বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > মমতার হারের জের? পূ মেদিনীপুরে বাতিল হল ‘দুয়ারে ত্রাণ’-এর সব থেকে বেশি আবেদন
ইয়াসের পর শংকরপুর সৈকতের লন্ডভন্ড চিত্র। (HT_PRINT)
ইয়াসের পর শংকরপুর সৈকতের লন্ডভন্ড চিত্র। (HT_PRINT)

মমতার হারের জের? পূ মেদিনীপুরে বাতিল হল ‘দুয়ারে ত্রাণ’-এর সব থেকে বেশি আবেদন

  • পূর্ব মেদিনীপুর থেকে আবেদন এসেছিল ১.১৮ লক্ষ। সেখানে গ্রাহ্য হয়েছে মাত্র ৩৮ হাজার আবেদন। অথচ ঝড়ের সব থেকে বেশি প্রভাব পড়েছিল এই জেলাতেই

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসে ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপূরণ দিতে রাজ্য সরকারের দুয়ারে ত্রাণ প্রকল্পে সব থেকে বেশি আবেদন বাতিল হল পূর্ব মেদিনীপুরে। সেই পূর্ব মেদিনীপুর যা বিরোধী দলনেতা শুভেন্দু অধিকারীর জেলা বলে পরিচিত। যে শুভেন্দুর কাছে পূর্ব মেদিনীপুরেরই নন্দীগ্রামে হেরেছিলেন মমতা। তবে তাতে তাঁর মুখ্যমন্ত্রী হওয়া আটকায়নি।

ইয়াসের তাণ্ডবে লন্ডভন্ড হয়ে গিয়েছিল রাজ্যের ২ উপকূলবর্তী জেলা দক্ষিণ ২৪ পরগনা ও পূর্ব মেদিনীপুর। জলোচ্ছাসে ভেসে গিয়েছিল দিঘার সৈকত। ঝড় সরতেই সেই দৃশ্য স্বচক্ষে দেখে এসেছিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কিন্তু তাতে কপালে শিকে ছিঁড়ল না পূর্ব মেদিনীপুরবাসীর। ইয়াসের ত্রাণ চেয়ে জেলায় জমা পড়া আবেদনের ভগ্নাংশমাত্র গ্রাহ্য করল সরকার।

রাজ্যের ত্রাণ ও পুনর্বাসন দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, রাজ্যে ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের ত্রাণ চেয়ে ৩.৮১ লক্ষ আবেদন জমা পড়েছে। তার মধ্যে ১.৫৫ লক্ষ আবেদন গ্রাহ্য হয়েছে। পূর্ব মেদিনীপুর থেকে আবেদন এসেছিল ১.১৮ লক্ষ। সেখানে গ্রাহ্য হয়েছে মাত্র ৩৮ হাজার আবেদন। অথচ ঝড়ের সব থেকে বেশি প্রভাব পড়েছিল এই জেলাতেই।

যদিও নবান্ন সূত্রের দাবি, একই পরিবারের একাধিক সদস্য আবেদন করায় কিছু আবেদন বাতিল হয়েছে। কিছু আবেদনে ত্রুটি থাকায় তা বাতিল করতে হয়েছে।

তবে এই সরল ব্যাখ্যা মানতে নারাজ বিরোধীরা। তাদের অভিযোগ, ঝড়ের সব থেকে কাছে ছিল যে জেলা সেখানেই কেন সব থেকে কম ক্ষতিপূরণ প্রাপক? তৃণমূলের ঝুলি ভরতে না পারার খেসারত কি দিতে হচ্ছে পূর্ব মেদিনীপুরের বাসিন্দাদের।

 

বন্ধ করুন