বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Budget 2021: ঘোষণা করেননি নির্মলা, তবে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর সংস্থার বরাদ্দ বাড়ল ২৯%
আগামী অর্থবর্ষে কলকাতা মেট্রো রেল কর্পোরেশন লিমিটেডকে (কেএমআরসিএল) ৯০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এএনআই)
আগামী অর্থবর্ষে কলকাতা মেট্রো রেল কর্পোরেশন লিমিটেডকে (কেএমআরসিএল) ৯০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। (ছবিটি প্রতীকী, সৌজন্য এএনআই)

Budget 2021: ঘোষণা করেননি নির্মলা, তবে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর সংস্থার বরাদ্দ বাড়ল ২৯%

  • রেল বিকাশ নিগম লিমিটেডের (আরভিএনএল) ভাগ্যে আপাতত কোনও বরাদ্দ জোটেনি।

ভোটমুখী বছরে পশ্চিমবঙ্গের এক মেট্রো প্রকল্পের রূপায়ণকারী সংস্থার বরাদ্দ বেড়েছে প্রায় ২৯ শতাংশ। একাধিক সড়ক এবং রেল প্রকল্পের ‘উপহার’, রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের উদ্ধৃতির মধ্যে বাজেটে বক্তৃতায় সে বিষয়ে কোনও উচ্চবাচ্যই করলেন না কেন্দ্রীয় অর্থমন্ত্রী নির্মলা সীতারামন। পরে কেন্দ্রের প্রকাশিত তথ্যে সেই বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছে।

সেই তথ্য অনুযায়ী, আগামী অর্থবর্ষে কলকাতা মেট্রো রেল কর্পোরেশন লিমিটেডকে (কেএমআরসিএল) ৯০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছে। যে সংস্থার হাতে আছে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রোর দায়িত্ব। গত বছরের বাজেটে অবশ্য কেএমআরসিএলকে অর্থ বরাদ্দের কোনও উল্লেখ করা হয়নি। পরে সংশোধন করে ৭০০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হয়েছিল। ২০১৯-২০ অর্থবর্ষে সেই বরাদ্দের পরিমাণ ছিল ৮৫৫ কোটি টাকা। যা আসন্ন বিধানসভা ভোটের আগে রাজনৈতিকভাবে তাৎপর্যপূর্ণ। 

এমনিতে মেট্রো কর্তাদের আশা, আগামী অর্থবর্ষের মধ্যে ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো এবং তিনটি মেট্রো করিডরের একাংশের কাজ সম্পূর্ণ হয়ে যাবে। সেজন্য করোনাভাইরাস পরিস্থিতির ধাক্কা সত্ত্বেও বাড়তি বরাদ্দের আশায় ছিলেন তাঁরা। তবে রেলের বাজেট তথ্যে রেল বিকাশ নিগম লিমিটেডের (আরভিএনএল) কোনও বরাদ্দের উল্লেখ নেই। একনজরে সেই পাঁচ প্রকল্পের হাল-হকিকত -

১) ইস্ট-ওয়েস্ট মেট্রো প্রকল্প

গত বছর অক্টোবরে পরিমার্জিত ৮,৫৭৫ কোটি টাকা বাজেটে অনুমোদন দিয়েছে কেন্দ্রীয় মন্ত্রিসভা। আপাতত ফুলবাগান পর্যন্ত সাত কিলোমিটার পর্যন্ত মেট্রো পরিষেবা চালু আছে।মেট্রো কর্তাদের আশা, চলতি বছরের মধ্যে শিয়ালদহ পর্যন্ত মেট্রো দৌড়াবে। তারপর আগামী বছর মার্চের মধ্যে সল্টলেক সেক্টর ফাইভ থেকে হাওড়া ময়দান পর্যন্ত পুরো রুটেই চালু হয়ে যাবে পরিষেবা।

২) দক্ষিণেশ্বর-ব্যারাকপুর মেট্রো প্রকল্প

চার কিলোমিটার দীর্ঘ সেই লাইনে শেষ মুহূর্তের প্রস্তুতি চলছে। খুব শীঘ্রই বাণিজ্যিকভাবে দৌড়াতে শুরু করবে দক্ষিণেশ্বর-ব্যারাকপুর মেট্রো। যা ভোটের আগে বাংলা বিজেপির কাছে অন্যতম হাতিয়ার হতে চলেছে বলে মত রাজনৈতিক মহলের। সেই প্রকল্পের দায়িত্বে আছে আরভিএনএল।

৩) নিউ গড়িয়া-বিমানবন্দর মেট্রো প্রকল্প 

৩২ কিলোমিটার দীর্ঘ মেট্রো প্রকল্প রূপায়ণের দায়িত্বে আছে আরভিএনএল। চলতি বছরের ডিসেম্বরে রুবি থেকে নিউ গড়িয়া পর্যন্ত মেট্রো পরিষেবা শুরু করার আশায় আছেন মেট্রো কর্তারা। কিন্তু এবারের বাজেটে আরভিএনএলের ভাগ্যে কোনও বরাদ্দ জোটেনি। ২০১৯ সালের তুলনায় গতবারের বাজেটে কম অর্থ বরাদ্দ করেছিলেন সীতারামন। এবার আপাতত কোনও বরাদ্দের ঘোষণা করা হয়নি। 

৪) জোকা-বিবাদী বাগ মেট্রো প্রকল্প

চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে জোকা-তারাতলার মধ্যে মেট্রো চালানোর চেষ্টা করছেন মেট্রো কর্তারা। সেজন্য জোরকদমে চলছে মাঝেরহাট স্টেশনের কাজ। ২০২২ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে সেই মেট্রোর পরিষেবা বাড়িয়ে মোমিনপুর পর্যন্ত নিয়ে যাওয়ার পরিকল্পনা আছে। কিন্তু এই প্রকল্পেরও রূপায়ণকারী সংস্থা আরভিএনএল।

৫) নোয়াপাড়া-বারাসত মেট্রো প্রকল্প 

দীর্ঘদিন জমি জটে থাকার পর কাজে কিছুটা গতি এসেছিল। চলতি বছরের ডিসেম্বরের মধ্যে বিমানবন্দর-নোয়াপাড়ার মধ্যে মেট্রো শুরুর পরিকল্পনাও করছিলেন আরভিএনএলের কর্তারা। চলতি বছরেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী অবশ্য আগামী বছরের ৩১ মার্চের মধ্যে বিমানবন্দর-নোয়াপাড়ার কাজ শেষ করার নির্দেশ দিয়েছিলেন। নিউ ব্যারাকপুর পর্যন্ত কাজ শেষ করার জন্য ২০২৫ সালের ডিসেম্বর পর্যন্ত সময় বেঁধে দিয়েছিলেন। তবে বারাসত পর্যন্ত মেট্রো এগিয়ে যাওয়ার ক্ষেত্রে জমি অধিগ্রহণের সমস্যা আছে। তারইমধ্যে আপাতত ওই প্রকল্পে কোনও বরাদ্দ জোটেনি।

বন্ধ করুন