বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > দলীয় কর্মী খুনের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার ১২ ঘণ্টার বনধ ডাকল বিজেপি
গুলিবিদ্ধ কিঙ্কর মাঝিকে হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছেন পরিজনরা। 
গুলিবিদ্ধ কিঙ্কর মাঝিকে হাসপাতালে নিয়ে যাচ্ছেন পরিজনরা। 

দলীয় কর্মী খুনের প্রতিবাদে বৃহস্পতিবার ১২ ঘণ্টার বনধ ডাকল বিজেপি

  • ওদিকে এদিন বাগনানে বিজেপি নেতার মৃত্যুর খবর পৌঁছলে মূল অভিযুক্তের বাড়িতে ভাঙচুর চালায় জনতা। বাড়ির জিনিসপত্র বার করে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়।

হাওড়ার বাগনানে বিজেপি নেতা খুনের ঘটনায় বুধবার উত্তপ্ত হয়ে উঠল পরিস্থিতি। দোষীদের শাস্তির দাবিতে বৃহস্পতিহার ১২ ঘণ্টার বাগনান বনধ ডেকেছে বিজেপি। এদিন ঘটনায় মূল অভিযুক্তের বাড়ি ভাঙচুর করে আগুন ধরিয়ে দেয় উত্তেজিত জনতা। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে লাঠি চার্জ করে পুলিশ।

বিজেপির তরফে জানানো হয়েছে, অষ্টমীর রাতে গুলিবিদ্ধ হন বাগনানের বিজেপি নেতা কিঙ্কর মাঝি। বাড়ি সামনে বসে থাকার সময় তাঁকে লক্ষ্য করে গুলি ছোড়ে অজ্ঞাতপরিচয় আততায়ী। বুধবার কলকাতার NRS হাসপাতালে মৃত্যু হয় তাঁর। বিজেপির দাবি, পরাজয় আসন্ন জেনে ব্যক্তিহত্যার রাজনীতি শুরু করেছে বিজেপি। তাঁদের নেতাকে খুন করেছে তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা। 

অভিযোগ অস্বীকার করেছে তৃণমূল। তাদের দাবি, ঘটনায় যুক্ত নয় দল। কেন ও বিজেপি নেতা খুন হয়েছেন তা জানা নেই। 

ওদিকে এদিন বাগনানে বিজেপি নেতার মৃত্যুর খবর পৌঁছলে মূল অভিযুক্তের বাড়িতে ভাঙচুর চালায় জনতা। বাড়ির জিনিসপত্র বার করে আগুন ধরিয়ে দেওয়া হয়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। লাঠি চালিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে তারা। 

বিজেপি নেতা সায়ন্তন বসু জানিয়েছেন, পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি কর্মীদের খুনের ধারা অব্যহত। উৎসবের মধ্যেও অপারেশন থামাতে নারাজ তৃণমূলের পোষা গুন্ডারা। যার জেরে প্রাণ গেল আরও ১ জন নির্ভিক বিজেপি কর্মীর। কিন্তু এভাবে বিজেপিকে রোখা যাবে না। আসন্ন নির্বাচনে মানুষ এর জবাব দেবে।

 

বন্ধ করুন