বাড়ি > কর্মখালি > লকডাউনে বন্ধ পরিষেবা বাবদ ফি নেওয়া যাবে না, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে AICTE-র নির্দেশ
Covid-19 অতিমারী চলাকালীন বন্ধ হোস্টেল বা পরিবহণ পরিষেবা বাবদ পড়ুয়াদের থেকে ফি নেওয়া যাবে না, নির্দেশ AICTE-র।
Covid-19 অতিমারী চলাকালীন বন্ধ হোস্টেল বা পরিবহণ পরিষেবা বাবদ পড়ুয়াদের থেকে ফি নেওয়া যাবে না, নির্দেশ AICTE-র।

লকডাউনে বন্ধ পরিষেবা বাবদ ফি নেওয়া যাবে না, শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে AICTE-র নির্দেশ

  • ছাত্রাবাস, পরিবহণ-সহ অন্য যে সব সুযোগ-সুবিধা সরবরাহ করা হচ্ছে না, তার জন্য কোনও ফি নেওয়া যাবে না।

ছাত্রছাত্রীদের জন্য ছাত্রাবাস, পরিবহণ-সহ অন্য যে সব সুযোগ-সুবিধা সরবরাহ করা হচ্ছে না, তার জন্য কোনও ফি নেওয়া যাবে না। কলেজ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানগুলিকে লিখিত নির্দেশ দিল কারিগরি শিক্ষা নিয়ন্ত্রক অল ইন্ডিয়া কাউন্সিল ফর টেকনিক্যাল এডুকেশন  (AICTE)।

 AICTE-র সদস্য সচিব রাজীব কুমার  সংস্থা অনুমোদিত সমস্ত প্রতিষ্ঠানের অধ্যক্ষদের উদ্দেশ্যে একটি চিঠিতে লিখেছেন যে কয়েকটি কলেজ তাদের পরিষেবা সরবরাহ না করেই ফি আদায় করছে এমন অভিযোগ পাওয়া গিয়েছে।

অধ্যক্ষদের উদ্দেশ্যে চিঠিতে কুমার লেখেন, ‘AICTE শিক্ষার্থী ও অভিভাবকদের কাছ থেকে অভিযোগ পেয়েছে যে কিছু কিছু প্রতিষ্ঠান Covid-19 অতিমারী চলাকালীন হোস্টেল বা পরিবহণ বাবদ ফি আদায় করছে। যদিও শিক্ষার্থীরা এই সুবিধা গ্রহণ করেননি। এই বিষয়ে, প্রতিষ্ঠানগুলিকে পরামর্শ দেওয়া হচ্ছে যে, কেবল মেস ও পরিবহণে রক্ষণাবেক্ষণের চার্জ নেওয়া উচিত।’

চিঠিতে কলেজগুলিকে কেবল যে পরিষেবা সরবরাহ করা হয় তার জন্য ফি নেওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়। বলা হয়, ‘সমস্ত প্রতিষ্ঠান / কলেজগুলিকে কঠোরভাবে পরামর্শ দেওয়া হয় যে তারা অতিমারী চলাকালীন যে সুযোগসুবিধাগুলি সরবরাহ করছে সেগুলির সঙ্গে সামঞ্জস্য রেখে এবং আগত সেমিস্টারে শিক্ষার্থীদের অ্যাক্সেসযোগ্য নয় এমন অংশগুলির জন্য ফি নেবে না। এর অন্যথা হলে সংস্থার নিয়ম অনুসারে উপযুক্ত পদক্ষেপ নেওয়া হবে?’

চিঠিতে আরও বলা হয়েছে যে, ‘করোনা সংকটে প্রতিষ্ঠান গুলি কে সুরক্ষার সতর্কতা নিশ্চিত কর সকল নাগরিকের মূল দায়িত্ব হবে। স্ব স্ব কলেজ / প্রতিষ্ঠানের প্রধানদের দায়িত্ব হল স্বাস্থ্য সুরক্ষার বিষয়টি দেখভাল করা।’

সারা দেশে AICTE-র অধীনে প্রায় ১১,০০০টি প্রযুক্তি শিক্ষার কলেজ রয়েছে। এই প্রতিষ্ঠানগুলিতে ৩০,০০,০০০ এরও বেশি শিক্ষার্থী পড়াশোনা করেন।

বন্ধ করুন