বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > নির্দিষ্ট সময় হতে পারে আগামী বছরের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক : সূত্র
নির্দিষ্ট সময় হতে পারে আগামী বছরের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক : সূত্র (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)
নির্দিষ্ট সময় হতে পারে আগামী বছরের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক : সূত্র (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য পিটিআই)

নির্দিষ্ট সময় হতে পারে আগামী বছরের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক : সূত্র

  • করোনাভাইরাসের প্রকোপে এখনও খোলেনি স্কুল।

করোনাভাইরাসের প্রকোপে এখনও খোলেনি স্কুল। তার ফলে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পিছিয়ে যাবে বলেই বিভিন্ন মহলের ধারণা ছিল। কিন্তু সূত্রের খবর, মোটামুটি ঠিক সময় হবে আগামী বছরের মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা। দিনক্ষণ এখনও স্পষ্ট না হলেও বিধানসভা নির্বাচনের আগেই দুটি পরীক্ষা মিটে যেতে পারে বলে সূত্রের খবর।

করোনাভাইরাসের জেরে এখনও স্কুল বন্ধ। পরিস্থিতি সামাল দিতে অনলাইন ক্লাস শুরু হয়েছে স্কুলগুলিতে। রেডিয়োর মাধ্যমেও ক্লাস নেওয়া হচ্ছে। তবে একাংশের বক্তব্য, সেগুলি শ্রেণিকক্ষে সরাসরি ক্লাসের বিকল্প নয়। তাছাড়া সকলের কাছে ইন্টারনেট সংযোগ বা স্মার্টফোন না থাকায় বহু পড়ুয়া ক্লাস করতে পারেনি। তাই মাধ্যমিক, উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা কবে হবে, কীভাবে হবে বা সিলেবাস কী হবে তা নিয়ে পড়ুয়ারা যেমন উদ্বিগ্ন, তেমনি চিন্তিত অভিভাবক ও শিক্ষক।

শিক্ষা দফতর বা রাজ্য সরকারের তরফে সে বিষযে স্পষ্টভাবে এখনও কিছু বলা হয়নি। তবে সূত্রের খবর, প্রতি বছরের মতো এবারও মোটামুটি একই সময়ে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা অনুষ্ঠিত হতে পারে।

সোমবার শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায় জানিয়েছেন, ডিসেম্বরেই খুলতে চলেছে রাজ্যের সব কলেজ ও বিশ্ববিদ্যালয়। সেক্ষেত্রে সম্পূর্ণ কোভিড বিধি মানতে হবে কলেজ-বিশ্ববিদ্যালয়গুলিকে। মাস্ক ব্যবহার এবং স্যানিটাইজারের ব্যবহার বাধ্যতামূলক। প্রতিটি কলেজ এবং বিশ্ববিদ্যালয় খোলার আগে ভালোভাবে জীবাণুমুক্ত করতে হবে। ক্লাস চলার মাঝেও স্যানিটাইজ করতে হবে। স্কুল খোলার বিষয়টি চিন্তাভাবনার স্তরে রয়েছে বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

তিনি জানিয়েছেন, কবে থেকে এবং কীভাবে স্কুল খোলা হবে, তা নিয়ে কালীপুজোর পরে বৈঠকে বসবে সরকার। বৈঠকের আলোচনার বিষয়বস্তু মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে জানানো হবে। তারপরই চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

তবে সব থেকে বেশি সমস্যা স্কুল স্তরে দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির পড়ুয়াদের ক্ষেত্রে। চলতি বছরের মাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরা ক্লাস করেছে মাত্র আড়াই মাস। উচ্চমাধ্যমিক পরীক্ষার্থীরা একদিনও স্কুলে গিয়ে ক্লাস করার সুযোগই পায়নি। সেক্ষেত্রে এই দুই ক্লাসের সিলেবাস শেষ করে কীভাবে পরীক্ষা নেওয়া হবে, তা নিয়েই চূড়ান্ত অনিশ্চয়তা তৈরি হয়েছে। তাই চেষ্টা করা হচ্ছে কালীপুজোর ছুটির পর অন্তত দশম ও দ্বাদশ শ্রেণির ক্লাস চালু করতে। বাকি ক্লাসগুলিতে পঠনপাঠন আপাতত অনলাইনেই চলবে।

এই পরিস্থিতিতে আগামী বছর মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক নিয়ে রাজ্যের শিক্ষা দফতরের কাছে একগুচ্ছ সুপারিশ করেছে শিক্ষকদের সংগঠন স্টেট ফোরাম অফ হেডমাস্টারস অ্যান্ড হেডমিস্ট্রেসস। বিধানসভা নির্বাচনের কথা বিবেচনা করে আগামী বছর মার্চে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা নেওয়ার পক্ষে সওয়াল করেছে সংগঠন। এক্ষেত্রে একই সঙ্গে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক পরীক্ষা একদিন অন্তর নেওয়া, পরীক্ষা কেন্দ্রের সংখ্যা বৃদ্ধি এবং আলাদা আলাদা কেন্দ্রে একই দিনে মাধ্যমিক ও উচ্চ মাধ্যমিক নেওয়া যায় কি না, তা ভেবে দেখার জন্য ফোরামের তরফে শিক্ষা দফতরের কাছে আবেদন করা হয়েছে। সেই সঙ্গে মোট সিলেবাসের ৭০ শতাংশ নিয়ে নতুন করে সিলেবাস ও নম্বর বিভাজন করে তা প্রকাশ করার পক্ষে সওয়াল করেছে এই শিক্ষক সংগঠন।

বন্ধ করুন