বাড়ি > বাংলার মুখ > কলকাতা > রেশন দুর্নীতির অভিযোগে বলির পাঁঠা হতে চলেছেন ২৫০ জন রেশন ডিলার
প্রতীকি ছবি
প্রতীকি ছবি

রেশন দুর্নীতির অভিযোগে বলির পাঁঠা হতে চলেছেন ২৫০ জন রেশন ডিলার

  • জ্যোতিপ্রিয়বাবু জানিয়েছেন, যে সব এলাকায় রেশন ডিলারদের বহিষ্কার করা হবে সেখানে বিজ্ঞাপণ নিয়ে নতুন ডিলার নিয়োগ করবে সরকার। এই প্রক্রিয়া শেষ করতে কয়েক মাস সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন তিনি।

রেশন দুর্নীতির দায় ডিলারদের ঘাড়ে দিয়ে ২৫০ জন রেশন ডিলারকে বরখাস্ত করতে চলেছে রাজ্য সরকার। এমনটাই জানিয়েছেন খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক। তিনি বলেন, খুব দ্রুত ওই সব এলাকায় নতুন ডিলার নিয়োগ করবে সরকার। ততদিন পাশের এলাকার রেশন ডিলাররা ওই সব এলাকার দায়িত্ব সামলাবেন। 

খাদ্যমন্ত্রী বলেন, লকডাউনের পর বিনামূল্যে রেশন বিতরণের সময় ৭৬১ জন রেশন ডিলারের বিরুদ্ধে দুর্নীতির অভিযোগ এসেছিল। তাদের শো-কজ ও জরিমানা করেছিল খাদ্য দফতর। এর মধ্যে প্রায় ৩৫০ জন রেশ ডিলারের বিরুদ্ধে অভিযোগ গুরুতর ছিল। তাই তাঁদের শুনানি হয়। তাতে ২৫০ জনের কাছাকাছি ডিলারের বিরুদ্ধে দোষ প্রমাণিত হয়েছে। তাদের বরখাস্ত করতে চলেছে খাদ্য দফতর। 

জ্যোতিপ্রিয়বাবু জানিয়েছেন, যে সব এলাকায় রেশন ডিলারদের বহিষ্কার করা হবে সেখানে বিজ্ঞাপণ নিয়ে নতুন ডিলার নিয়োগ করবে সরকার। এই প্রক্রিয়া শেষ করতে কয়েক মাস সময় লাগবে বলে জানিয়েছেন তিনি। ততদিন পার্শ্ববর্তী এলাকার ডিলার ওই এলাকার দায়িত্ব সামলাবেন।

বলে রাখি, গত এপ্রিলে লকডাউনের জেরে বিনামূল্যে চাল বিতরণ শুরু হতে রেশনে ব্যাপক দুর্নীতির অভিযোগ ওঠে। বিরোধীদের দাবি, রেশন সামগ্রী সাধারণ মানুষের কাছে না পৌঁছে তা পাচার হয়ে যাচ্ছে খোলা বাজারে। কোথাও রেশন ডিলারের কাছ থেকে রেশন সামগ্রী আদায় করে ত্রাণ হিসাবে বিলি করছেন শাসকদলের নেতা কর্মীরা। এমনকী শাসকদলের কর্মীদের চাল দিতে বাধ্য করার অভিযোগ রয়েছে খোদ খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের বিরুদ্ধে। 

রেশনে নির্দিষ্ট পরিমাণ চাল না পেয়ে রাজ্যজুড়ে বিক্ষোভ দেখাতে থাকে সাধারণ মানুষ। এর জেরে মন্ত্রীর বিরুদ্ধে কোনও পদক্ষেপ না করে খাদ্য দফতরের সচিব মনোজ আগরওয়ালকে সরিয়ে দেয় রাজ্য সরকার।

 

 

বন্ধ করুন