বাড়ি > বাংলার মুখ > কলকাতা > করোনা রোগী সৎকারকার্যে লুঠ চলছে কলকাতায়, এটা আমাদের দেখার কথা নয়, জানাল পুরসভা
চলছে করোনা রোগীর দেহ সৎকার। ছবি সৌজন্য : রয়াটার্স (REUTERS)
চলছে করোনা রোগীর দেহ সৎকার। ছবি সৌজন্য : রয়াটার্স (REUTERS)

করোনা রোগী সৎকারকার্যে লুঠ চলছে কলকাতায়, এটা আমাদের দেখার কথা নয়, জানাল পুরসভা

  • অভিযোগ, এই সব কিছুই হচ্ছে কলকাতা পুরসভার নাকের তলা থেকে। পুর কর্তৃপক্ষের দেওয়া নির্দেশকে হাতিয়ার করেই রমরমিয়ে ‘‌লুঠ’‌ শুরু করছে কিছু সংস্থা।

যে যেমন পারছে তেমন দর হাঁকছে। কেউ ৭ থেকে ১০ হাজার, কেউ ১৫ হাজার, কেউ আবার ২০ হাজার। বেসরকারি হাসপাতালে মৃত করোনা রোগীর দেহ সৎকার করতে এতটা পরিমাণ অর্থই খরচ করতে হচ্ছে মৃতের পরিবারকে। অভিযোগ, এই সব কিছুই হচ্ছে কলকাতা পুরসভার নাকের তলা থেকে। পুর কর্তৃপক্ষের দেওয়া নির্দেশকে হাতিয়ার করেই রমরমিয়ে ‘‌লুঠ’‌ শুরু করছে কিছু সংস্থা।

পুরসভার ওই নির্দেশিকার স্পষ্ট লেখা রয়েছে, সৎকার কাজ করবে দুটি সংস্থা। তাদের সঙ্গে করোনায় মৃতের পরিবারের যোগাযোগের মাধ্যম হবে সংশ্লিষ্ট বেসরকারি হাসপাতাল। শববাহী গাড়ির ভাড়া–সহ যাবতীয় খরচ মিলিয়ে ৫ হাজার টাকার বেশি নেওয়া যাবে না বলে জানানো হয়েছে। কিন্তু বাস্তবে এর দ্বিগুণ পরিমাণ খরচ করতে হচ্ছে বলে অভিযোগ মৃতের পরিবারদের।

সম্প্রতি রাজ্যের শ্মশানগুলিতে টাকা তোলার সংগঠিত চক্র তৈরি হয়েছে বলে এক জনস্বার্থ মামলা দায়ের হয় কলকাতা হাইকোর্টে। সেখানে উল্লেখ করা হয় হাওড়ার শিবপুর শ্মশানের এক অমানবিক ঘটনার কথা। যেখানে করোনায় মৃতের দেহ দেখতে চাওয়ায় শ্মশানের কর্মীরা মৃতের পরিবারের কাছে ৫১,০০০ টাকা দাবি করে। এবার একইরকম অভিযোগ উঠতে শুরু করেছে বেসরকারি হাসপাতালের সঙ্গে কর্মরত ওই দেহ সৎকারকারী সংস্থাগুলির বিরুদ্ধে।

যদিও ওই সংস্থার এক কর্মী বাবু ঘোষ ‘‌আনন্দবাজার পত্রিকা’‌–কে জানিয়েছেন, ‘‌কর্মীদের বেতন, পিপিই–র দাম, স্যানিটাইজ় করার খরচ প্রচুর। সে কারণেই বেশি টাকা চাওয়া হচ্ছে। সরকারি হাসপাতাল থেকে নেওয়া দেহ পিছু ৩ হাজার টাকা করে দেওয়ার কথা পুরসভার। সেই টাকা মিলছে না। তাই বেসরকারি হাসপাতাল থেকেই এভাবে খরচ তুলতে হচ্ছে।’‌

এ ব্যাপারে পুর প্রশাসকমণ্ডলীর এক সদস্য জানিয়েছেন, কোভিড দেহ সৎকারের ক্ষমতা অতিক্রম করে গিয়েছে পুরসভা। তাই দুটি সংস্থা আর বেসরকারি হাসপাতালের হাতে বিষয়টি ছাড়া হয়েছে। পুর স্বাস্থ্য দফতরের দায়িত্বপ্রাপ্ত অতীন ঘোষের কথায়, ‘‌এটা আমাদের দেখার কথা নয়। বেসরকারি হাসপাতালগুলিই এ ব্যাপারে বলতে পারবে।’‌

বন্ধ করুন