বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > ভার্চুয়াল শহিদ দিবসে টার্গেট ৫০ লক্ষ, বিধায়কদের ফরমান জারি করল তৃণমূল
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি)
মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। (ফাইল ছবি)

ভার্চুয়াল শহিদ দিবসে টার্গেট ৫০ লক্ষ, বিধায়কদের ফরমান জারি করল তৃণমূল

  • করোনাভাইরাসের জেরে ভার্চুয়াল সমাবেশের উপরেই নির্ভর করতে হচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেসকে। কিন্তু তাতেও ভার্চুয়াল সমাবেশে রেকর্ড কর্মীর অংশগ্রহণ চাইছে তৃণমূল কংগ্রেস।

ভার্চুয়াল সভা বলে ঢিলেমি দিলে চলবে না। বরং আরও বেশি করে শক্তিপ্রদর্শন করতে হবে। এবার এই রাজ্যের পাশাপাশি ভিন রাজ্যেও দেখানো হতে চলেছে ২১ জুলাইয়ে বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তৃতা। একুশের নির্বাচনে জিতে হ্যাট্রিক করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। এবার তৃতীয়বার ক্ষমতায় থাকা অবস্থায় ২১ জুলাইয়ের সমাবেশ হচ্ছে। করোনাভাইরাসের জেরে ভার্চুয়াল সমাবেশের উপরেই নির্ভর করতে হচ্ছে তৃণমূল কংগ্রেসকে। কিন্তু তাতেও ভার্চুয়াল সমাবেশে রেকর্ড কর্মীর অংশগ্রহণ চাইছে তৃণমূল কংগ্রেস। এই শহিদ সমাবেশে অন্তত ৫০ লক্ষ কর্মী–সমর্থকদের উপস্থিতি চাইছে তৃণমূল কংগ্রেসের শীর্ষ নেতৃত্ব। ইতিমধ্যেই সেই মর্মে নির্দেশ চলে গিয়েছে দলের সর্বত্র।

দলীয় নির্দেশ অনুযায়ী, এই ৫০ লক্ষ টার্গেটে পৌঁছে যেতে প্রতিটি বুথে সকাল ১০টায় সামাজিক দূরত্ব বজায় রেখে ৫০ জন করে কর্মীকে সমবেত হতে হবে। তারপর দলীয় পতাকা উত্তোলন করে শহিদ বেদীতে মাল্যদান করে ১৯৯৩ সালে প্রয়াত শহিদদের শ্রদ্ধা জানাতে হবে। সেই কাজ হয়ে যাওয়ার পর দুপুর ২টোয় ফের বুথে কর্মীদের যেতে হবে। সেখানে টিভি অথবা জায়ান্ট স্ক্রিন লাগিয়ে তৃণমূল সুপ্রিমো তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বক্তৃতা শুনতে হবে সবাইকে।

কালীঘাটে নিজের দফতর থেকে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বক্তৃতা দেবেন। বুথে বুথে শহিদ দিবস পালন এবং পরে দলনেত্রীর বক্তৃতা শোনার ও শোনানোর দায়িত্ব বর্তেছে এলাকার বিধায়কদের উপর। প্রত্যেকটি বুথে যাতে শহিদ দিবস পালিত হয়, তার উপর কড়া নজর রাখতে হবে। এই পরিস্থিতিতে বুথ স্তরে আয়োজিত দলীয় কর্মসূচির ছবি এবং ভিডিও পাঠাতে বলেছেন বিধায়করা। আর তৃণমূল কংগ্রেস যেখানে জিততে পারেনি এবার অর্থাৎ বিধায়ক নেই, সেখানে ওই দায়িত্ব পালন করবে জেলা সভাপতি তথা ব্লক সভাপতি। এই নির্দেশের উপর ভিত্তি করে কাজ শুরু হয়ে গিয়েছে বলে খবর।

আগে বুথের সংখ্যা ছিল ৭৮,৯০৩। এবার করোনাভাইরাসের জেরে বুথের সংখ্যা ৩০ শতাংশ বেড়েছে। এখন রাজ্যে মোট বুথের সংখ্যা দাঁড়িয়েছে ১ লক্ষ ১,৭৯০।‌ আর এই সব বুথেই কর্মসূচি পালন করতে নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। সুতরাং অঙ্ক বলছে, এক লক্ষের বেশি বুথে ৫০ জন করে কর্মী কর্মসূচিতে অংশ নিলে তা সহজেই ৫০ লক্ষ ছাড়িয়ে যাবে। গত দু’‌বছর ধরে ধর্মতলায় শহিদ সমাবেশ হচ্ছে না। ২০১৯ সালে শেষ ধর্মতলায় আয়োজিত হয়েছিল শহিদ দিবসের সমাবেশ। সেখানে জনপ্লাবন দেখা দিত। এবার সেটাই ভার্চুয়ালি তুলে ধরতে চান মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলে মনে করা হচ্ছে।

বন্ধ করুন