বাংলা নিউজ > টুকিটাকি > Mahishadal Rajbari: রাজবাড়িতে থেকে রাজকীয় দুর্গাপুজোর সাক্ষী হতে চান? চলুন কলকাতা থেকে ২ ঘণ্টা দূর

Mahishadal Rajbari: রাজবাড়িতে থেকে রাজকীয় দুর্গাপুজোর সাক্ষী হতে চান? চলুন কলকাতা থেকে ২ ঘণ্টা দূর

পুজোয় ঘুরে আসুন মহিষাদল রাজবাড়ি। 

ইতিহাসের হাতছানি যদি আপনাকে ডাকে তাহলে মহিষাদল রাজবাড়ি আদর্শ। পাশাপাশি এখানে থাকলে প্রাচীণ এক পুজোর। 

কলকাতার পুজোর ভিড় পোষায় না অনেকেরই। দীর্ঘক্ষণ লাইন দিয়ে ঠাকুর দেখা ভালো লাগে না তাঁদের। বরং একটু ফাঁকা-ফাঁকায় সময় কাটাতে মন চায় দুর্গামায়ের সঙ্গে। যদি আপনিও সেই দলেই পড়েন তাহলে এবারের পুজোয় ঘুরে আসতে পারেন মহিষাদল রাজবাড়ি। এক বা দু' রাত থেকে দেখতে পারবেন রাজবাড়ির পুজো। একদম অন্যরকম একটা অভিজ্ঞতা হবে নিসন্দেহে।

একাধিক রাজবাড়ি এখন পর্যটন কেন্দ্রে পরিণত হয়েছে। আভিজাত্য আর ইতিহাস যেন হাত ধরাধরি করে দাঁড়িয়ে থাকে এখানে। প্রাচীন আমলের নাটমন্দির, উঁচু উঁচু পালঙ্ক, শ্বেতপাথরের টেবিল, ভারী কাঁসার থালাগ্লাস-- সব মিলিয়ে একদম আলাদা একটা ব্যাপার।

মহিষাদল রাজবাড়ির ইতিহাস:

তখন বাংলায় মুগল রাজ। আকবরের সেনাবাহিনীতে উচ্চপদে আসীন ছিলেন জনার্দন উপাধ্যায়। তিনি উত্তরপ্রদেশের বাসিন্দা। ব্রাহ্মণ ব্যবসায়ী। আর সেই কাজেই নদীপথে এসেছিলেন মহিষাদলের কাছে গেঁওখালিতে। নদীমাতৃক বাংলার শোভায় মুগ্ধ হয়ে এখানে বসবাসেরর ইচ্ছে হয়। তৎকালীন রাজা কল্যাণ রায়ের থেকে কিনে নেন মহিষাদলের রাজত্ব।

পরে বংশ পরম্পরায় রাজবাড়ির আয়তন আরও বাড়তে থাকে। তিনটি প্রাসাদ নিয়ে তৈরি এই রাজবাড়ি। প্রথম প্রাসাদের নাম রঙ্গিবসনা। দ্বিতীয়টির নাম লালকুঠি এবং তৃতীয়টির নাম ফুলবাগ। তবে সব প্রাসাদে পর্যটদের প্রবেশাধিকার নেই। কেবল মাত্র ফুলবাগেই পর্যটকরা থাকতে দেওয়া হয়। প্রায় আড়াইশো বছরের প্রাচীন মহিষাদল রাজবাড়ির দুর্গাপুজো। রাজা আনন্দলাল উপাধ্যায়ের মৃত্যুর পর আনুমানিক ১৭৭৮ সালে রানি জানকী দেবী প্রচলন করেন এই পুজোর। রাজবাড়ির পুজোটি হয় রঙ্গিবসনার দুর্গামন্দিরে। পুজোর দিন এখানে ঢোকার অনুমতি পায় অতিথিরা।

ডাকের সাবেকি সাজে দেখা যায় মা-কে। মূর্তি তৈরির কাজ শুরু হয় রথের পরের দিন থেকেই। বৈষ্ণব মতে মাকে পুজো করা হয়। মহালয়ার পরেরদিন রাজবাড়ির কূলদেবতা মদন গোপাল জিওর মন্দির থেকে ঘটোত্তলনের মধ্যে দিয়ে পুজোর সূচনা হয়। আগে এই রাজবাড়িতে প্রতি পদে ১ মন চালের ভাত রান্না হত। রোজ সেই পরিমাণ বাড়ত ধাপে ধাপে। নবমিতে হত ৯ মন চাল রান্না। সন্ধিপুজোতে দাগা হত কামান। দশমিতে রূপনারায়ন নদীর ধারে বের হতো শোভাযাত্রা। আরও পড়ুন: বর্ষায় ঘুরে আসুন ভারতের নায়াগ্রা থেকে, এই ঝরনার প্রেমে পড়তে আপনিই বাধ্য

রাজবাড়ির নাটমন্দির।
রাজবাড়ির নাটমন্দির।

যদিও এখন এসব বাহুল্য নেই আর। রাজবাড়ির লাগোয়া দিঘীতে দেওয়া হয় বিসর্জন। তবে সেরকম জাঁকজমক না থাকলেও রাজকীয় আদব-কায়দা এখনও আছে। বরং পাড়ার বা বাড়ির পুজোর থেকে বেশ আলাদা এক অভিজ্ঞতা মেলে এখানে এলে। রাজ পরিবারের সদস্যরা পুজোয় বাড়ি ফেরেন। আশেপাশের লোকেরাও সামিল হন পুজোতে।

কীভাবে যাবেন:

কলকাতা থেকে মহিষাদল রাজবাড়ির দূরত্ব মাত্র ১১০ কিলোমিটার। বম্বে রোড ধরে নন্দকুমার মোড় পার করে ৮ কিলোমিটার গেলে পড়বে কাপাসিরিয়া মোড়। সেখান থেকে ৫ কিলোমিটার গেলেই রাজবাড়ি। ট্রেনে আসতে চাইলে হাওড়া থেকে সাউথইস্টার্ন লাইনের ট্রেন ধরে নামতে হবে মহিষাদল। সেখান থেকে মাত্র ২ কিমি গেলেই রাজবাড়ি।

কোথায় থাকবেন:

রাতে থাকার ব্যবস্থা রয়েছে। ৬ জনের সুইট, ৩ শয্যার ঘর ও ২ শয্যার ঘর। ভাড়া পড়বে ৫-৮ হাজার টাকা। প্রাতরাশ কমপ্লিমেন্টারি। সকাল থেকে বিকেল অবধি থাকারও ব্যবস্থা রয়েছে। তবে তা নিয়ে সরাসরি কথা বলে নেওয়াই ভালো সেখানকার কর্তৃপক্ষের সঙ্গে।

 

বন্ধ করুন