বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > নকল স্বর্ণমুদ্রা গছিয়ে তৃণমূল নেতার কাছ থেকে ১২ লক্ষ টাকা নিয়ে পালাল প্রতারকরা
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

নকল স্বর্ণমুদ্রা গছিয়ে তৃণমূল নেতার কাছ থেকে ১২ লক্ষ টাকা নিয়ে পালাল প্রতারকরা

  • বুধবার এক যুবককে সঙ্গে নিয়ে রানাঘাটের বড়বাজার এলাকায় শংকরবাবুর বাড়িতে আসেন সেই যুবক। ৯৫টি স্বর্ণমুদ্রা তুলে দেন শংকরবাবুর কাছে। দেখতে আসলের মতো হলেও প্রতিটি স্বর্ণমুদ্রাই ছিল নকল। কিন্তু খালি চোখে তা ধরতে পারেননি শংকরবাবু।

স্বর্ণমুদ্রা কিনতে গিয়ে এবার প্রতারণার ফাঁদে খোদ তৃণমূল নেতা। তৃণমূলের ওয়ার্ড কো-অর্ডিনেটরের বাড়ি গিয়ে ভুয়ো স্বর্ণমুদ্রা গছিয়ে পালাল প্রতারকরা। নকল স্বর্ণমুদ্রা দিয়ে প্রায় ১২ লক্ষ টাকা নিয়ে গিয়েছে বলে দাবি তৃণমূল নেতার। ঘটনার তদন্তে নেমেছে রানাঘাট থানার পুলিশ।

রানাঘাট পুরসভার ১ নম্বর ওয়ার্ডের কো-অর্ডিনেটর তথা তৃণমূল নেতা শংকর অধিকারীর দাবি, দিন কয়েক আগে বীরভূমের লাভপুরের বাসিন্দা গোপাল সর্দার নামে এক যুবক তাঁকে একটি পুরনো স্বর্ণমুদ্রা বিক্রি করেন। পরীক্ষা করে শংকরবাবু দেখেন মুদ্রাটি খাঁটি। এর পর ওই যুবক তাঁর কাছে আরও ৯৫টি মুদ্রা রয়েছে বলে জানায়। খুবই কম দামে সেগুলি বিক্রি করে দেবে বলে প্রলোভন দেখায় সে। প্রথম মুদ্রাটি খাঁটি হওয়ায় বাকি মুদ্রাগুলিও কিনতে রাজি হয়ে যান তিনি। রফা হয় প্রায় ১২ লক্ষ টাকায়।

বুধবার এক যুবককে সঙ্গে নিয়ে রানাঘাটের বড়বাজার এলাকায় শংকরবাবুর বাড়িতে আসেন সেই যুবক। ৯৫টি স্বর্ণমুদ্রা তুলে দেন শংকরবাবুর কাছে। দেখতে আসলের মতো হলেও প্রতিটি স্বর্ণমুদ্রাই ছিল নকল। কিন্তু খালি চোখে তা ধরতে পারেননি শংকরবাবু। শংকরবাবুর কাছ থেকে ১২ লক্ষ টাকা নিয়ে তাঁর বাড়ি থেকে চলে যান ২ যুবক। এর পর পরীক্ষা করে শংকরবাবু বুঝতে পারেন প্রতিটি মুদ্রাই ভুয়ো।

প্রতারণার শিকার হয়েছেন বুঝে রানাঘাট থানায় ওই ২ যুবকের বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেছেন তিনি। শংকরবাবু জানিয়েছেন, প্রতারক তাঁর বাড়ি বীরভূমের লাভপুর থানা এলাকায় বলে জানিয়েছিল। সেই সূত্র ধরে যুবকের খোঁজ শুরু করেছে পুলিশ।

 

বন্ধ করুন