বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > অন্যান্য জেলা > দেনার দায়ে মানসিক অবসাদ, আত্মঘাতী পরিবহণ কর্মী
দেনার দায়ে মানসিক অবসাদ, আত্মঘাতী পরিবহণ কর্মী
দেনার দায়ে মানসিক অবসাদ, আত্মঘাতী পরিবহণ কর্মী

দেনার দায়ে মানসিক অবসাদ, আত্মঘাতী পরিবহণ কর্মী

প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পারে, বাজারে কয়েক লক্ষ টাকা দেনা হয়ে গিয়েছিল ওই কর্মীর। তার জেরেই মানসিক অবসাদে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হন ওই ব্যক্তি। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

লক্ষাধিক টাকা দেনার দায়ে মানসিক অবসাদ। তার জেরে আত্মঘাতী হলেন পরিবহণ কর্মী। ঘর থেকে ওই কর্মীর ঝুলন্ত দেহ উদ্ধার হল। সোমবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে মালদহের সানিপার্ক এলাকায়। ঘটনা ঘিরে চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে ওই এলাকায়। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছায় ইংরেজবাজার থানার পুলিশ। দেহ উদ্ধার করে ময়নাতদন্তের জন্য মালদহ মেডিকেল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়। পুলিশ ও স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, মৃত সরকারি কর্মীর নাম মনোজ আচার্য (৪৫)। তিনি উত্তরবঙ্গ রাষ্ট্রীয় পরিবহণ সংস্থার মালদহ বিভাগে কর্মরত ছিলেন। প্রাথমিক তদন্তে পুলিশ জানতে পারে, বাজারে কয়েক লক্ষ টাকা দেনা হয়ে গিয়েছিল ওই কর্মীর। তার জেরেই মানসিক অবসাদে গলায় ফাঁস লাগিয়ে আত্মঘাতী হন ওই ব্যক্তি। ঘটনার তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

পরিবারের সদস্যদের জিজ্ঞাসাবাদ করে পুলিশ জানতে পারে, বাজার থেকে প্রায় ৩ লক্ষ টাকার দেনা করেছিলেন ওই পরিবহণ কর্মী। কীভাবে সেই টাকা শোধ করবেন, তা বুঝে উঠতে পারছিলেন না তিনি। সেকারণে দীর্ঘদিন ধরেই মানসিক অবসাদে ভুগছিলেন।

পরিবার সূত্রে জানা গিয়েছে, রবিবার রাতে খাবার খেয়ে নিজের ঘরে ঘুমাতে যান মনোজবাবু। সোমবার সকালে বাড়ির সদস্যরা ঘরে মনোজ ঝুলন্ত দেহ দেখতে পান।মৃতের এক ছেলে তন্ময় আচার্য জানিয়েছেন, তাঁর বাবা একজনের কাছ থেকে প্রায় তিন লক্ষ টাকা সুদে ধার নিয়েছিলেন। আমরা প্রথমে বুঝতে না পারলেও পরে এই বিষয়টা জানতে পারি। এই নিয়ে দীর্ঘদিন ধরে অবসাদে ভুগছিলেন বাবা। কীভাবে ঋণের টাকা শোধ করবেন, সেই নিয়ে চিন্তিত ছিলেন তিনি। সেকারণে এই পথ বেছে নিয়েছেন তিনি। মনোজবাবুর মৃত্যুতে শোকের ছায়া নেমে এসেছে তাঁর পরিবারে।

বন্ধ করুন