বাড়ি > ঘরে বাইরে > অসহ্য শীতে খালি গায়ে ধ্যানে কেদারনাথ পূজারী, প্রতিবাদ মন্দিরে সরকারি হস্তক্ষেপের
তীব্র ঠান্ডার মাঝে কেদারনাথ মন্দির চত্বরে নিয়মিত খালি গায়ে ধ্যানে বসেছেন পূজারী সন্তোষ ত্রিবেদী।
তীব্র ঠান্ডার মাঝে কেদারনাথ মন্দির চত্বরে নিয়মিত খালি গায়ে ধ্যানে বসেছেন পূজারী সন্তোষ ত্রিবেদী।

অসহ্য শীতে খালি গায়ে ধ্যানে কেদারনাথ পূজারী, প্রতিবাদ মন্দিরে সরকারি হস্তক্ষেপের

  • বোর্ড গঠনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে দিনে তিন বার মন্দিরে পুজোর সময় বাইরে ধ্যানে বসেন পূজারী সন্তোষ ত্রিবেদী।

চারধাম দেবস্থানম ম্যানেজমেন্ট বোর্ড গঠনের প্রতিবাদে তীব্র ঠান্ডার মাঝে কেদারনাথ মন্দির চত্বরে নিয়মিত খালি গায়ে ধ্যানে বসেছেন পূজারী সন্তোষ ত্রিবেদী। তাঁর দাবি, অবিলম্বে বোর্ড সাসপেন্ড করা হোক।

চার ধাম-সহ ভারতের ৫১টি তীর্থস্থান নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশে তৈরি করা হয়েছে বিশেষ ম্যানেজমেন্ট বোর্ড। কিন্তু তার বিরুদ্ধে প্রতিবাদে নেমেছেন এই সমস্ত তীর্থস্থানের পূজারীরা। তাঁদের দাবি, পূজারীদের অন্ধকারে রেখেই এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। জেরে তাঁদের অভিযোগ, এই সিদ্ধান্তের জেরে মন্দিরের পূজারীদের এড়িয়ে মন্দিরের দখল নেওয়ার চেষ্টা করছে প্রশাসন। 

গত ডিসেম্বর মাসে উত্তর প্রদেশে বিধানসভায় পাশ হয় চার ধাম তীর্থস্থান নিয়ন্ত্রণ বিল। পরে আইনে পর্যবসিত করার সময় তীর্থস্থান শব্দের বদলে বসানো হয় দেবস্থানম শব্দটি। 

২৯ এপ্রিল তীরর্থস্থানগুলি নিয়ন্ত্রণের উদ্দেশে তৈরি করা পোর্টালের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন হয়। পূজারীদের অভিযোগ, মন্দিরের সূত্রে অর্জিত দানের অর্থ হাতানোর জন্যই সরকার বোর্ড তৈরি করেছে।

কেদারনাথ তীর্থ পুরোহিত মহাসভার সভাপতি বিনোদ শুক্লা জানিয়েছেন, ‘কেদারনাথ মন্দিরের তীর্থ পুরোহিত সন্তোষ ত্রিবেদী গত ১২ জুন থেকে প্রতিবাদ অবস্থান শুরু করেছেন। বোর্ড গঠনের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানাতে দিনে তিন বার মন্দিরে পুজোর সময় বাইরে ধ্যানে বসেন সন্তোষ। প্রতি বার পুজোয় চার ঘণ্টা ব্যয় হয়।’

শুধু কেদারনাথ মন্দিরই নয়, ইতিমধ্যে গঙ্গোত্রী, যমুনোত্রী ও বদ্রীনাথ মন্দিরের পূজারীরাও চার ধাম দেবস্থানম ম্যানেজমেন্ট বোর্ডের বিরুদ্ধে প্রতিবাদ জানানোর কর্মসূচি বাস্তবায়িত করার পরিকল্পনা করেছেন। কিছু দিনের মধ্যেই তাঁরাও প্রতিবাদে সক্রিয় ভাবে শামিল হবেন বলে জানা গিয়েছে।

বন্ধ করুন