বাড়ি > ঘরে বাইরে > CAA-এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদের কারণে আটক ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহ
সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানোয় ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহকে গ্রেফতার করল পুলিশ।
সংশোধিত নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানোয় ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহকে গ্রেফতার করল পুলিশ।

CAA-এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদের কারণে আটক ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহ

টিভি চ্যানেলে সাক্ষাত্কারের মাঝেই গ্রেফতার করা হল বেঙ্গালুরুবাসী বছর একষট্টির ইতিহাসবিদকে। এ দিন তিনি টাউন হলে অনুষ্ঠিত এক প্রতিবাদসভায় অংশগ্রহণ করতে এসেছিলেন।

সংশোধিত নাগরিকত্ব আইন ও এনআরসি-এর বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানোয় ইতিহাসবিদ রামচন্দ্র গুহকে গ্রেফতার করল পুলিশ। ক্যামেরার সামনেই তাঁকে হিঁচড়ে নিয়ে গিয়ে অপেক্ষমান বাসে পুরে দেওয়া হল।

বৃহস্পতিবার সকালে টিভি চ্যানেলে সাক্ষাত্কারের মাঝেই গ্রেফতার করা হল বেঙ্গালুরুবাসী বছর একষট্টির ইতিহাসবিদকে। এ দিন তিনি টাউন হলে অনুষ্ঠিত এক প্রতিবাদসভায় তিনি অংশগ্রহণ করতে এসেছিলেন।

বিতর্কিত আইন এবং এনআরসি-এর বিরুদ্ধে সাম্প্রতিক বিক্ষোভের জেরে বেঙ্গালুরু শহরে লোকসমাগমের উপরে ১৪৪ ধারা জারি করেছে প্রশাসন। এ দিন টিভি ক্যামেরার সামনে রামচন্দ্র গুহকে টেনে হিঁচড়ে পুলিশ নিয়ে যাওয়ার সময় তিনি সংবাদমাধ্যমকে বলেন, ‘গান্ধীর পোস্টার তুলে ধরা এবং সংবিধান সম্পর্কে সংবাদমাধ্য।মের সঙ্গে কথা বলার কারণে আমাকে পুলিশ আটক করল।’

উত্তেজিত রামচন্দ্র আরও বলেন, ‘কেন্দ্রীয় সরকারের নির্দেশ মেনে কাজ করছে পুলিশ। একটি বৈষম্যমূলক আইনের বিরুদ্ধে শান্তিপূর্ণ অহিংস প্রতিবাদ জানাচ্ছি আমরা। আপনারা হিংসাত্মক কিছু দেখেছেন?’

তত্পর পুলিশকর্মীরা অবশ্য ইতিহাসবিদকে কথা শেষ করার সুযোগ দেননি। তাঁকে টেনে নিয়ে গিয়ে একটি বাসে তোলা হয়। সেই বাসে প্রতিবাদকারী অন্যান্য বন্দিরাও ছিলেন।

সংশোধিত নাগরিক আইনের বিরুদ্ধে এ দিন দেশজুড়ে প্রতিবাদ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত হচ্ছে। বেঙ্গালুরুর প্রতিবাদসভা থেকে অন্তত ৩০ জন আন্দোলনকারীকে গ্রেফতার করা হয়েছে। তাঁদের হাত থেকে পতাকা ও প্ল্যাকার্ড কেড়ে নিতে দেখা গিয়েছে পুলিশকর্মীদের।

জনসমাবেশ নিষিদ্ধ ঘোষণা করায় কেন্দ্রের বিরুদ্ধে দেশের অন্যত্র প্রতিবাদ জানিয়েছে কংগ্রেস। প্রশাসনের বিরুদ্ধে জনস্বার্থ মামলা দায়ের করেছেন দলের নেতা রাজীব গৌড়া।

এ দিকে, বেঙ্গালুরুতে এই নিষেধাজ্ঞা জারির পিছনে কংগ্রেসের হাত রয়েছে বলে এ দি দাবি করেছেন কর্নাটকের মুখ্যমন্ত্রী বি এস ইয়েদিউরাপ্পা। তাঁর যুক্তি, ‘সংশোধিত নাগরিকত্ব বিল নিয়ে বিক্ষোভের পিছনে রয়েছে কংগ্রেস। মুসলিমদের স্বার্থ নিশ্চিত করার দায়িত্ব আমাদের। সবাইকে শান্তি বজায় রাখার অনুরোধ জানাচ্ছি। কংগ্রেস নেতারা যদি এর পরেও বিক্ষোভে ইন্ধন জোগানোর চেষ্টা করেন, তাহলে তাঁদের তার ফল ভুগতে হবে।’

বন্ধ করুন