বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > পাতিয়ালা হাউজ আদালতের সমনকে চ্যালেঞ্জ করে দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ রুজিরা
রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি
রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়। ফাইল ছবি

পাতিয়ালা হাউজ আদালতের সমনকে চ্যালেঞ্জ করে দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ রুজিরা

  • দিল্লি হাইকোর্টে রুজিরাদেবীর আইনজীবী আবেদনে জানিয়েছেন, তাঁকে সমন পাঠানোর ক্ষেত্রে প্রথা মানা হয়নি। সাধরণত রাজ্যের বাইরে কোনও মহিলাকে সমন পাঠানোর সময় তাঁর সুবিধা অসুবিধার বিষয়টি বিবেচনা করতে হয়।

কয়লাপাচার কাণ্ডে ইডির দায়ের করা মামলায় দিল্লির পাতিয়ালা হাউজ আদালতের সমনকে চ্যালেঞ্জ করে দিল্লি হাইকোর্টের দ্বারস্থ হলেন রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়। আগামী ১২ অক্টোবর তাঁকে যে কোনও পরিস্থিতিতে আদালতে সশরীরে হাজিরার নির্দেশ দিয়েছিলের বিচারক। সেই নির্দেশকে চ্যালেঞ্জ করে বুধবার দিল্লি হাইকোর্টে আবেদন করেন রুজিরার আইনজীবীরা।

দিল্লি হাইকোর্টে রুজিরাদেবীর আইনজীবী আবেদনে জানিয়েছেন, তাঁকে সমন পাঠানোর ক্ষেত্রে প্রথা মানা হয়নি। সাধরণত রাজ্যের বাইরে কোনও মহিলাকে সমন পাঠানোর সময় তাঁর সুবিধা অসুবিধার বিষয়টি বিবেচনা করতে হয়। এক্ষেত্রে রুজিরাদেবীর সমস্যার কথা বিবেচনা করেননি বিচারক। এছাড়া রুজিরাদেবীর ২ টি নাবালক সন্তান রয়েছে। করোনা পরিস্থিতিতে তাঁদের রেখে আসা সম্ভব নয় রুজিরা দেবীর পক্ষে। রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়ের আইনজীবীদের দাবি, তদন্তে সব রকম সাহায্য করেছেন তিনি। কখনো হাজিরা না দিতে পারলে চিঠি দিয়ে তার কারণ জানিয়েছেন। এমনকী কলকাতায় তদন্তে সব রকম সাহায্য করতে তৈরি তিনি। তার পরও কেন দিল্লি তলব?

ইডির পালটা দাবি, কয়লাপাচারের তদন্তে একাধিকবার তলব করলেও এখনো একবারও হাজিরা দেননি রুজিরা বন্দ্যোপাধ্যায়। নানা কারণ দেখিয়ে হাজিরা এড়িয়েছেন তিনি। রুজিরার স্বামী অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় একজন সাংসদ হওয়ায় দিল্লিতে তাঁর বাসভবন রয়েছে। অনেক সময় দিল্লিতে বসবাস করেন তিনি। সেখানে তিনি সপরিবারে বাস করতে পারেন। সেখান থেকে তাঁর ইডি দফতরে হাজিরা দিতে সমস্যা হওয়ার কথা নয়।

 

বন্ধ করুন