বাড়ি > ঘরে বাইরে > লাদাখ থেকে নড়ছে না চিন, বেজিংকে ভাতে মারতে মরিয়া ভারত
লাদাখে আইটিবিপি 
লাদাখে আইটিবিপি 

লাদাখ থেকে নড়ছে না চিন, বেজিংকে ভাতে মারতে মরিয়া ভারত

  • আর কী কী অর্থনৈতিক ব্যবস্থা নেওয়া যায়, সেই নিয়ে কথাবার্তা চলছে 

মুখে অনেক আশ্বাস দিলেও কার্যক্ষেত্রে লাদাখে অনেক জায়গা থেকে নড়ার কোনও লক্ষণ দেখাচ্ছে না লাল ফৌজ। সেই পরিপ্রেক্ষিতে কীভাবে অর্থনৈতিক ভাবে চিনকে শায়েস্তা করা যায়, সেদিকেই জোর দিচ্ছে ভারত। 

প্যাংগং সো হোক বা গোগরা-হট স্পিংস অঞ্চল, চিনের সেনা কিছুতেই এপ্রিলের আগের পরিস্থিতি যেতে রাজি নয়। সরকারি সূত্রের খবর, চিন স্টাডি গোষ্ঠীর সোমবার বৈঠক ছিল। সেখানে লাদাখ ও আকসাই চিনে লাল ফৌজের গতিবিধি নিয়ে আলোচনা হয়। এই গোষ্ঠীর অন্তর্ভুক্ত শীর্ষস্থানীয় রাজনৈতিক ও সামরিক নেতৃত্ব ও গুরুত্বপূর্ণ আমলারা। চিনের সঙ্গে ভারতের সম্পর্কের গতিপথ এই গোষ্ঠীই ঠিক করে। 

চিনের কথা হচ্ছে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্ক ও সীমান্তের সমস্যা, দুটিকে আলাদা করে দেখা হোক। কিন্তু এই দাবি মানতে নারাজ ভারত। সীমান্তে চিন লাল চক্ষু দেখালে ভারতও যেভাবে সম্ভব সেটা রুখবে বলে ঠিক করেছে। এই মুহূর্তে চিনা সেনা লাদাখে গোগরা-হট স্প্রিংসে নিজেদের জায়গায় গ্যাঁট হয়ে বসে আছে। প্যাংগং সো লেকেও ফিংগার ৪-এ গ্রিন টপে মোতায়েন চিনা সেনা। 

এই কারণে ভারতীয় সেনাও ফরওয়ার্ড পজিসনে প্রস্তুত হয়ে বসে আছে। ৫ জুলাই দুই দেশের বিশেষ প্রতিনিধি সীমান্তে পুরো সেনা সরানোর কথা বললেও কার্যক্ষেত্রে খুব কিছু সেনা হটায়নি লাল ফৌজ। 

চিনের বিরুদ্ধে অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বেশ কিছু পদক্ষেপ ইতিমধ্যেই নিয়েছে ভারত। চিনা অ্যাপ ব্যান করা থেকে পরিকাঠামোগত উন্নয়নের কাজে চিনা সংস্থাদের দূরে রাখা, মোদী সরকার এভাবেই বেজিংয়কে বেকায়দায় ফেলতে চাইছে। অন্যদিকে আমেরিকাও চিনা সংস্থাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নিচ্ছে। তাই এটি স্পষ্ট যে অদূর ভবিষ্যতে ভারতও চিনা সংস্থাদের বরাত দেবে না বিভিন্ন ক্ষেত্রে। 

সীমান্তে সমস্যা জিইয়ে রাখলে তার জের যে দ্বিপাক্ষিক সম্পর্কের ওপর পড়বেই, সেটা বুঝিয়ে দিতে বদ্ধপরিকর মোদী সরকার। 

বন্ধ করুন