বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > বিজেপি’‌র খাবার খেয়ে নিল তৃণমূল! বন্দরশহরে তুমুল আলোড়ন
দিলীপ ঘোষের সভায় উপস্থিত বিজেপি কর্মীদের খাবার খেয়ে নিয়েছেন তৃণমূল কর্মীরা, এমনই অভিযোগ উঠেছে।
দিলীপ ঘোষের সভায় উপস্থিত বিজেপি কর্মীদের খাবার খেয়ে নিয়েছেন তৃণমূল কর্মীরা, এমনই অভিযোগ উঠেছে।

বিজেপি’‌র খাবার খেয়ে নিল তৃণমূল! বন্দরশহরে তুমুল আলোড়ন

  • বিজেপি’‌র আয়োজন করা খাবার খেয়ে নিয়েছে তৃণমূল!‌ আশ্চর্য লাগলেও এটাই বাস্তবে ঘটেছে। রাজ্য– রাজনীতির ইতিহাসে এটাই প্রথম বলে সবাই মনে করছে।

বন্দর শহরে খাবার লুঠের ঘটনা ঘটল। তাও আবার এক রাজনৈতিক দলের তৈরি খাবার আর এক রাজনৈতিক দল খেয়ে নিল বলে অভিযোগ। এই ঘটনায় জোর শোরগোল পড়ে গিয়েছে। জানা গিয়েছে, বিজেপি’‌র আয়োজন করা খাবার খেয়ে নিয়েছে তৃণমূল!‌ আশ্চর্য লাগলেও এটাই বাস্তবে ঘটেছে। রাজ্য– রাজনীতির ইতিহাসে এটাই প্রথম বলে সবাই মনে করছে।

সূত্রের খবর, হলদিয়ায় দিলীপ ঘোষের সভা ছিল৷ আর তাই দিলীপের সভায় বিজেপি কর্মীদের খাওয়ার ব্যবস্থা করা হয়েছিল৷ সেখানে গিয়ে তৃণমূল কর্মীরা খাবার খেয়ে নেন বলে অভিযোগ৷ হলদিয়া পুরসভার ১৫ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলার আজিজুল রহমানের অনুগামীদের বিরুদ্ধে এই খাবার খেয়ে নেওয়ার অভিযোগ উঠেছে৷ সুতরাং বিজেপি কর্মীরা খেতে পারেননি।

যদিও এই অভিযোগ অস্বীকার করেছেন তৃণমূল নেতা আজিজুল রহমান৷ তিনি বলেন, ‘‌আমাদের নামে মিথ্যা অপপ্রচার করা হচ্ছে। আমরা মানুষের মুখে খাবার তুলে দিয়ে থাকি। লকডাউনের সময় বহু মানুষের মুখে আমরা খাবার তুলে দিয়েছি। এটা রাজনৈতিক চক্রান্ত। যা করে আমাদের দলকে কালিমালিপ্ত করা হচ্ছে।’‌ বিজেপি’‌র দাবি, মিথ্যে কথা বলছেন আজিজুল। ওরাই এই কাজ করেছে। আসলে ওরা রীতিমতো হামলা করে খাবার ডাকাতি করেছে।

উল্লেখ্য, এই আজিজুল রহমান তৃণমূল নেতা হওয়ার পাশাপাশি শুভেন্দু অধিকারীর ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত। আগে এমন অনেক তাণ্ডব তিনি করেছেন বলে খবর। একবার সিপিএমের রাজ্য সম্পাদক সূর্যকান্ত মিশ্রকে আক্রমণ করেছিলেন আজিজুল রহমান। এমন অনেক ঘটনা রয়েছে তার বিরুদ্ধে। এই পরিস্থিতিতে এখন পূর্ব মেদিনীপুরের বন্দর শহরে চাপানউতোর চলছে বিজেপি–তৃণমূলের মধ্যে।

 

বন্ধ করুন