বাড়ি > ঘরে বাইরে > সেরে ওঠার কয়েক মাসের মধ্যে ফের কোভিড আক্রান্ত যুবক, উদ্বিগ্ন বিজ্ঞানীরা
সাধারণ সর্দি-কাশি সৃষ্টিকারী করোনাভাইরাসের অবশিষ্ট মানবদেহে বেশ কয়েক মাস উপস্থিত থাকতে পারে, বলছেন গবেষকরা।
সাধারণ সর্দি-কাশি সৃষ্টিকারী করোনাভাইরাসের অবশিষ্ট মানবদেহে বেশ কয়েক মাস উপস্থিত থাকতে পারে, বলছেন গবেষকরা।

সেরে ওঠার কয়েক মাসের মধ্যে ফের কোভিড আক্রান্ত যুবক, উদ্বিগ্ন বিজ্ঞানীরা

  • দ্বিতীয় বার সংক্রমণে ওই তথ্যপ্রযুক্তি কর্মীর দেহে কোনও উপসর্গ দেখা দেয়নি।

বিশ্বে এই প্রথম সেরে ওঠার পরে ফের করোনাভাইরাস সংক্রমণের শিকার হলেন এক রোগী। ইউরোপ থেকে হংকং ফেরার পরে বিমানবন্দরে স্ক্রিনিং-এ ধরা পড়েছে, ৩৩ বছর বয়েসি ওই ব্যক্তি দ্বিতীয় বার কোভিড আক্রান্ত হয়েছেন।

হংকং বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা জেনোমিক সিকোয়েন্স বিশ্লেষণের দ্বারা প্রমাণ করেছেন যে, ওই ব্যক্তি দুটি ভিন্ন সূত্র থেকে সংক্রমিত হয়েছেন। তবে দ্বিতীয় বার সংক্রমণে ওই তথ্যপ্রযুক্তি কর্মীর দেহে কোনও উপসর্গ দেখা দেয়নি। গবেষকদের দাবি, পরবর্তী সংক্রমণের মাত্রা অনেকটাই মৃদু হয়। 

সোমবার এক গবেষণাপত্রে গবেষক কোওক-ইয়ুং ইউয়েন ও তাঁর সহকর্মীরা জানিয়েছেন, ‘আমাদের গবেষণায় দেখা গিয়েছে, SARS-CoV-2 ভাইরাস মানবদেহে থেকে যেতে পারে। গবেষণায় আরও দেখা গিয়েছে যে, এই ভাইরাস আসলে সাধারণ সর্দি-কাশি সৃষ্টিকারী করোনাভাইরাসের অবশিষ্ট হিসেবে মানবদেহে বেশ কয়েক মাস উপস্থিত থাকতে পারে। এমনকি প্রাকৃতিক সংক্রমণ বা ভ্যাক্সিনের সাহায্যে রোগীর দেহে সম্পূর্ণ প্রতিরোধ ক্ষমতা তৈরি হওয়ার পরেও তিনি সংক্রমণ ছড়াতে পারেন।’

গত কয়েক সপ্তাহে বিশ্বের বহু রোগীর উপসর্গ না থাকলেও কোভিড পজিটিভ প্রমাণিত হয়েছেন। বিজ্ঞানীরা এখনও বুঝে উঠতে পারেননি, এই সমস্ত রোগীর দেহে ভাইরাসের অবশেষ রয়ে যাচ্ছে, না কি তাঁরা অবশিষ্ট ভাইরাসের উপস্থিতিতে ফের সংক্রমিত হচ্ছেন অথবা নতুন করে তাঁরা সংক্রমণের শিকার হচ্ছেন।

অস্ট্রেলিয়ার ব্রিসবেন শহরের কিউআইএমআর বার্ঘোফার মেডিক্যাল রিসার্চ ইনস্টিটিউট-এর বিভাগীয় প্রধান করি স্মিথ জানাচ্ছেন, ‘উপসর্গ দেখা না দিলে সেরে ওঠার পরে রোগী ফের সংক্রমিত হলেন কি না, তা বোঝার উপায় নেই। হতে পারে, দ্বিতীয় বার সংক্রমণ দেখা দিলেও রোগীর শরীরের স্বাভাবিক প্রতিরোধ ক্ষমতা উপসর্গযুক্ত কোনও রোগ ছড়াতে দিচ্ছে না। এতে বোঝা যাচ্ছে, রোগ প্রতিরোধ করা গেলেও ফের সংক্রমিত হওয়ার সম্ভাবনা উড়িয়ে দেওয়া যায় না।’

তবে সমস্যা হল, ফের সংক্রমিত হওয়া রোগীর জীবাণু ছড়ানোর সম্ভাবনা থেকে যায়। তাতে সবচেয়ে বিপদ তাঁর সংস্পর্শে আসা সেই সব মানুষের, যাঁরা এর আগে কোভিড সংক্রমণের শিকার হননি।

আমেরিকার সংক্রমণজনক রোগ কেন্দ্রের সভাপতি থমাস ফাইলের প্রশ্ন, ‘পুনঃসংক্রমণ হবেই। প্রশ্ন হল, প্রথম বার সংক্রমিত হওয়ার কত দিন পরে তা হতে পারে?’

বিজ্ঞানীদের মতে, ফের সংক্রমণের বিরুদ্ধে সুরক্ষা ব্যবস্থা রোগী বিশেষে পরিবর্তন হয়। আসলে তা নির্ভর করে ব্যক্তিবিশেষের রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতার উপরে, যার সুবাদে তিনি প্রথম বার সংক্রমণ থেকে সেরে ওঠেন। তা ছাড়া, দ্বিতীয় বার সংক্রমণের মাত্রার উপরেও নির্ভর করে তাঁর সেরে ওঠা ও জীবাণু ছ়ড়ানোর সম্ভাবনা, সোমবার এক সাক্ষাৎকারে জানিয়েছেন ফাইল।

বন্ধ করুন