বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > বিহারে বিধান পরিষদ নির্বাচনের আসন সমঝোতা নিয়ে বিজেপি-জেডিইউ দ্বন্দ্ব তুঙ্গে
বিহারে বিজেপির শরিকের মধ্যে আসন সমঝোতা নিয়ে দ্বন্দ্ব তুঙ্গে উঠেছে। প্রতীকী ছবি (Photo by Santosh Kumar /Hindustan Times)

বিহারে বিধান পরিষদ নির্বাচনের আসন সমঝোতা নিয়ে বিজেপি-জেডিইউ দ্বন্দ্ব তুঙ্গে

  • উপমুখ্যমন্ত্রী তারকিশোর প্রসাদের দাবি জেডিইউ নেতা উপেন্দ্র খুশওয়ার বক্তব্যের মধ্য়ে কোনও সারবত্তা নেই।

এতদিন পর্যন্ত ৫০:৫০ আসন ভাগাভাগিতেই অভ্যস্ত ছিল জেডিইউ ও বিজেপি। বিহারে ২০১৫ সালের বিধানসভা নির্বাচন থেকে ২০১৯ এর সংসদ নির্বাচন সর্বক্ষেত্রেই সেই একই ফর্মুলা। কিন্তু এবার বিহার বিধান পরিষদ নির্বাচনে আসন সমঝোতা নিয়ে দুই শরিকের মধ্যে দ্বন্দ্ব চরমে উঠেছে। ইতিমধ্যে এনডিএ শরিক জেডিইউ এবার বেশি আসনে চাইছে। এনিয়ে ইতিমধ্যেই দুপক্ষের মধ্যে মনকষাকষি চরমে উঠেছে। ২০২০ সালের বিধানসভা নির্বাচনের ফর্মুলা এবার মেনে চলার আবেদন জানানো হয়েছে জেডিইউর তরফে। 

সংসদীয় বোর্ডের জেডিইউ চেয়ারম্যান ও প্রাক্তন কেন্দ্রীয় মন্ত্রী উপেন্দ্র খুশওয়া বিহার বিধান পরিষদ নির্বাচনে একেবারে সমান সমান আসন সমঝোতা চাইছেন। খুশওয়ার সাফ কথা, জেডিইউ ও তার বড় শরিক সবসময়ই ৫০:৫০ ফর্মুলাতে আসন সমঝোতা চেয়েছে। ২০১৫ সালের বিধানসভা নির্বাচন, ২০১৯ সালে সংসদ নির্বাচন, ২০২০ সালের বিধানসভা নির্বাচন সর্বত্র একই ফর্মুলা প্রয়োগ করা হয়েছিল। এবারও বিধান পরিষদ নির্বাচনেও সেই একই ফর্মুলা প্রয়োগ করতে হবে। এমনকী অন্যান্য শরিকদেরও বিধান পরিষদে জায়গা দেওয়ার দাবি তোলা হয়েছে জেডিইউর তরফে। তবে সূত্রের খবর জেডিইউর দাবির সঙ্গে একমত নন বিজেপি নেতৃত্ব। কার্যত তাদের এই দাবি নাকচ করে দিয়েছে বিজেপি। 

এদিকে বিজেপির রাজ্য় সভাপতি ডঃ সঞ্জয় জয়সওয়াল বলেন, সর্বোপরি বিজেপির কেন্দ্রীয় সংসদীয় কমিটিও কতগুলো আসনে লড়াই করবে তা ঠিক করবে। দ্বিতীয়ত যে ২৪টি আসন ফাঁকা রয়েছে তার মধ্যে ১৩টি বিজেপির। এদিকে উপমুখ্যমন্ত্রী তারকিশোর প্রসাদের দাবি জেডিইউ নেতা উপেন্দ্র খুশওয়ার বক্তব্যের মধ্য়ে কোনও সারবত্তা নেই।   

 

বন্ধ করুন