বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > Load Shedding: বাংলা,গুজরাত ম্যানেজ করে ফেলেছে,বাকি রাজ্যে কারেন্টের অবস্থা কী?
প্রচণ্ড গরম আর তার মধ্যেই ভয়াবহ লোডশেডিং দেশের বিভিন্ন রাজ্যে। প্রতীকী ছবি। REUTERS (REUTERS)

Load Shedding: বাংলা,গুজরাত ম্যানেজ করে ফেলেছে,বাকি রাজ্যে কারেন্টের অবস্থা কী?

  • গোটা দেশজুড়ে বিভিন্ন রাজ্যে লোডশেডিংয়ের ছবি। দিনের মধ্যে ঘণ্টার পর ঘণ্টা কারেন্ট অফ। তবে বাংলা আর গুজরাতের ছবি সেই নিরিখে অনেকটাই ভালো।

ভয়াবহ গরম। তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বেড়েছে লোডশেডিং। দেশের বিভিন্ন রাজ্যে কারেন্ট অফ হচ্ছে মাঝেমধ্য়েই। দেশ জুড়ে চিত্রটা ঠিক কেমন একটু জেনে নিন।

গুজরাত- গুজরাতের উরজা বিকাশ নিগম লিমিটেডের দাবি, কয়লার সঙ্কটের জন্য কোনও লোডশেডিংয়ের পরিস্থিতি নেই গুজরাতে। খুব কৌশলে সবকিছু ম্যানেজ করা হচ্ছে।

বাংলা-গুজরাতের মতোই বাংলাতেও সাপ্লাইতে কোনও ঘাটতি নেই। সব দিক ঠিকঠাক ম্যানেজ হয়ে যাচ্ছে।রাজ্য়ের গড় চাহিদা ৯০০০ থেকে ৯২০০ মেগাওয়াট।

তামিলনাড়ু- তামিলনাড়ুতে অবশ্য মাঝেমধ্যেই লোডশেডিং হচ্ছে। গত সপ্তাহে রাজ্য সরকার জানিয়েছিল, ৭৫০ মেগাওয়াট ঘাটতি রয়েছে।

মধ্যপ্রদেশ- বড় লোডশেডিং নেই। তবে দিনের পিক টাইমে ১১,৮৭৫ মেগাওয়াট সাপ্লাই রয়েছে। সেখানে চাহিদা ১২,১৫০ মেগাওয়াট।

মহারাষ্ট্র- এখানে ৩,০০০ ওয়াট বিদ্যুতের ঘাটতি। এপ্রিল থেকেই মাঝেমধ্যে লোডশেডিং চলছে। মুম্বইয়ের একাংশ ও সংলগ্ন কয়েকটি জায়গায় বিদ্যুৎ চলে যাওয়ার সমস্যা রয়েছে।

ওড়িশা- এপ্রিলের মাঝামাঝি থেকই বিদ্যুতের ঘাটতি ওড়িশায়। এনটিপিসির একটি ইউনিট বসে যাওয়ায় সমস্যা বেড়েছে।

অন্ধ্রপ্রদেশ-এই রাজ্যেও রয়েছে বিদ্যুতের ঘাটতি। ফলে যা হওয়ার তাই হচ্ছে। প্রচণ্ড গরমে কারেন্ট চলে যাচ্ছে।

ঝাড়খন্ড- মুখ্যমন্ত্রী হেমন্ত সোরেন জানিয়েছেন, পিক টাইমে চাহিদা মেটানো যাচ্ছে না।

উত্তরপ্রদেশ-এখানে ৩ হাজার ওয়াটের ঘাটতি রয়েছে। এর জেরে গ্রামীণ এলাকায় ও ছোট শহলে লোডশেডিং হচ্ছে। গ্রামীণ এলাকায় ১৫ ঘণ্টা বিদ্যুৎ পরিষেবা থাকছে।শহরাঞ্চলে প্রায় ২১ ঘণ্টা বিদ্যুৎ থাকছে।

বিহার- বিহারেও ২০০-২০০ মেগাওয়াট বিদ্যুতের ঘাটতি রয়েছে।

পঞ্জাব- পঞ্জাবেও ভয়াবহ লোডশেডিং শুরু হয়েছে।এনিয়ে কৃষকদের মধ্যে অসন্তোষ শুরু হয়ে গিয়েছে।

কাশ্মীর- রমজান মাসে চলছে টানা লোডশেডিং।

উত্তরাখণ্ড- এখানেও পাওয়ার ক্রাইসিস চলছে।

রাজস্থান-দিনে ৫-৭ ঘণ্টা পর্যন্ত লোডশেডিং চলছে।

হরিয়ানা- রোজকার চাহিদা ৮১০০ মেগাওয়াট। সেখানে ঘাটতি রয়েছে  ৩০০ মেগাওয়াট।

বন্ধ করুন