বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > CITU Movement: কলকাতা পুরসভা অভিযানের ডাক দিল সিটু, কর্মব্যস্ত দিনে তোলপাড় কি হবে রাজপথ?

CITU Movement: কলকাতা পুরসভা অভিযানের ডাক দিল সিটু, কর্মব্যস্ত দিনে তোলপাড় কি হবে রাজপথ?

পথে নামছে সিপিএমের শ্রমিক সংগঠন সিটু।

একশো দিনের কাজ করেই সারাবছর সংসার চালাতে হয় এই অস্থায়ী শ্রমিকদের। আমাদের দাবি, অস্থায়ী শ্রমিকদের সমস্যা মেটানো এবং ১০০ দিনের কাজের কর্মীদের সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নিতে হবে কলকাতা পুরসভাকে। আগে বহুবার বলা হয়েছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। তাই বাধ্য হয়েই আন্দোলনের রাস্তায় নামতে হচ্ছে। 

কলকাতা পুরসভার মেয়র ফিরহাদ হাকিম সংবাদমাধ্যমে বলেছেন,শুধু কর্পোরেশন সম্পর্কেই জিজ্ঞাসা করুন। এটা অবশ্য সংবাদমাধ্যমকেই বলেছিলেন। আর পুরসভা নিয়ে এবার মুখোমুখি জানতেই পথে নামছে সিপিএমের শ্রমিক সংগঠন সিটু। এমনকী কলকাতা পুরসভার কাজের জন্য নির্ভর করতে হয় একটা বড় অংশের অস্থায়ী কর্মীদের ওপর। এই অস্থায়ী কর্মীরা অবহেলার শিকার বলে অভিযোগ সিপিএমের শ্রমিক সংগঠন সিটুর। তাঁদের দাবি, এই কর্মীদের সমস্যা সমাধান করতে বারবার কর্তৃপক্ষের কাছে বিষয়টি তুলে ধরা হয়েছিল। কিন্তু তাতে কাজ হয়নি। তাই লাগাতার আন্দোলনের সিদ্ধান্ত নিয়ে সিটু ২০ মার্চ কলকাতা পুরসভার সদর দফতরে অভিযান চালানোর সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

অস্থায়ী কর্মীদের সমস্যা কী? সিটু সূত্রে খবর, কলকাতা পুরসভা–সহ অন্যান্য দফতরে প্রায় ৩০০০০ অস্থায়ী শ্রমিক কাজ করেন। এই কর্মীদের বিভিন্ন সমস্যা রয়েছে কর্মস্থলে। কোথাও পিএফ, গ্র‌্যাচুইটি, ইএসআই অধিকার থাকলেও অনেকেই সেটা থেকে বঞ্চিত হচ্ছেন। ছুটি পাওয়ার ক্ষেত্রেও একাধিক সমস্যা রয়েছে। তার মধ্যে যারা ১০০ দিনের কাজ করে তাদের অবস্থা অত্যন্ত খারাপ। যে টাকা এই প্রকল্পে মেলে সেটা যথেষ্ট নয়। এই বিষয়গুলি নিয়েই পথে নামছে সিটু।

কলকাতা পুরসভা কী ঘেরাও করা হবে? সিটুর একটি সূত্র বলছে,‌ একশো দিনের কাজ করেই সারাবছর সংসার চালাতে হয় এই অস্থায়ী শ্রমিকদের। আমাদের দাবি, অস্থায়ী শ্রমিকদের সমস্যা মেটানো এবং ১০০ দিনের কাজের কর্মীদের সমস্যা সমাধানে উদ্যোগ নিতে হবে কলকাতা পুরসভাকে। আগে বহুবার বলা হয়েছে। কিন্তু কাজের কাজ কিছুই হয়নি। তাই বাধ্য হয়েই আন্দোলনের রাস্তায় নামতে হচ্ছে। তবে পুরসভা ঘেরাও করা হবে না। অভিযানে যদি হস্তক্ষেপ করা হয় তাহলে রণক্ষেত্রের চেহারা নিতে পারে।

ঠিক কী বলছেন সিটুর নেতা?‌ এই অভিযান করতে বাধ্য হতে হয়েছে। সিটু নেতা সৌমজিৎ রজক বলেন, ‘‌কলকাতার মানুষজনকে পানীয় জল সরবরাহ করা থেকে শুরু করে শহরের নিকাশি, সাফাই, জঞ্জাল পরিষ্কার, পুর স্বাস্থ্য, পুরসভার স্কুল–সহ নানা কাজে ভরসা করতে হয় অস্থায়ী কর্মীদের উপর। অস্থায়ী শ্রমিকদের ন্যায্য দাবি অবহেলা করছে এই পুরবোর্ড‌। এই সহজ কথাটা মনে করিয়ে দিতে আগামীকাল যাব আমরা।’‌

এই খবরটি আপনি পড়তে পারেন HT App থেকেও। এবার HT App বাংলায়। HT App ডাউনলোড করার লিঙ্ক https://htipad.onelink.me/277p/p7me4aup

বাংলার মুখ খবর
বন্ধ করুন

Latest News

দিব্যেন্দু কি বিজেপিতে যোগ দেবেন?‌ মোদীর সঙ্গে দেখা হতে চলেছে তৃণমূল সাংসদের গায়িকা প্রশ্মিতার সঙ্গে তৃতীয়বার বিয়ের পিঁড়িতে, কে ছিলেন অনুপমের প্রথম স্ত্রী? ‘গগনযান’-র জন্য এই ৪ মহাকাশচারীকে বেছে নিল ভারত, প্রথমবার মহাকাশে পাঠাবে মানুষ বউ ডোনার কোলে ছোট্ট সৌরভ! দাদাগিরি ১০ এ এমন অবাস্তব ঘটনা ঘটল কীভাবে? বন দফতরের বিট অফিসারকে আটকে রাখল গ্রামবাসীরা, গজরাজের হানায় মৃত্যুর জের প্রায় এক বছর পরে ১৬ জনকে গ্রেফতার করল এনআইএ, রামনবমীতে হিংসার জের টেস্টের সেরা ১১-য় অনিশ্চিত জেনেই আন্তর্জাতিক ক্রিকেট থেকে অবসর নিলেন কিউয়ি পেসার মুম্বই গিয়ে ডেটিং অ্যাপের ফাঁদে প্রিয়াঙ্কা! দিদি নম্বর ওয়ানে এসে বললেন কী? সফল হয়েছে গোড়ালির অস্ত্রোপচার, হাসপাতালের বিছানায় শুয়েই নিজেই আপডেট দিলেন শামি কলকাতায় একসময় পড়াশোনা করতেন, থাকতেন, ফের একবার এই শহরে ফিরলেন বিদ্যুৎ জামওয়াল

Copyright © 2024 HT Digital Streams Limited. All RightsReserved.