বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ‘‌একটু দেখো প্লিজ’‌, ফেসবুকে ভারতমাতাকে চিঠি পোস্ট করলেন রপা গঙ্গোপাধ্যায়
রূপা গঙ্গোপাধ্যায়। ফাইল ছবি

‘‌একটু দেখো প্লিজ’‌, ফেসবুকে ভারতমাতাকে চিঠি পোস্ট করলেন রপা গঙ্গোপাধ্যায়

  • ইদানিংকালে দলের অন্দরে তিনি বিদ্রোহী। বিতর্কিত মন্তব্য থেকে বিতর্কিত পোস্ট রাজ্য–রাজনীতিতে শোরগোল ফেলেছে।

এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় নতুন বছরে শুভেচ্ছা জানানোটাই ট্রেন্ড। তা থেকে কেউ বাদ যাচ্ছেন না। তেমন ভাবে বাদ যাননি বিজেপির রাজ্যসভার সাংসদ রূপা গঙ্গোপাধ্যায়ও। তিনিও পোস্ট করেছেন। তবে সেটা পোস্টকার্ড। ফেসবুক এখানে ডাক–হরকরার কাজ করেছে। সেখানে রূপা চিঠি লিখলেন এবং পোস্ট করে দিলেন। মাত্র ৫০ পয়সার পোস্টকার্ডে। এই চিঠি তিনি পোস্ট করেছেন ভারতমাতা–কে। যার ঠিকানা— ভারতবর্ষ।

ইদানিংকালে দলের অন্দরে তিনি বিদ্রোহী। বিতর্কিত মন্তব্য থেকে বিতর্কিত পোস্ট রাজ্য–রাজনীতিতে শোরগোল ফেলেছে। তার মধ্যে দলের গাইডলাইন না মানা রূপাকে নিয়ে রাজ্য নেতাদের অস্বস্তি কম নয়। তাঁর সাম্প্রতিক মন্তব্য, ‘‌এইসব ভাটের বৈঠকে আমাকে ডাকবেন না’‌। কলকাতা পুরসভা নির্বাচনের ভার্চুয়াল বৈঠকে এই মন্তব্য করেই বেরিয়ে গিয়েছিলেন তিনি। বছর শেষে রূপা গঙ্গোপাধ্যায় সামনে এলেন এই ভারতমাতাকে চিঠি লিখে।

চিঠিতে কী লিখেছেন রূপা?‌ ভারতমাতাকে উদ্দেশ্য করে তিনি চিঠিতে লেখেন, ‘‌মা, এই ক’টা বছর বড় ঝামেলায় কাটল সকলের। সবাইকে বিপদমুক্ত কর। নতুন বছর যেন সবার ভাল কাটে। একটু দেখো প্লিজ। মা— আমার প্রণাম নিও। তোমার স্নেহের রূপা।’‌ আবার পু‌নশ্চ‍ বলে লেখেন, ‘‌ও! ভুলেই গেছি বলতে, আজ ৩১ ডিসেম্বর আয়করের টাকা দেওয়া হয়ে গিয়েছে। নিশ্চিন্ত।’‌

কিন্তু এখন প্রশ্ন উঠছে, এমন চিঠি কেন লিখলেন রূপা?‌ নামপ্রকাশে অনিচ্ছুক রাজ্য বিজেপির এক নেতা বলেন, ‘‌আর্থিক কষ্টের কথা সরাসরি না বলে ঘুরিয়ে বুঝিয়েছেন তিনি। কয়েকদিন আগেই তিস্তার স্বামী গৌরবের উদ্দেশ্যে লিখেছিলেন, আমার টাকা নেই। থাকলে শহরে হোর্ডিং লাগিয়ে দিতাম।’‌ দুর্ঘটনায় মৃত্যু হওয়া বিজেপির কাউন্সিলর তিস্তার স্বামী গৌরব এবার কলকাতা পুরসভার নির্বাচনে নির্দল হয়ে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেছিলেন। তাঁকে সমর্থন করেছিলেন রূপা।

বন্ধ করুন