বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > নতুন পোশাক পায়নি প্রাথমিকের অনেক পড়ুয়া, ভরসা পুরনো ইউনিফর্ম

নতুন পোশাক পায়নি প্রাথমিকের অনেক পড়ুয়া, ভরসা পুরনো ইউনিফর্ম

নতুন পোশাক পায়নি একাধিক স্কুলের পড়ুয়া। প্রতীকী ছবি

নিয়ম অনুযায়ী প্রাথমিক স্কুলের পড়ুয়াদের পোশাক তৈরির দায়িত্ব দেওয়া হয় স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলিকে। তাদের কাপড়ের ছিট দেওয়া হয়। সেই মতো তারা মাপযোগ নিয়ে পড়ুয়াদের পোশাক তৈরি করে। জানা গিয়েছে, গত ফেব্রুয়ারি মাসে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যরা ছাত্রছাত্রীদের পোশাকের মাপ নিতে আসেন।

পড়ুয়াদের পোশাক তৈরির জন্য ৮ মাস আগে ছিট দেওয়া হয়েছিল স্বনির্ভর গোষ্ঠীকে। কিন্তু, এখনও পর্যন্ত নতুন পোশাক হাতে পায়নি বেশ কয়েকটি প্রাথমিক স্কুলের পড়ুয়ারা। আবার যে সমস্ত পড়ুয়ারা পোশাক হাতে পেয়েছে তাদের অনেকের পোশাক ছোট বড় হয়েছে। যার ফলে পুরনো পোশাক পরে তাদের স্কুলে আসতে হচ্ছে। এর জন্য স্বনির্ভর গোষ্ঠীর উপরেই দায় চাপাচ্ছে জেলা প্রাথমিক শিক্ষা পর্ষদ। এমনই অভিযোগ উঠেছে হাওড়ার উলবেরিয়া ১ নম্বর ব্লকের কয়েকটি প্রাথমিক স্কুলে।

আরও পড়ুন: অনেক স্কুলই পোশাক পায়নি, পড়ুয়াদের ইউনিফর্ম দেওয়ার সময়সীমা বেঁধে দিল নবান্ন

জেলা প্রাথমিক শিক্ষা সংসদ সূত্রে জানা গিয়েছে, নিয়ম অনুযায়ী প্রাথমিক স্কুলের পড়ুয়াদের পোশাক তৈরির দায়িত্ব দেওয়া হয় স্বনির্ভর গোষ্ঠীগুলিকে। তাদের কাপড়ের ছিট দেওয়া হয়। সেই মতো তারা মাপযোগ নিয়ে পড়ুয়াদের পোশাক তৈরি করে। জানা গিয়েছে, ওই সমস্ত স্কুলগুলির পড়ুয়াদের পোশাক তৈরির জন্য গত ফেব্রুয়ারি মাসে স্বনির্ভর গোষ্ঠীর সদস্যরা ছাত্রছাত্রীদের পোশাকের মাপ নিতে আসেন। তারপর পোশাক বানিয়ে এপ্রিল মাসের গোড়ার দিকে  স্কুলে পৌঁছে দেন। কিন্তু উলুবেড়িয়ার ওই সমস্ত স্কুলের ক্ষেত্রে তা হয়নি। অভিযোগ, এ বছর বহু পড়ুয়া নতুন পোশাক হাতে পায়নি। আবার যারা পোশাক পেয়েছে তা ছোট অথবা বড়। ফলে সেগুলিও পড়ুয়ারা পরতে পারছে না । যেমন সমরুক নাজিরপাড়া প্রাথমিক বিদ্যালয়ে ১১৯ জন ছাত্রছাত্রীর মধ্যে এখনও পর্যন্ত নতুন পোশাক পরতে পারছে মাত্র ২০ জন। স্কুল সূত্রে জানা গিয়েছে, পুজোর কয়েকদিন আগে বস্তায় করে পড়ুয়াদের পোশাক দিয়ে গিয়েছিল স্বনির্ভর গোষ্ঠী। ২০ জনের গায়ে পোশাক ঠিকমতো হলেও বাকিগুলি ছোট-বড় হচ্ছে। আবার অন্য একটি স্কুলের দাবি, ওই স্কুলের অনেক জন পড়ুয়া এখনও নতুন পোশাক পায়নি। পুজোর পর দেওয়ার কথা ছিল। কিন্তু এখনও দেওয়া হয়নি।

পোশাক না পাওয়ার কথা স্বীকার করেছেন হাওড়া জেলার প্রাথমিক শিক্ষা সংসদের চেয়ারম্যান কৃষ্ণ কুমার ঘোষ। তিনি জানান, জেলার কয়েকটি স্কুলে এই সমস্যা হচ্ছে। স্বনির্ভর গোষ্ঠীর হাতে অনেক আগেই পোশাকের জন্য কাপড় দেওয়া হয়েছিল। তবে তারা জানিয়েছে তাদের হাতে লোকবল কম রয়েছে। সেই কারণেই সমস্যা হচ্ছে। তবে দ্রুত এই সমস্যার সমাধানের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে বলে তিনি জানিয়েছেন।  যদিও যে সমস্ত পোশাক ছোট বা বড় হয়েছে তাদের ক্ষেত্রে কি হবে? সে বিষয়ে কিছু জানাননি।

 

বাংলার মুখ খবর

Latest News

মর্নিংওয়াকে বেরিয়েছিলেন বৃদ্ধা, হামলা চালাল পথকুকুরের দল, কামড়ে ছিঁড়ে নিল পা ছেলের বেডরুম সাজাতে শাহরুখের বউয়ের কাছে হাজির মালাইকা! কারণ জানলে অবাক হবেন ৮-এর মধ্যে ৭ বার চ্যাম্পিয়ন ভারত, মেয়েদের এশিয়া কাপে চলে হরমনপ্রীতদের দিদিগিরি 'রিটেস্টের অর্ডার দিতে হলে...', NEET-UG মামলায় বড় পর্যবেক্ষণ সুপ্রিম কোর্টের সুরাপ্রেমীদের জন্যে দুঃসংবাদ! রাজ্যে বৃদ্ধি পাবে মদের দাম, কত করে বাড়ছে রেট? রক্ত পাতলা করার ওষুধ বাঁচাতে পারে সাপের বিষক্রিয়া থেকে, তথ্য উঠে এল গবেষণায় বিশ্ব সেরা খাদ্য তালিকায় বাংলার চিংড়ি মালাই! জায়গা শীর্ষ ৫০ সামুদ্রিক খাবারেও ইলিশ থেকে মটন! শোভন-সোহিনীর বউভাত ঘরোয়া হলে কী হবে, খাবারের মেনুু এলাহি, দেখুন- ছাত্র আন্দোলনে অগ্নিগর্ভ বাংলাদেশে ভারতীয়দের জন্য অ্যাডভাইসারি জারি দূতাবাসের হার্দিককেই অধিনায়ক চাই- T20I-র নেতা হিসাবে সূর্যের নাম উঠতেই প্রতিবাদে ঝড়

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.