পুরুলিয়ায় বাস নিয়ে রওনা দেওয়ার আগে চালক ও কনডাক্টর
পুরুলিয়ায় বাস নিয়ে রওনা দেওয়ার আগে চালক ও কনডাক্টর

গ্রিন জোন জেলায় চলল সরকারি বাস, কিন্তু প্রথম দিন দেখা মিলল না কোনও যাত্রীর

  • বাস চালক ও কনডাক্টরদের সংক্রমণ থেকে বাঁচার জন্য দেওয়া হয়েছে রেনকোট, মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার।

সরকারের অনুনয় বিনয়ের পরেও লোকসানের ঝুঁকি নিয়ে বাস চালাননি মালিকরা। অবশেষে তাই করোনার গ্রিন জোনে গণপরিবহণকে স্বাভাবিক ছন্দে ফেরাতে উদ্যোগী হল রাজ্য সরকারই। শুক্রবার থেকে গ্রিন জোন ৪ জেলায় শুরু হল সরকারি বাস পরিষেবা। তবে প্রথম দিন তেমন কোনও যাত্রীর দেখা মেলেনি। 

শুক্রবার আলিপুরদুয়ার, উত্তর দিনাজপুর, দক্ষিণ দিনাজপুর, পুরুলিয়া সরকারি বাস চলাচল শুরু হয়েছে। বাস চালক ও কনডাক্টরদের সংক্রমণ থেকে বাঁচার জন্য দেওয়া হয়েছে রেনকোট, মাস্ক ও হ্যান্ড স্যানিটাইজার। রায়গঞ্জে ফুল ছুড়ে মালা পরিয়ে বাস কর্মীদের মনোবল বাড়ানো হয়। 

এদিন উত্তর দিনাজপুরের রায়গঞ্জ থেকে চারটি রুটে বাস চলাচল শুরু হয়েছে। এর মধ্যে রয়েছে রায়গঞ্জ-ডালখোলা, রায়গঞ্জ- ফতেপুর, রায়গঞ্জ – বিন্দোল ও রায়গঞ্জ – বাঙার চেকপোস্ট। 

বাস চালু হয়েছে দক্ষিণ দিনাজপুরেও। সেখানে বালুরঘাট থেকে কুশমণ্ডি ও বালুরঘাট থেকে দৌলতপুর পর্যন্ত বাস চলছে। 

এদিন পুরুলিয়াতেও শুরু হয়েছে সরকারি বাস চলাচল। একটি বাস পুরুলিয়া থেকে লালপুর হয়ে মানবাজার যায়। কেন্দা হয়ে পুরুলিয়া ফেরে বাসটি।

বাস চললেও এদিন কোথাও তেমন যাত্রীর দেখা মেলেনি। সুরক্ষার জন্য রেইন কোট পরেছিলেন বাসের চালক কনডাক্টররা। 

পরিবহণ দফতরের তরফে জানানো হয়েছে, একটি বাসে ২০ জনের বেশি মানুষ উঠতে পারবে না। মাস্ক না পরলে বাসে উঠতে পারবেন না যাত্রীরা। 

 

বন্ধ করুন