শুক্রবার রাতে প্রতিমা নিরঞ্জন কেন্দ্র করে তাণ্ডবের পরে পটনার লালবাগ এলাকা।
শুক্রবার রাতে প্রতিমা নিরঞ্জন কেন্দ্র করে তাণ্ডবের পরে পটনার লালবাগ এলাকা।

সরস্বতী পুজোর ভাসান ঘিরে সংঘর্ষে আহত ১২, পুড়ল গাড়ি

  • প্রতিমা নিরঞ্জন করতে গিয়ে পটনা, কাইমুর ও মজফ্ফরপুরে তুমুল সংঘর্ষ। ইটের ঘায়ে আহত হলেন চার পুলিশকর্মী-সহ ১২ জনের বেশি।

সরস্বতী পুজোর নিরঞ্জনকে কেন্দ্র করে বিহারের পটনা, কাইমুর ও মজফ্ফরপুরে তুমুল সংঘর্ষ। ইটের ঘায়ে আহত হলেন চার পুলিশকর্মী-সহ ১২ জনের বেশি। জ্বলল চারটি গাড়ি।

শুক্রবার রাতে প্রতিমা ভাসানের মিছিল ঘিরে পটনার লালবাগ এলাকাবাসীর সঙ্গে সংঘর্ষ বাধে পটনা বিশ্ববিদ্যালয়ের একদল ছাত্রের মধ্যে। শোভাযাত্রায় পরস্পরকে নিশানা করে ইট ছুড়তে শুরু করে দুই দলই। স্থানীয়দের অভিযোগ, কিছু ক্ষণ পরে বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আর একদল পড়ুয়া হাজির হয়ে অধিবাসীদের মিছিল নিশানা করে গুলি চালাতে শুরু করে, ছোড়া হয় বোমাও। পরে এলাকাবাসীর তাড়া খেয়ে তারা চম্পট দেয়।

প্রত্যক্ষদর্শীদের দাবি, বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্ররা বেশ কয়েকটি চা দোকান, একটি কোচিং সেন্টার এবং বেসরকারি চক্ষু হাসপাতালে ভাঙচুর চালায়। উলটো দিকে ছাত্রদের দাবি, প্রতিমা নিরঞ্জনের মিছিল লালবাগে পৌঁছলে স্থানীয় বাসিন্দাদের হাতে আক্রান্ত হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের মিন্টো, নূতন ও জ্যাকসন হস্টেলের পড়ুয়ারা। পুলিশি হস্তক্ষেপে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এলে গোটা লালবাগ এলাকায় রাস্তার উপরে ছড়িয়ে থাকতে দেখা গিয়েছে থান ইট ও পাথরের টুকরো।

প্রায় দুই ঘণ্টার বেশি সময় ধরে চলা তাণ্ডবে পুলিশের এক সাব-ইন্সপেক্টর, তিন জন কনস্টেবল, চন্দ্র শেখর নামে এক ছাত্র এবং একজন পথচলতি ব্যক্তি আহত হয়েছেন। জখম পুলিশকর্মীদের পটনা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। বাকিদের নালন্দা মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে পাঠানো হয়।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে দ্রুত পৌঁছে যান আই জি (সেন্ট্রাল জোন) সঞ্জয় সিং, পটনার জেলাশাসক কুমার রবি এবং এসএসপি উপেন্দ্র শর্মা। উত্তেজিত জনতাকে তাঁরা শান্ত করার চেষ্টা করেন। ভিড় সরাতে মৃদু লাঠিচার্জ করতে বাধ্য হয় পুলিশ। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে নামানো হয় র‌্যাফ। পুলিশের প্রাথমিক তদন্তে জানা গিয়েছে, মিন্টো ও সইদপুর হস্টেলের ছাত্ররাই এ দিন গুলি ও বোমা ছোড়ার ঘটনায় জড়িত ছিল।

অন্য দিকে, কাইমুরে সরস্বতী প্রতিমাকে লক্ষ্য করে ইট ছুড়ে ভেঙে ফেলার অভিযোগ উঠেছে একদল অধিবাসীর বিরুদ্ধে। ঘটনাকে কেন্দ্র করে দুই গোষ্ঠীর সদস্যদের মধ্যে ইট ছোড়াছুড়ি শুরু হয়। এর জেরে কমপক্ষে ৬ জন জখম হয়েছেন বলে পুলিশ জানিয়েছে। এসডিও জে শুক্লা জানিয়েছেন, পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে এলাকায় অতিরিক্ত পুলিশ বাহিনী মোতায়েন করা হয়েছে।

মজফ্ফরপুরে পুরনো শত্রুতা ও সরস্বতী প্রতিমা নিরঞ্জনকে কেন্দ্র করে বিআরএ বিশ্ববিদ্যালয়ের দুই দল পড়ুয়ার মধ্যে সংঘর্ষ ঘটে। পরস্পরকে নিশানা করে ইট ছুড়লে বেশ কয়েক জন ছাত্র ঘায়েল হয়েছে।

বন্ধ করুন