বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > শ্বেতা-রুবেলের বন্ধুত্বে চিড়! শ্যুটিং সেটে কথা বন্ধ ‘যমুনা ঢাকি’র নায়ক-নায়িকার
সম্পর্কে চিড়! (ছবি সৌজন্যে- জিফাইভ)
সম্পর্কে চিড়! (ছবি সৌজন্যে- জিফাইভ)

শ্বেতা-রুবেলের বন্ধুত্বে চিড়! শ্যুটিং সেটে কথা বন্ধ ‘যমুনা ঢাকি’র নায়ক-নায়িকার

  • ক্যামেরা বন্ধ হলেই একে অপরের সঙ্গে কথা বলছেন না যমুনা ও সংগীত! 

বাংলা টেলিভিশনের অন্যতম চর্চিত সিরিয়াল ‘যমুনা ঢাকি'। ট্রোলিং যতই সঙ্গী হোক না কেন, সিরিয়ালের জনপ্রিয়তা নিয়ে কোনও দ্বিমত নেই। চলতি সপ্তাহেও টিআরপি তালিকায় সেরা তিনে জায়গা করে নিয়েছে জি বাংলার এই ধারাবাহিক।কিন্ত এবার এই সিরিয়ালের কেন্দ্রীয় দুই চরিত্রকে নিয়ে শোনা যাচ্ছে এক গুঞ্জন। যমুনা আর সংগীতের নাকি কথা বন্ধ! হ্যাঁ, শ্যুটিং সেটে একে অপরের সঙ্গে কথাও বলছেন না দুজনে!

যমুনা-সংগীতের অনস্ক্রিন কেমিস্ট্রি শুরু থেকেই দর্শকদের নজরে। মাস কয়েক আগে শোনা যাচ্ছিল, তাঁর দুজনে নাকি চুটিয়ে প্রেমও করছেন। এরপর আমচাই সব বন্ধ, এখন শটের ফাঁকে একে অপরকে এড়িয়ে চলছেন তাঁরা। ব্যাপারটা কী? ঘনিষ্ঠমহল সূত্রে খবর, শ্বেতা রুবেল দুজনেই বেশ ভালো বন্ধু হয়ে গিয়েছিলেন একসঙ্গে কাজ করতে করতে, কিন্তু তাঁদের প্রেমের রটনা নিয়ে দুজনেই খুব ঝামেলায় পড়ে যান। আসলে এই গুঞ্জনের জেরে রুবেলের সঙ্গে তাঁর গার্লফ্রেন্ডের ভুল বোঝাবুঝি শুরু হয়েছিল, অন্যদিকে শ্বেতাও দীর্ঘ এক দশক ধরে কমিটেড রিলেশনশিপে রয়েছেন। তিনিও অহেতুক এই নিয়ে ঝামেলা বাড়াতে রাজি ছিলেন না। তাই নাকি দুজনে ঠিক করেছেন যে বন্ধুত্বের সম্পর্কটা রাখবেন না। শুধুমাত্র সহকর্মী হিসাবে কাজ করবেন। কাজের স্বার্থে যতটুকু প্রয়োজন সেইটুকুই কথা বলবেন। তার বাইরে একটা শব্দও নয়। সেটের বাইরেও কোনওরকম কথাবার্তা নয়। যদিও অনস্ক্রিনে এর কোনও প্রভাব পড়বে না, তা বিশ্বাসী দুজনেই। 

ইনস্টাগ্রামে একে অপরকে ফলো করেন না!
ইনস্টাগ্রামে একে অপরকে ফলো করেন না!

যদিও এই নিয়ে প্রশ্ন করা হলে ব্যাপারটি হেসে উড়িয়ে দেন ‘যমুনা ঢাকি’র দুই কেন্দ্রীয় চরিত্র। তাদের দাবি ‘অল ইজ ওয়েল’। কিন্তু দুজনের ইনস্টাগ্রামে চোখ বোলালেও তেমনটা বিশ্বাস করতে একটু খটকা লাগবে। ইনস্টায় রুবেলের ‘ফলোয়িং’ লিস্টে রয়েছেন মাত্র ৭৪ জন, সেই তালিকায় জায়গা হয়নি যমুনার।অন্যদিকে রুবেলকেও ইনস্টাগ্রামে ফলো করেন না শ্বেতা। ওই কথায় বলে না, ‘যা রটে তার কিছু তো বটে’। 

বন্ধ করুন