বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > 'গেহরাইয়া'য় সাহসী যৌন দৃশ্যের শ্যুটিং নিয়ে অকপট দীপিকা, কৃতিত্ব দিলেন পরিচালককে
গেহরাইয়ার ট্রেলারে অন্তরঙ্গ দীপিকা-সিদ্ধান্ত
গেহরাইয়ার ট্রেলারে অন্তরঙ্গ দীপিকা-সিদ্ধান্ত

'গেহরাইয়া'য় সাহসী যৌন দৃশ্যের শ্যুটিং নিয়ে অকপট দীপিকা, কৃতিত্ব দিলেন পরিচালককে

  • গেহরাইয়া নিয়ে চর্চা আরও বেড়েছে এই ছবিতে দীপিকা-সিদ্ধান্তের চোখ কপালে তোলা সব সাহসী দৃশ্যকে কেন্দ্র করে।

‘গেহরাইয়া’ ট্রেলারে সিদ্ধান্ত চতুর্বেদী ও দীপিকা পাড়ুকোনের মাখোমাখো রসায়ন। দীপিকা-সিদ্ধার্থের কেমিস্ট্রি নিয়ে চর্চা থামছে না। বিয়ের পর প্রথমবার এমন সাহসী চরিত্রে দেখা মিলল দীপিকার। এই ছবিতে থাকছেন নাসিরুদ্দিন শাহ, রজত কাপুরের মতো অভিনেতারাও। এর মধ্যে চর্চা আরও বেড়েছে এই ছবিতে দীপিকা-সিদ্ধান্তের চোখ কপালে তোলা সব সাহসী দৃশ্যকে কেন্দ্র করে। এ প্রসঙ্গে দীপিকা জানিয়েছেন পুরো কৃতিত্বটুকুই পরিচালক শকুন বাত্রার। তাঁর মতে, পরিচালক যদি সেটে 'সুস্থ ও সুন্দর পরিবেশ' না তৈরি করতে পারতেন তাহলে এরকম সব  সাহসী দৃশ্যে অভিনয় করা তাঁর পক্ষে সম্ভব হতো না।

পিটিআই-এর এক প্রতিবেদন অনুযায়ী ‘গেহরাইয়া’র ভার্চুয়াল সাংবাদিক সম্মেলনে সোজাসুজিভাবে দীপিকা জানিয়েছেন যে এরকম সাহসী যৌন দৃশ্যে অভিনয় করা মোটেই সহজ নয়। এই ছবিতে যৌনতাকে ছবির পরতে পরতে যেভাবে পেশ করা হয়েছে, তা ভারতীয় সিনেমায় আগে কখনও হয়নি। তাই পরিচালক যদি সেই পরিবেশ সেটে তৈরি করতে ব্যর্থ হতো তাহলে ব্যাপারটা ভীষণ কঠিন হতো। শুধু তাই না, ছবিতে এরকম যৌনতার দৃশ্য রাখার পিছনে পরিচালকের চিন্তাভাবনার বিষয়ে আমিও ওয়াকিবহাল ছিলাম। জানতাম, স্রেফ হুজুগ তোলার জন্য কিংবা দর্শকের দৃষ্টি আকর্ষণ করার জন্য ছবিতে এরকম ঘনিষ্ঠ সব দৃশ্য উপস্থাপন করছেন না তিনি। চিত্রনাট্যের প্রয়োজনেই করছেন। তাই সেসব দৃশ্যে শ্যুটিংয়ের সময় আরও মনের জোর পেয়েছিলাম।'

সম্পর্কই এই ছবির গল্পের উপজীব্য। আলিশা (দীপিকা) এবং করণের (ধৈর্য্য) অসুখী দাম্পত্যের ঝলক। আলিশার দমবন্ধ জীবনে দমকা বাতাস হয়ে প্রবেশ করবে জায়েন (সিদ্ধান্ত)। সম্পর্কে আলিশার তুতো বোন টিয়া (অনন্যা)-র হবু বর সে। তবে ভালোবাসার আগুন কিন্তু দু-তরফা। শুরু থেকেই অসম বয়সী আলিশার প্রতি টান জায়েনের। পরিবার, সমাজ সবকিছুকে ভুলে পরস্পরের ঘনিষ্ঠ হয়ে ওঠে তাঁরা দুজনে। তবে এতে কি আলিশার জীবনটা সহজ হবে যাবে? নাকি সম্পর্কের চোরাবালির গভীরে আরও একটু একটু করে ডুবে যাবে সে? এসব নিয়েই এগোবে ‘গেহরাইয়া’র গল্প।

শকুন-এর কথায়, ‘এটা শুধু একটা ছবি নয়, মানুষের সম্পর্কের ভিতরে ঢুকে পড়বার একটা জার্নি, বর্তমান জীবনের পরিণত সম্পর্কের একটা আয়না এই ছবি। কেমনভাবে আমরা সম্পর্ক, আবেগের বেড়াজালে আটকে পড়ি। কেমনভাবে আমাদের নেওয়া প্রতিটি পদক্ষেপ,সিদ্ধান্ত আমাদের জীবনকে প্রভাবিত করে, আর শুধু আমাদের নয় সেই সব বিষয়গুলো আমাদের আশেপাশের মানুষদেরও জীবন থেকেও অধরা থাকে না’।

প্রসঙ্গত, ‘গেহরাইয়া’তে দীপিকার সাহসী সব দৃশ্য নিয়ে কথা বলাকালীন পরিচালক শকুন বাত্রা জানিয়েছেন তিনি এই ছবির গল্পে 'যৌনতা'কে একটি চরিত্রের মতোই ব্যবহার করা হয়েছে। সেইজন্য সবরকমের প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছিল। গল্পের এবং চরিত্রদের প্রতিটি খুঁটিনাটি ব্যাপারে তাঁরা সতর্ক ছিলেন, যেন কোথাও এতটুকু বিসাদৃশ্য না লাগলে কোনও ব্যাপার।

আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি ওটিটি প্ল্যাটফর্ম আমাজন প্রাইমে সরাসরি মুক্তি পাবে ‘গেহরাইয়া’।

বন্ধ করুন