বাংলা নিউজ > বায়োস্কোপ > ফিরছে ধারাবাহিক ‘কড়িখেলা’, ভাঙতে চলেছে পিরিয়ডস নিয়ে থাকা নানা ছুৎমার্গও!
এপিসোড ব্যাঙ্কিং না থাকার কারণে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল ‘কড়িখেলা’।
এপিসোড ব্যাঙ্কিং না থাকার কারণে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল ‘কড়িখেলা’।

ফিরছে ধারাবাহিক ‘কড়িখেলা’, ভাঙতে চলেছে পিরিয়ডস নিয়ে থাকা নানা ছুৎমার্গও!

  • গল্পের এই নতুন মোড় মনে ধরেছে দর্শকদের। এখন ধারাবাহিকের সম্প্রচার আবার শুরু হওয়ার অপেক্ষা।

বাংলা ধারাবাহিকে নাকি গল্পের গোরু গাছে ওঠে! সেরকটাই দাবি করে থাকেন কিছু নেটনাগরিক। তবে জি বাংলার ‘কড়িখেলা’র নতুন প্রোমো মন কেড়ে নিল দর্শকদের। সোশ্যাল মিডিয়ায় তা নিয়ে প্রশংসা করলেন অনেকেই। বাংলা ধারাবাহিকের এই কনটেন্ট নিয়েও তাঁরা ধন্যবাদ জানিয়েছেন ধারাবাহিকের নির্মাতাদের। 

লকডাউনে শ্যুটিং বন্ধ থাকায় এপিসোড ব্যাঙ্কিং না থাকার কারণে বন্ধ হয়ে গিয়েছিল ‘কড়িখেলা’। তবে জি বাংলার সোশ্যাল মিডিয়ায় শেয়ার হওয়া ধারাবাহিকের প্রোমো বলছে তা আবারও শুরু হতে চলেছে। থাকছে গল্পে নতুন মোড়। মা-মেয়ে অর্থাৎ, সৃজা ও পারমিতার মধ্যে তৈরি হতে চলেছে বন্ডিং। 

‘কড়িখেলা’র দুই মুখ্য চরিত্র পারমিতা ও অপূর্ব দু'জনেই নিজেদের স্ত্রী ও স্বামীর মৃত্যুর পর দ্বিতীয়বার বিয়ে করে। পারমিতার একটি ছেলে রয়েছে ও অপূর্বর দুই মেয়ে। ছোট মেয়ের সঙ্গে পারমিতার বন্ডিং খুব ভালো হলেও বড় মেয়ে সৃজা মেনে নিতে পারে না নতুন মা-কে। আপাতত ৫০টি পর্ব এখানেই শেষ হয়েছে। নতুন পর্বে দেখা যাবে একদিন বিধ্বস্ত অবস্থায় বাড়ি ফেরে সৃজা। অপূর্বকে আটকে মেয়ের কাছে ছুটে যায় সৃজা। মা-মেয়ের কথোপকথনে বোঝা যায় প্রথমবার পিরিয়ডস হওয়ায় লজ্জা ও ভয় মেশানো অনুভূতি কাজ করছে তার মধ্যে। তখন পারমিতাই মেয়েকে বোঝান, পিরিয়ডস হওয়া মানে মাতৃত্বের পথে একধাপ এগনো।

আমাদের সমাজ এখনও পিরিয়ডস নামক ট্যাবু থেকে বাইরে বের হতে পারেনি। এখনও এই নিয়ে কথা বলতে লজ্জা পান অনেক মেয়েই। ঠাকুর পুজো দেওয়া যাবে না, এটা ছোঁয়া যাবে না, এটা খাওয়া যাবে না-র মতো কথাও শুনতে হয়। জামা-কাপড়ে লাগা রক্তের দাগ নিয়ে রাস্তায় লজ্জায় পড়তে হয় নারীদের। সেখানে দাঁড়িয়ে এরকম একটা বিষয় ধারাবাহিকে দেখানো নিয়ে সকলেই প্রশংসা করেছেন। 

বন্ধ করুন