বাংলা নিউজ > বাংলার মুখ > কলকাতা > Shahid Diwas: কলকাতায় পা রাখলেন মানেকা–বরুণ গান্ধী, একুশের সমাবেশে কী যোগদান?
বরুণ গান্ধী (HT_PRINT)

Shahid Diwas: কলকাতায় পা রাখলেন মানেকা–বরুণ গান্ধী, একুশের সমাবেশে কী যোগদান?

  • আজ, বৃহস্পতিবার সকালেই বরুণ গান্ধী এবং মানেকা গান্ধী কলকাতায় পা রেখেছেন। তবে কী কারণে তাঁরা কলকাতায় এসেছেন সেটা এখনও স্পষ্ট নয়। ২১ জুলাই তৃণমূল কংগ্রেসের ‘শহিদ স্মরণে’র দিনে বরুণ–মানেকার কলকাতায় আসা নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়েছে। তাহলে কী তাঁরা তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেবেন?‌ উঠছে প্রশ্ন।

এবারের একুশের সমাবেশে চমক থাকছে। কথাটি বলেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। আর আজ, বৃহস্পতিবার শহিদ সমাবেশের সকালেই যেন চমকটা দেখা গেল। শহিদ দিবসের শহরে গান্ধী পরিবারের দুই সদস্য। তাঁরা এখন বিজেপির সাংসদ। কলকাতায় এসে পৌঁছেছেন ইন্দিরা গান্ধীর পৌত্র এবং পুত্রবধূ। আর এটাই চমক বলে মনে করছেন অনেকে।

ঠিক কারা এসেছেন কলকাতায়?‌ আজ, বৃহস্পতিবার সকালেই বরুণ গান্ধী এবং মানেকা গান্ধী কলকাতায় পা রেখেছেন। তবে কী কারণে তাঁরা কলকাতায় এসেছেন সেটা এখনও স্পষ্ট নয়। ২১ জুলাই তৃণমূল কংগ্রেসের ‘শহিদ স্মরণে’র দিনে বরুণ–মানেকার কলকাতায় আসা নিয়ে গুঞ্জন শুরু হয়েছে। তাহলে কী তাঁরা তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দেবেন?‌ উঠছে প্রশ্ন।

কেন বরুণ–মানেকাকে নিয়ে প্রশ্ন উঠছে?‌ এখন নানা ইস্যুতে বরুণ গান্ধীর সঙ্গে নরেন্দ্র মোদীর সরকারের সম্পর্কে ফাটল ধরেছে। প্রধানমন্ত্রীর একাধিক পদক্ষেপ নিয়ে সমালোচনা করতে দেখা গিয়েছে বিজেপি সাংসদ বরুণ গান্ধীকে। তাতে বারবার বিপাকে পড়েছে নরেন্দ্র মোদীর সরকার। তাই ২০২৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে বিজেপি এঁদের টিকিট নাও দিতে পারে। সেখানে তৃণমূল কংগ্রেসের টিকিট নিয়ে তাঁরা বিজেপিকে ধাক্কা দিতে চাইছেন বলে সূত্রের খবর।

কী বার্তা দিয়েছেন অভিষেক?‌ আজ শহিদ সমাবেশের সকালেই বিশেষ বার্তা দেন তৃণমূল কংগ্রেসের সর্বভারতীয় সাধারণ সম্পাদক অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি টুইটে লেখেন, ‘‌২১ জুলাই বাংলার ইতিহাসে এক পবিত্র দিন। ১৯৯৩ সালের নৃশংস হত্যাকাণ্ডে প্রাণ হারানো ১৩ শহিদের প্রতি আমার বিনম্র শ্রদ্ধা। এই দিনে আমাদের স্বর আরও দৃঢ় হোক। কোনও শক্তি আমাদের দমিয়ে রাখতে পারবে না। ভয় দেখাতে পারবে না। মানুষের জন্য আমরা সবসময় আছি।’‌ আর এই টুইটের পরই মানেকা–বরুণের কলকাতা সফর বিশেষ তাৎপর্যপূর্ণ বলে মনে করা হচ্ছে।

বন্ধ করুন