশ্চিম মেদিনীপুরের এই ছবি যেন মানবিকতারই প্রতিরূপ। আর সেই ভিডিও ভাইরাল হয়েছে সোশ্যাল মিডিয়াতে। স্থানীয় সূত্রে খবর, ঘাটালের বলরামপুরে একটি পরিবারের অনেকেই জ্বর, সর্দি, কাশিতে ভুগছিলেন। এদিকে চারদিন জলমগ্ন থাকার জন্য সমস্যায় পড়ে যান তাঁরা। ডিঙি নৌকাও মেলেনি তাঁদের।তখনই ভরসা হয়ে দাঁড়ালেন আশা কর্মী।

 

 সেই ভিডিওতে দেখা যাচ্ছে আশা কর্মীদের ইউনিফর্ম পরা এক মহিলা ঘোলা জলে সাঁতার কাটছেন। তাঁর একটি হাতে ধরা রয়েছে একটি প্যাকেট। সেই প্যাকেটে ওষুধ ধরা রয়েছে বলে দাবি করা হয়েছে। সেই ওষুধই তিনি পৌঁছে দেন এক দুর্গত পরিবারের কাছে। জানা গিয়েছে ওই আশা কর্মীর নাম শ্যামলী মান্না। একেবারে সাঁতার কেটে জল পেরিয়ে তিনি পৌঁছে গিয়েছেন দুর্গত মানুষদের কাছে। নেতাদের অনেকেই যখন নিরাপদ দূরত্বে থেকে স্পিড বোটে চেপে বন্যা দেখছেন তখন ওই আশাদিদিকে দেখা গেল অন্য রূপে। এর সঙ্গেই একাধিক আশা কর্মীরা নিজেই টিউবের উপর পাটাতন বেঁধে নৌকা তৈরি করে পৌঁছে গেলেন দুর্গতদের দুয়ারে। 

এদিকে ওই আশা কর্মীকে প্রশংসায় ভরিয়ে দিয়েছেন প্রশাসনিক আধিকারিকরা। মহকুমা শাসক ফেসবুক লিখেছেন, আমাদের আশা দিদিমণিরা আমাদের গর্ব, আমাদের অহঙ্কার। একের পর এক বন্যা এসে জনজীবন বিপর্যস্ত করে দিয়েছে ঘাটাল মহকুমায়। বারে বারে জল পেরিয়ে মানুষের দুয়ারে পৌঁছে গিয়েছেন স্বাস্থ্য কর্মীরা। অদম্য এই ইচ্ছাকে স্যালুট। 

 

বন্ধ করুন