বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > দার্জিলিঙে বিহার সীমান্তে বাজেয়াপ্ত ৩০ কোটি টাকার সোনা, গ্রেফতার ৩ পাচারকারী
দার্জিলিঙে বিহার সীমান্তে বাজেয়াপ্ত ৩০ কোটি টাকার সোনা, গ্রেফতার ৩ পাচারকারী (ছবি সৌজন্য এএনআই)
দার্জিলিঙে বিহার সীমান্তে বাজেয়াপ্ত ৩০ কোটি টাকার সোনা, গ্রেফতার ৩ পাচারকারী (ছবি সৌজন্য এএনআই)

দার্জিলিঙে বিহার সীমান্তে বাজেয়াপ্ত ৩০ কোটি টাকার সোনা, গ্রেফতার ৩ পাচারকারী

  • বিহারে ভোট গণনার ঠিক আগের দিন ৩০ কোটি টাকার সোনার বার পাচার হয়ে যাচ্ছিল।

বিহারে ভোট গণনার ঠিক আগের দিন ৩০ কোটি টাকার সোনার বার পাচার হয়ে যাচ্ছিল। যা ধরা পড়ল সোমবার দার্জিলিং জেলার অন্তর্গত বাংলা–বিহার সীমান্ত এলাকা খড়িবাড়ি থেকে। এই ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করা হয়েছে। মদ পাচার রুখতে নাকাতল্লাশি চলাকালীন সীমান্ত থেকে পুলিশ এবং আবগারি বিভাগের হাতে এল প্রায় ২২ কেজি বিদেশি সোনার বিস্কুট। কোমরের বিশেষ বেল্টে ওই বিপুল পরিমাণ সোনা পাচারের ছক কষা হয়েছিল বলে খবর।

পুলিশ সূত্রে খবর, এই বিপুল পরিমাণ সোনা পাচার করা হচ্ছিল বিহারে। মঙ্গলবার ভোট গণনা হচ্ছে বিহারে। সেই ঘটনায় চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়েছে। ওই বিপুল পরিমাণ সোনা উদ্ধারে চক্ষু চড়কগাছ পুলিশ, আবগারি থেকে কেন্দ্রীয় গোয়েন্দা সংস্থাগুলির। সূত্রের খবর, একটি চারচাকা গাড়ি করে ওই সোনা মহারাষ্ট্রে পাচারের উদ্দেশ্যে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। তখনই আবগারি বিভাগ এবং খড়িবাড়ি থানার পুলিশ যৌথভাবে নাকাতল্লাশি চালায়। পাচারকারীদের পাকড়াও করে। ধৃতরা হল শশীকান্ত জালিন্দর সাঙ্কে পাল, অনিল লক্ষ্মণ গুমাদি এবং মহম্মদ আরফাজ। ধৃতদের মধ্যে শশীকান্ত এবং অনিল মহারাষ্ট্রের বাসিন্দা। আর মহম্মদ আরফাজ শিলিগুড়ি সংলগ্ন মাটিগাড়ার বাসিন্দা।

এই বিষয়ে দার্জিলিংয়ের পুলিশ সুপার সন্তোষ নীমবালকার বলেন, ‘‌প্রায় ৩০ কোটি টাকার সোনার বার বাজেয়াপ্ত করা হয়েছে। এগুলি অসম থেকে নিয়ে বিহারে নিয়ে যাওয়া হচ্ছিল। শিলিগুড়িকে করিডর করে তা পাচার করা হচ্ছিল। এই ঘটনায় তিনজনকে গ্রেফতার করা হযেছে।’‌ ধৃতদের মঙ্গলবার শিলিগুড়ি আদালতে তোলা হবে।

আর এক পুলিশ আধিকারিক জানান, ‘‌গুয়াহাটি থেকে সোনার বার বাসে করে শিলিগুড়ির তেনজিং নোরগে বাসস্ট্যান্ডে নিয়ে আসে দুই পাচারকারী শশীকান্ত এবং অনিল। সেখান থেকেই বিহারের অরঅরিয়া পর্যন্ত যেতে মহম্মদ আরফাজের গাড়ি ৫,০০০ টাকায় ভাড়া করেছিল। অরঅরিয়াতে ফের গাড়ি বদলে ছাপরা যেত তারা। ফের সেখান থেকে গাড়ি বদলে পৌঁছত মহারাষ্ট্রে। সাঙ্কে পালের এটা তৃতীয়বার পাচারের অ্যাসাইনমেন্ট ছিল। আর গুমাদির প্রথমবার।’‌

বন্ধ করুন