সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রুখতে কী ভাবে হাঁচি দিতে হবে দেখাচ্ছেন মমতা। শুক্রবার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে।
সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়া রুখতে কী ভাবে হাঁচি দিতে হবে দেখাচ্ছেন মমতা। শুক্রবার নেতাজি ইন্ডোর স্টেডিয়ামে।

‘জানলা – দরজা খোলা রাখুন। ভাইরাস বেরিয়ে যাবে‘, করোনা রুখতে নিদান মমতার

  • যদিও জানলা দরজা খোলা রেখে ভাইরাস তাড়ানোর নিদান মানতে পারছেন না চিকিৎসকরা।

করোনাভাইরাস প্রতিরোধে নতুন নিদান দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তাঁর পরামর্শ, ‘জানলা – দরজা খোলা রাখুন। ভাইরাস বেরিয়ে যাবে।‘ সোমবার নবান্নে করোনা পরিস্থিতি নিয়ে উচ্চ পর্যায়ের বৈঠকের পর সাংবাদিক বৈঠকে একথা বলেন মমতা।

এদিন মুখ্যমন্ত্রী বলেন, ‘আমি সবাইকে বলব, ঘরের দরজা – জানলা খোলা রাখুন। এসি ঘর হলেও জানলা খোলা রাখুন। হাওয়া বাতাস খেললে অনেক ভাইরাস জানলা দিয়ে বেরিয়ে যায়।’ সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রী বিধিবদ্ধ সতর্কীকরণ যোগ করে বলেন, ‘একথা যদিও আমাকে বিশেষজ্ঞরা বলেননি। তবে তাই তো সবাই বলে।’

বলে রাখি, সোমবার নবান্নে করোনা পরিস্থিতি মোকাবিলায় রিভিউ মিটিং ছিল। উচ্চ পর্যায়ের ওই বৈঠকে পৌরহিত্য করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। সেখানে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে একাধিক গুরুত্বপূর্ণ সিদ্ধান্ত হয়েছে। সংক্রমণ মোকাবিলায় রাজ্য সরকার ২০০ কোটি টাকার তহবিল তৈরি করেছে বলে জানিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। সঙ্গে জানিয়েছেন, ১৫ এপ্রিল পর্যন্ত বন্ধ থাকবে পশ্চিমবঙ্গের যাবতীয় শিক্ষা প্রতিষ্ঠান।

যদিও জানলা দরজা খোলা রেখে ভাইরাস তাড়ানোর নিদান মানতে পারছেন না চিকিৎসকরা। চিকিৎসকরা বলছেন, দরজা – জানলা খোলা রাখলে ঘর স্বাস্থ্যকর থাকে ঠিকই। তবে তা গ্রামের নির্মল পরিবেশে। শহরের দূষণে মুখ্যমন্ত্রীর পরামর্শ না-মানাই ভাল। আর এর সঙ্গে করোনাভাইরাস সংক্রমণ এড়ানোর কোনও সম্পর্ক নেই। কারণ করোনাভাইরাস ছড়ায় মানুষ থেকে মানুষে। ফলে ঘর যতই স্বাস্থ্যকর হোক না কেন, উলটোদিকের ব্যক্তিটি আক্রান্ত হলে আপনারও আক্রান্ত হওয়ার সম্ভাবনা প্রবল।


বন্ধ করুন