বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বিজেপির গোসাবা কেন্দ্রের প্রার্থী যোগ দিলেন তৃণমূলে, দক্ষিণে খসে পড়ল পদ্ম
ঘর ওয়াপসি করলেন গোসাবার পরাজিত বিজেপি প্রার্থী বরুণ প্রামাণিক ওরফে চিত্ত। ছবি সৌজন্য–এএনআই।
ঘর ওয়াপসি করলেন গোসাবার পরাজিত বিজেপি প্রার্থী বরুণ প্রামাণিক ওরফে চিত্ত। ছবি সৌজন্য–এএনআই।

বিজেপির গোসাবা কেন্দ্রের প্রার্থী যোগ দিলেন তৃণমূলে, দক্ষিণে খসে পড়ল পদ্ম

  • এবার ঘর ওয়াপসি করলেন গোসাবার পরাজিত বিজেপি প্রার্থী বরুণ প্রামাণিক ওরফে চিত্ত।

টিটাগড়–গাইঘাটার ধাক্কা এখনও সামলে ওঠা যায়নি। তার মধ্যেই এবার ঘরওয়াপসির জেরে ভাঙন অব্যাহত বিজেপিতে! এখন অবশ্য বিধায়ক ভাঙন শুরু হয়ে গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে এবার ফাটল দেখা গেল বিজেপির দক্ষিণ ২৪ পরগনায়। এবার ঘর ওয়াপসি করলেন গোসাবার পরাজিত বিজেপি প্রার্থী বরুণ প্রামাণিক ওরফে চিত্ত। আর তাতেই গেরুয়া শিবিরের অস্তিত্ব সংকট দেখা দিল এই জেলায়।

প্রায় ৬ মাস আগে দমবন্ধ হয়ে এসেছিল তাঁর। তাই সেফ হোম ভেবে তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন বরুণ প্রামাণিক। কিন্তু যেটাকে তিনি সেফ হোম ভেবেছিলেন সেখানেই এখন মোহভঙ্গ হয়েছে। তাই আবার ব্যাক টু দি প্যাভেলিয়ন। আর পুরনো নেতাকে ফিরে পেয়ে আত্মহারা গোসাবা ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব।

টিটাগড়–গাইঘাটার ধাক্কা এখনও সামলে ওঠা যায়নি। তার মধ্যেই এবার ঘরওয়াপসির জেরে ভাঙন অব্যাহত বিজেপিতে! এখন অবশ্য বিধায়ক ভাঙন শুরু হয়ে গিয়েছে। এই পরিস্থিতিতে এবার ফাটল দেখা গেল বিজেপির দক্ষিণ ২৪ পরগনায়। এবার ঘর ওয়াপসি করলেন গোসাবার পরাজিত বিজেপি প্রার্থী বরুণ প্রামাণিক ওরফে চিত্ত। আর তাতেই গেরুয়া শিবিরের অস্তিত্ব সংকট দেখা দিল এই জেলায়।

প্রায় ৬ মাস আগে দমবন্ধ হয়ে এসেছিল তাঁর। তাই সেফ হোম ভেবে তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়েছিলেন বরুণ প্রামাণিক। কিন্তু যেটাকে তিনি সেফ হোম ভেবেছিলেন সেখানেই এখন মোহভঙ্গ হয়েছে। তাই আবার ব্যাক টু দি প্যাভেলিয়ন। আর পুরনো নেতাকে ফিরে পেয়ে আত্মহারা গোসাবা ব্লক তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব।|#+|

এই ঘর ওয়াপসি’‌র পর বরুণ প্রামাণিক বলেন, ‘‌তৃণমূল কংগ্রেস আমাকে পুনরায় গ্রহণ করেছে। আমি তার জন্য কৃতজ্ঞ। দল আমাকে যেভাবে যে কাজে লাগাবে আমি তা করতে প্রস্তুত।’‌ এখানেও কিছুদিন বাদে হবে উপনির্বাচন। সেখানে তৃণমূল কংগ্রেস ভাল ফল করবে বলে জানান তিনি। এরপরই এলাকাবাসীর প্রতি তাঁর আবেদন, ‘‌আমাকে ছেলে, ভাই মনে করে যখন যা প্রয়োজন ডাকবেন। আমি আপনাদের পাশে ছিলাম, আছি এবং থাকব।’‌

উল্লেখ্য, বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারীর হাত ধরেই গেরুয়া শিবিরে এসেছিলেন তিনি। তাঁকে গোসাবা বিধানসভায় তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে প্রার্থীও করা হয়। কিন্তু পরাজয়ের মুখ দেখতে হয়। তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী জয়ন্ত নস্করের কাছে প্রায় ২৩ হাজার ভোটের ব্যবধানে তিনি হেরে যান। তবে একুশের নির্বাচনে এই পরাজয়ের পর থেকে তিনি নিজেই দূরত্ব তৈরি করেছিলেন। অবশেষে গেরুয়া সংস্রব ত্যাগ করে তিনি জোড়াফুলে ফিরে এলেন।

বন্ধ করুন