বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > মিউজিয়ামে পরিণত হবে দিলীপ কুমার, রাজ কাপুরের পৈতৃক ভিটে! শিলমোহর পাক সরকারের
সম্প্রীতির বন্ধন 
সম্প্রীতির বন্ধন 

মিউজিয়ামে পরিণত হবে দিলীপ কুমার, রাজ কাপুরের পৈতৃক ভিটে! শিলমোহর পাক সরকারের

  • খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের অন্তর্গত কিসা খওয়ানি বাজার এলাকায় অবস্থিত প্রখ্যাত অভিনেতা রাজ কাপুর এবং দিলীপ কুমারের পৈতৃক ভিটে এবার পরিণত হবে জাদুঘরে।

বলিউডের দুই প্রবাদপ্রতিম ব্যক্তিত্ব রাজ কাপুর এবং দিলীপ কুমার। এই দুই কিংবদন্তী অভিনেতার পাকিস্তানের পৈতৃক ভিটে সংরক্ষণের সিদ্ধান্ত নিয়েছিল পাক সরকার। তাঁদের পৈতৃক ভিটেকে মিউজিয়ামে পরিণত করার পরিকল্পনা চলছিল বহুদিন আগে থেকেই। তবে সেই উদ্যোগে বাধ সেধেছিল বাড়ির বর্তমান মালিকপক্ষের তরফ থেকে। যদিও সেই উদ্যোগে মঙ্গলবার শিলমোহর দিল পাকিস্তানের খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশ সরকার।

ডওন (Dawn)-এর রিপোর্ট অনুযায়ী, পেশোয়ারের ডেপুটি কমিশনার পুরনো শহরে অবস্থিত উভয় সম্পত্তির মালিকানা পুরাতত্ত্ব বিভাগের হাতে স্থানান্তর করার বিজ্ঞপ্তি জারি করেছে।

প্রাদেশিক সরকার গত বছরের সেপ্টেম্বরে ঘোষণা করেছিলেন, তাঁরা উভয়ের থেকে সম্পত্তি পুনরুদ্ধারের পর সেটাকে মিউজিয়ামে পরিণত করবে। ডাঃ আবদুল সামাদ, ডিরেক্টর (পুরাতত্ত্ব বিভাগ) ডনকে বলেছেন, জমির মালিকানা প্রাদেশিক সরকারের কাছে হস্তান্তরিত হওয়ার পর, অধিদফতর বর্তমান মালিকদের থেকে উভয়ের সম্পত্তি দখল নেয়। তিনি আরো জানিয়েছেন, ‘এখন উভয় সম্পত্তিই অফিসিয়ালি পুরাতত্ত্ব দফতরের সম্পত্তি’।

ডাঃ আবদুল সামাদ আরো জানান, ক্ষতিগ্রস্থ সম্পত্তি জাদুঘরে পরিণত করার আগে পুনর্নির্মাণ ও পুনর্বাসনের ব্যবস্থা করা হবে। এমনকি পুনরুদ্ধারের সময় উভয় পরিবারের সদস্যদের সঙ্গেও যোগাযোগ করা হবে।

খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশের অন্তর্গত কিসা খওয়ানি বাজার এলাকায় অবস্থিত প্রখ্যাত অভিনেতা রাজ কাপুর এবং দিলীপ কুমারের পৈতৃক ভিটে। দীর্ঘদিনের রক্ষনাবেক্ষনের অভাবে কালের নিয়মে সেই বাড়ির আজ ভগ্নদশা অবস্থা।

প্রসঙ্গত, খাইবার পাখতুনখোয়া প্রদেশ সরকার রাজ কাপুরের ঢাকি দালগরনে (Dhaki Dalgaran) অবস্থিত ৬.২৫ মারলা (জমি পরিমাপের ইউনিট) বাড়ি ১১.৫ কোটি টাকা এবং দিলীপ কুমারের মহললা খুদাদাদে (Mohallah Khudad) অবস্থিত ৪ মারলা বাড়ি ৭.২ কোটি টাকা দিয়ে ক্রয় করে সেখানে মিউজিয়াম বানানোর সিদ্ধান্ত নিয়েছিল। উভয় সম্পত্তির মূল্য প্রতি মারলায় ১.৫ কোটি টাকা হিসেবে ধার্য করা হয়েছিল।

পূর্বের পিটিআই-এর রিপোর্ট অনুসারে কাপুর হাভেলিকর বর্তমান মালিক আলি কাদের। এই ঐতিহাসিক সৌধ সংরক্ষণের জন্য দেড় কোটি টাকা করে ধার্য করেছিল পাক সরকার। অন্যদিকে দিলীপ কুমারের বাড়ির রক্ষণাবেক্ষণের জন্য ৮০ লক্ষ ৫৬ হাজার টাকা খরচ করবে সীমান্ত পারের প্রাদেশিক সরকার। আগে মালিক বাড়িগুলিকে বাণিজ্যিক সংস্থানে রূপান্তরিত করারও বহু চেষ্টা করেছিল। তবে পুরাতত্ত্ব বিভাগ শুরু থেকেই এই বাড়িগুলো সংরক্ষণ করতে চেয়েছিল। অবশেষে সেই কাজে তাঁরা সফল।

 

বন্ধ করুন