বাংলা নিউজ > ভোটের লড়াই > পশ্চিমবঙ্গ বিধানসভা নির্বাচন 2021 > পচা জিনিস বেরিয়ে গেলে পায়ে এত কাঁটা ফুটছে কেন- কেশপুরে মমতাকে প্রশ্ন শুভেন্দুর
কেশপুরে শুভেন্দু 
কেশপুরে শুভেন্দু 

পচা জিনিস বেরিয়ে গেলে পায়ে এত কাঁটা ফুটছে কেন- কেশপুরে মমতাকে প্রশ্ন শুভেন্দুর

  • শুভেন্দুর প্রশ্ন, ‘কেশপুরে মুখ্যমন্ত্রীকে দেখেছেন? এসেছেন উনি?’ গত ১০ বছরে কেশপুরে মুখ্যমন্ত্রীর ‘অনুপস্থিতি’ নিয়ে এভাবেই কটাক্ষ করেছেন নন্দীগ্রামের ভূমিপুত্র।

কেশপুরই সিপিএমের শেষপুর হবে, ২০০১ ভোটের আগে এখান থেকেই হুংকার দিয়েছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। কেশপুরে সেই বাধভাঙা ভিড় দেখে অনেকে মনে করেছিলেন হয়তো পরিবর্তন আসছে। ক্ষমতা বদল হতে যদিও আরো দশ বছর লাগে। সিঙ্গুর, নন্দীগ্রাম ঘুরে অবশেষে ২০১১ সালে মসনদে আসীন হন মমতা। এবার সেই কেশপুরের মাটি থেকেই তাঁকে কেশপুরকে অবহেলা করার অভিযোগ করলেন তাঁর একদা সেনাপতি ও বর্তমানে বিজেপি নেতা শুভেন্দু অধিকারী। 

২০১১ সালে বাংলায় পরিবর্তন আসলেও কেশপুরে পরিবর্তন আসেনি। কিন্তু ২০১৩ সালে সেই কেশপুরে পঞ্চায়েতে ভোটে জিতেছিল তৃণমূল। কিন্তু যে আশা নিয়ে পরিবর্তন এনেছিলেন, তা কি পূর্ণ হয়েছে? কেশপুরবাসীকে প্রশ্ন করেন শুভেন্দু। তৃণমূলনেত্রী পুরুলিয়ায় বলেছিলেন, পচা জিনিস দল থেকে বেরিয়ে গিয়েছে। এবার সেই প্রসঙ্গ নিয়েই শুভেন্দু অধিকারীর কটাক্ষ, পচা জিনিস বেরিয়ে গেলে পায়ে এত কাঁটা ফুটছে কেন?

তিনি আরও বলেন, ‘‌আমি বামফ্রন্টের অনেক কাজের সমালোচনা করি। কিন্তু বুদ্ধবাবু সৎ মানুষ। লক্ষ্মণ শেঠরা হার্মাদ। তৃণমূল সরকার শিল্প তো তুলেই দিয়েছে। নতুন কোনও শিল্প হয়নি সাড়ে ন’বছরে। বলছে, ইস্টার্ন বাইপাসের পাশে আইটিসি সোনার বাংলা করেছি। সেই জায়গাগুলি সব বামফ্রন্টের আমলে দেওয়া। রাজারহাট–নিউটাউনের জায়গাও বামফ্রন্টের আমলে দেওয়া। সেই জায়গাগুলি বেচেছে। জায়গা বেচে খেয়েছে আর বিদেশে টাকা পাঠিয়েছে।’‌

শুভেন্দুর প্রশ্ন, ‘কেশপুরে মুখ্যমন্ত্রীকে দেখেছেন? এসেছেন উনি?’ গত ১০ বছরে কেশপুরে মুখ্যমন্ত্রীর ‘অনুপস্থিতি’ নিয়ে এভাবেই কটাক্ষ করেছেন নন্দীগ্রামের ভূমিপুত্র। শুভেন্দুর কথায়, 'ভোট আসলেই নন্দীগ্রাম–কেশপুরের কথা মনে পড়ে তৃণমূলনেত্রীর। আমি ২১ বছর পর কেন তৃণমূল ছাড়লাম? কর্মচারী হয়ে থাকতে পারব না, সহকর্মী হয়ে থাকতে পারি। তৃণমূল প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানি। কলেজের ছাত্র সংসদে চার বছর ভোট হয়নি। স্কুলের ছোলাতেও কাটমানি খাচ্ছে। পড়ুয়াদের দেওয়া জুতো, স্কুল ড্রেসেও কমিশন খাচ্ছে। কেন্দ্র এত সহায়তা দিয়েছে, কোনও পরিবর্তন হয়েছে কেশপুরের। এবার হবে।’

বন্ধ করুন