বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > 'ভোটের আগে থেকে বিরোধী দলের সঙ্গে যোগ', ৬ বছর সাসপেন্ড পঞ্চায়েত সদস্য-সহ তৃণমূল নেতা
(ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
(ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

'ভোটের আগে থেকে বিরোধী দলের সঙ্গে যোগ', ৬ বছর সাসপেন্ড পঞ্চায়েত সদস্য-সহ তৃণমূল নেতা

তৃণমূলের দাবি, নির্বাচনের আগে থেকেই এরা বিরোধী দলের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলতেন। ভোটের সময়ে এদেরকে সংগঠনের কাজে খুব একটা দেখা যায়নি।

দলবিরোধী কাজকর্মে জড়িত থাকার অভিযোগে পঞ্চায়েত সদস্য-সহ ৪ জনকে সাসপেন্ড করল তৃণমূল। ৬ বছরের জন্য তাঁদের সাসপেন্ড করা হল। এই সাসপেন্ডের কথা জানিয়েছেন পাথরপ্রতিমার তৃণমূল বিধায়ক সমীর জানা। উল্লেখ্য, ভোট পরবর্তী সময়ে তৃণমূলে যাতে গোষ্ঠীকোন্দল মাথাচাড়া দিতে না পারে, সেজন্য এখন থেকেই সতর্ক তৃণমূল। তাই এবার দল বিরোধী কাজকর্মে মদত দিতে পারে, এমন ব্যক্তিদের আর কোনও রেয়াত করছে না দল।

এই প্রসঙ্গে পাথরপ্রতিমার বিধায়ক সমীর জানা জানান, ‘‌যে ৪ জনকে ৬ বছরের জন্য সাসপেন্ড করা হচ্ছে, তাঁরা হলেন, পাথরপ্রতিমার পঞ্চায়েত সমিতির সদস্য অপূর্ব দাস, ব্রজবল্লভপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের সঞ্চালক খোকন দাস, দিগম্বরপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের নর্থ ব্লকের প্রাথমিক শিক্ষক সমিতির সংগঠনের সম্পাদক স্বপন গিরি ও এসএসকের সভানেত্রী গীতা গিরি। নির্বাচনের আগে থেকেই এরা বিরোধী দলের সঙ্গে যোগাযোগ রেখে চলতেন। ভোটের সময়ে এদেরকে সংগঠনের কাজে খুব একটা দেখা যায়নি। দলবিরোধী কাজে যুক্ত থাকার জন্যই তাঁদের দল থেকে ৬ বছরের জন্য সাসপেন্ড করা হল।’‌ একইসঙ্গে তিনি জানান, এর আগেও তাঁদের বৈঠকে ডেকে সতর্ক করা হয়েছিল। কিন্তু তাতে কিছু লাভ হয়নি। তাই দল এই কঠিন সিদ্ধান্ত নিতে বাধ্য হল।

এদিকে গোটা ঘটনা সম্পর্কে কটাক্ষ করতে ছাড়েনি জেলা বিজেপি নেতৃত্ব। তাঁদের মতে, গোটাটাই তৃণমূলের অভ্যন্তরীণ বিষয়। অন্য দলের সঙ্গে সম্পর্ক রাখলেই যদি তৃণমূল দলত্যাগের নির্দেশ দেয়, তাহলে বুঝতে হবে তাঁরা আত্মহীনতায় ভুগছে।

গছে।

বন্ধ করুন