বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Gold smuggling: কলকাতা বিমানবন্দরে ব্যাঙ্কক ফেরত দুই যাত্রীর কাছ থেকে উদ্ধার ৭০ লক্ষ টাকার সোনা!

Gold smuggling: কলকাতা বিমানবন্দরে ব্যাঙ্কক ফেরত দুই যাত্রীর কাছ থেকে উদ্ধার ৭০ লক্ষ টাকার সোনা!

বিপুল পরিমাণ সোনা উদ্ধার। প্রতীকী ছবি

ধৃত ওই দুই যাত্রীর নাম সুরাজ সাউ ও রবি প্রসাদ সাউ। তাদের গতিবিধি দেখে সন্দেহ হয় শুল্ক বিভাগের কর্মকর্তাদের। এরপরে তাদের ব্যাগ স্ক্রিনিং করা হয়। তাতেই তাদের ব্যাগে সোনা ধরা পড়ে। দুজনকে দীর্ঘক্ষণ জেরা করা হয়। পরে তাদের আরও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গ্রেফতার করেন আধিকারিকরা।

দমদম বিমানবন্দর থেকে সোনা উদ্ধার অব্যাহত রয়েছে। আবারও দমদম বিমানবন্দরে যাত্রীর কাছ থেকে উদ্ধার হল বিপুল পরিমাণে সোনা। যার বাজারদর প্রায় ৭০ লক্ষ টাকা। রবিবার সকালে ব্যাঙ্কক থেকে আসা এই দুই যাত্রীর কাছ থেকে প্রায় ১.২ কেজি ওজনের সোনার অলঙ্কার এবং সোনার বার উদ্ধার হয়েছে। তারা বিমানবন্দরের গ্রিন চ্যানেল দিয়ে বাইরে বেরিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছিল। তার আগেই তাদের হাতেনাতে ধরে ফেলেন শুল্ক বিভাগের আধিকারিকরা।

বিমানবন্দর সূত্রে জানা গিয়েছে, ধৃত ওই দুই যাত্রীর নাম সুরাজ সাউ ও রবি প্রসাদ সাউ। তাদের গতিবিধি দেখে সন্দেহ হয় শুল্ক বিভাগের কর্মকর্তাদের। এরপরে তাদের ব্যাগ স্ক্রিনিং করা হয়। তাতেই তাদের ব্যাগে সোনা ধরা পড়ে। দুজনকে দীর্ঘক্ষণ জেরা করা হয়। পরে তাদের আরও জিজ্ঞাসাবাদের জন্য গ্রেফতার করেন আধিকারিকরা।

শুল্ক বিভাগ সূত্রে জানা গিয়েছে, তল্লাশি চালিয়ে সুরাজ সাউয়ের ব্যাগের ভিতর থেকে সাতটি সোনার বার পাওয়া যায়। যার ওজন ৭০০ গ্রাম। এই সোনার আনুমানিক মূল্য প্রায় সাড়ে ৩৭ লক্ষ টাকা এবং বাকি সোনা উদ্ধার হয়েছে রবি প্রসাদ সাউয়ের ব্যাগ থেকে। তার কাছ থেকে একটি সোনার বার ও দুটি চেইন পাওয়া গিয়েছে। তাদের কাছ থেকে উদ্ধার হওয়া সমস্ত সোনা বাজেয়াপ্ত করেছে শুল্ক বিভাগ।

ইতিমধ্যেই জড়িতদের আদালতে তুলে নিজেদের হেফাজতে চেয়ে আবেদন জানিয়েছে শুল্ক বিভাগ। তারা কোথা থেকে সোনা কিনেছিল? কলকাতায় পাচার করার উদ্দেশ্য ছিল কি না? সেক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সোনা পাচার চক্র জড়িত রয়েছে কিনা? তা জানার চেষ্টা করছেন আধিকারিকরা। প্রসঙ্গত, দমদম বিমানবন্দর থেকে সোনা উদ্ধারের ঘটনা নতুন কিছু নয়।

বন্ধ করুন