বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > অবশেষে খাতায় - কলমে দক্ষিণবঙ্গে প্রবেশ করল বর্ষা
ডান দিকে, বর্ষার অগ্রগতির রেখা, নীল রঙে

অবশেষে খাতায় - কলমে দক্ষিণবঙ্গে প্রবেশ করল বর্ষা

  • গত কয়েকদিন দক্ষিণবঙ্গে প্রাক বর্ষার বৃষ্টিতে অস্বস্তিসূচক কমেছে। তবে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ও ব্যপ্তি এখনও সীমাবদ্ধ। এরই মধ্যে দক্ষিণবঙ্গের একাংশে বর্ষা প্রবেশ করেছে বলে জানাল হাওয়া অফিস।

নির্দিষ্ট সময়ের ৯ দিন পর দক্ষিণবঙ্গে প্রবেশ করল বর্ষা। তবে উপকূল দিয়ে নয়, ব্যতিক্রমীভাবে এবার বর্ষা প্রবেশ করল উত্তরবঙ্গ থেকে। শুক্রবার বিকেলে মৌসম ভবনের তরফে মৌসুমী বায়ুর অগ্রগতির যে মানচিত্র প্রকাশ করা হয়েছে তাতে দেখা যাচ্ছে মুর্শিদাবাদের বাংলাদেশ সীমান্ত এলাকায় প্রবেশ করেছে বর্ষা।

চলতি বছরে উত্তরবঙ্গে সময়ের ৪ দিন আগে বর্ষা প্রবেশ করলেও গত ৩ জুন থেকে অপেক্ষায় রয়েছেন দক্ষিণবঙ্গের বাসিন্দারা। প্রচণ্ড গরমের সঙ্গে আর্দ্রতার জেরে অস্বস্তি সূচক চরমে পৌঁছয়। যার জেরে গরমের ছুটি আরও দীর্ঘ করার সিদ্ধান্ত নেয় রাজ্য সরকার। বলতে গেলে গত ৩ জুন থেকেই দক্ষিণবঙ্গের দোরগোড়ায় দাঁড়িয়ে ছিল বর্ষা। টানা ১০ দিন তার এক পাও অগ্রগতি হয়নি। গত ১৩ জুন সামান্য এগোয় মৌসুমী বায়ু। প্রবেশ করে প্রায় গোটা উত্তরবঙ্গে। কিন্তু দক্ষিণবঙ্গকে তার পরও অপেক্ষা করতে হয়েছে।

গত কয়েকদিন দক্ষিণবঙ্গে প্রাক বর্ষার বৃষ্টিতে অস্বস্তিসূচক কমেছে। তবে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ ও ব্যপ্তি এখনও সীমাবদ্ধ। এরই মধ্যে দক্ষিণবঙ্গের একাংশে বর্ষা প্রবেশ করেছে বলে জানাল হাওয়া অফিস।

মৌসম ভবনের প্রকাশিত মানচিত্র অনুসারে মুর্শিদাবাদের সাগরদিঘি, রানিনগর, ডোমকলে বর্ষা প্রবেশ করেছে। বর্ষা প্রবেশ করেছে লালগোলা, ধূলিয়ান ও ফরাক্কায়। সঙ্গে ঝাড়খণ্ডের একাংশেও প্রবেশ করেছে বর্ষা।

শুক্রবার দিনভর দক্ষিণবঙ্গের বিস্তৃর্ণ এলাকায় প্রাক বর্ষার বৃষ্টি হয়েছে। জেলা জেলায় হয়েছে হালকা থেকে মাঝারি বৃষ্টিপাত।

 

বন্ধ করুন