বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > প্রয়োজনে হাত কেটে ফেলব তবে আর বন্ড সাজব না! কেন একথা বলেছিলেন ড্যানিয়েল ক্রেগ?
'জেমস বন্ড' হিসেবে সারা বিশ্ব জুড়ে খ্যাতি কুড়িয়েছেন ড্যানিয়েল ক্রেগ। (ছবি সৌজন্যে - ইউটিউব)
'জেমস বন্ড' হিসেবে সারা বিশ্ব জুড়ে খ্যাতি কুড়িয়েছেন ড্যানিয়েল ক্রেগ। (ছবি সৌজন্যে - ইউটিউব)

প্রয়োজনে হাত কেটে ফেলব তবে আর বন্ড সাজব না! কেন একথা বলেছিলেন ড্যানিয়েল ক্রেগ?

  • ২০১৫ সালে মুক্তি পেয়েছিল 'স্পেক্টর'। জেমস বন্ড হিসেবে ড্যানিয়েল ক্রেগের কেরিয়ারে ছিল তা চতুর্থ ছবি।সেই সময়েই ক্রেগ ঘোষণা করেছিল ‘বন্ড’ হিসেবে পর্দায় ধরা দেবেন না তিনি!

২০১৫ সালে মুক্তি পেয়েছিল 'স্পেক্টর'। জেমস বন্ড হিসেবে ড্যানিয়েল ক্রেগের কেরিয়ারে ছিল তা চতুর্থ ছবি। প্রায় নিয়ম মেনেই বক্স অফিসে সব রেকর্ড ভেঙে, ভাসিয়ে নিয়ে গেছিল সেই ছবি। ড্যানিয়েলের বয়স তখন ৪৭ পুরেছে। গুঞ্জন ভাসছিল ছবির মুক্তির আগে থেকেই। তবে 'স্পেক্টর' বড়পর্দায় হাজির হওয়ার পরপরই ক্রেগ ঘোষণা করেছিল বন্ডের স্যুট আলমারিতে তুলে রাখছেন তিনি। অর্থাৎ আর বন্ড হিসেবে পর্দায় ধরা দেবেন না তিনি! এতটাই দৃঢ় ছিলেন সেই ব্যাপারে তিনি 'টাইম আউট লন্ডন'-কে দেওয়া এক সাক্ষাৎকারে জোর গলায় বলেও দিয়েছিলেন, 'আর হচ্ছি না। আরও একবার জেমস বন্ড সাজার থেকে ভালো নিজের হাতের কব্জি কেটে ফেলব!'

কিন্তু কেন এহেন বক্তব্য পেশ করেছিলেন ড্যানিয়েল? যাঁর বিশ্বজুড়ে খ্যাতি এই 'বন্ড' সাজার দৌলতে। শুধু তাই নয়, সে সময়ে তাঁকে ছাড়া দ্বিতীয় কাউকে 'বন্ড' হিসেবেও যেখানে কোনও দর্শকই ভাবতে চাইছিলেন দর্শক। সে জবাবও অবশ্য দিয়েছিলেন 'বন্ড'। ক্রেগ বলেছিলেন, ' যথেষ্ট হয়েছে।অন্তত এইমুহূর্তে সত্যিই আর বন্ড সাজতে চাইছি না আমি। একদমই চাইছি না। যা দেওয়ার ছিল, যতটুকু দেওয়ার ছিল সবটুকু দিয়েছি। এখন আর পিছনে ফিরে তাকাতে চাই না। জেমস বন্ড-কে ছেড়ে একটু এগিয়ে যেতে চাই!' তবে সঙ্গে এও জানিয়েছিলেন যদি ফের বন্ড হিসেবে তিনি বড়পর্দায় আসেন তাহলে একমাত্র মোটা টাকা পারিশ্রমিকের বদলেই শুধু আসতে পারেন।অন্য কোনও কারণের জন্য বন্ড সাজতে তিনি নারাজ!

'নো টাইম টু ডাই' ছবিতে 'বন্ড'-রুপী ড্যানিয়েল ক্রেগ। (ছবি সৌজন্যে -টুইটার)
'নো টাইম টু ডাই' ছবিতে 'বন্ড'-রুপী ড্যানিয়েল ক্রেগ। (ছবি সৌজন্যে -টুইটার)

অবশ্য এর কয়েকদিন পরেই ক্রেগ ঘোষণা করেছিলেন ফের একবার 'বন্ড' হিসেবে পর্দায় ফিরছেন। বলাই বাহুল্য সেই ঘোষণা শুনে দারুণ খুশি হয়েছিল বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে থাকা বন্ডপ্রেমীরা। নিজেও খুশি হয়েছিলেন ড্যানিয়েল। সেকথা প্রকাশও করেছিলেন। মত পাল্টানোর কারণ হিসেবে জানিয়েছিলেন টাকা নয়, তাঁর নিজেরই আরও একবার ইচ্ছে বন্ড সাজার। এবং নিন্দুকদের মুখ বন্ধ করার জন্য যাঁরা বলছেন তাঁর বন্ড সিরিজের বাকি ছবিগুলোর তুলনায় সবথেকে নিকৃষ্ট 'স্পেক্টর'!

৬ বছর পর বহু বাধা বিঘ্ন পেরিয়ে সম্প্রতি মুক্তি পেয়েছে 'নো টাইম টু ডাই'। সমালোচনা থেকে দর্শক সবার অকুন্ঠ তারিফ কুড়িয়েছে এই ছবি। শেষবার 'বন্ড' হিসেবে নিজের সর্বস্ব এই ছবিতে দিয়ে দিয়েছেন এই হলি-তারকা। তাঁর ফলও পাচ্ছেন হাতেনাতে। বিশ্বজুড়ে জয়জয়কার শুরু হয়েছে এই ছবির।

'স্পেক্টর'-এর পর নিজের মত পাল্টেছিলেন ড্যানিয়েল। ভাগ্যিস!

বন্ধ করুন