বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > ওড়িশার প্রশংসায় পঞ্চমুখ মোদী, বাংলা নিয়ে কথা নেই
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (ছবি সৌজন্যে পিটিআই)
প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী (ছবি সৌজন্যে পিটিআই)

ওড়িশার প্রশংসায় পঞ্চমুখ মোদী, বাংলা নিয়ে কথা নেই

  • টুইটে প্রধানমন্ত্রী স্পষ্টত জানান, ভুবনেশ্বরে রিভিউ মিটিং খুবই কার্যকরী হয়েছে।বিপর্যয় মোকাবিলার জন্য ওড়িশার সঙ্গে যৌথভাবে কাজ চালিয়ে যাব।এই ব্যাপারে ওড়িশা অবশ্য প্রশংসনীয় কাজ করছে।প্র

ঘূর্ণিঝড় ইয়াসে বিধ্বস্ত ওড়িশা ও বাংলার একাংশের পরিদর্শনে এসেছিলেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। এলাকা পরিদর্শনের পর ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়কের সঙ্গে যেমন বৈঠক করেছিলেন তিনি, তেমনি বাংলার মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও অল্প সময়ের জন্য হলেও প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে রিপোর্ট পেশ করেন। এর ২৪ ঘণ্টার মধ্যেই ওড়িশা সরকারের ভূয়সী প্রশংসা করে টুইট করেন প্রধানমন্ত্রী। যদিও সেই টুইটে বাংলার জন্য একটি শব্দও খরচ করেননি তিনি।

এদিন টুইটে প্রধানমন্ত্রী স্পষ্টত জানান, ভুবনেশ্বরে রিভিউ মিটিং খুবই কার্যকরী হয়েছে।বিপর্যয় মোকাবিলার জন্য ওড়িশার সঙ্গে যৌথভাবে কাজ চালিয়ে যাব। এই ব্যাপারে ওড়িশা অবশ্য প্রশংসনীয় কাজ করছে। প্রধানমন্ত্রীর এই টুইটের পর তাঁকে ধন্যবাদ দিয়ে পালটা টুইট করেন ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী নবীন পট্টনায়ক। তিনিও টুইটে লেখেন, ওড়িশার জন্য ত্রাণ ও পুনর্বাসনের উদ্দেশ্যে ৫০০ কোটি টাকা দেওয়ার জন্য প্রধানমন্ত্রীকে ধন্যবাদ। পাশাপাশি বিপর্যয় মোকাবিলা করার জন্য ওড়িশা সরকারের পরিকাঠামোগত ব্যবস্থার প্রশংসা করার জন্যও তাঁকে ধন্যবাদ জানাই।

উল্লেখ্য, গতকাল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকের পর ওড়িশার মুখ্যমন্ত্রী জানিয়েছিলেন, প্রধানমন্ত্রী ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা ঘুরে দেখতে আসায় তাঁরা খুশি। বিপর্যয় মোকাবিলায় দীর্ঘমেয়াদী ব্যবস্থাপনা নিয়ে তাঁদের মধ্যে কথা হয়েছে। যেহেতু কেন্দ্রের ওপর কোভিড বোঝা রয়েছে, তাই এখনই কোনও অর্থ সাহায্য আমরা চাইছি না।

এদিকে ওড়িশার পাশাপাশি বাংলাতেও ঘূর্ণিঝড় বিধ্বস্ত এলাকা পরিদর্শনে আসেন প্রধানমন্ত্রী। কলাইকুণ্ডায় একটি রিভিউ মিটিংও করেন তিনি। কিন্তু এদিন অবশ্য বাংলা নিয়ে টুইটে কোনও কথাই বলেননি প্রধানমন্ত্রী। গতকাল প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করে ক্ষয়ক্ষতির একটি রিপোর্ট পেশ করেন মুখ্যমন্ত্রী। তিনি ২ হাজার কোটি টাকার অর্থ সাহায্য চান।প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে দেখা করলেও রিভিউ মিটিংয়ে থাকতে পারেননি তিনি।মুখ্যমন্ত্রীর পাশাপাশি মুখ্যসচিবও ছিলেন না। 

সেইসঙ্গে প্রধানমন্ত্রীর রিভিউ মিটিংয়ে না থাকার জন্য মুখ্যমন্ত্রীর সমালোচনায় সরব হয়েছেন কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্র মন্ত্রী অমিত শাহ, কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং সহ আরও অনেক কেন্দ্রীয় স্তরের নেতারা। কেন্দ্রীয় প্রতিরক্ষামন্ত্রী রাজনাথ সিং জানান, প্রধানমন্ত্রী ও মুখ্যমন্ত্রী কোনও ব্যক্তি নয়। দুটি প্রতিষ্ঠান। মানুষের সেবার জন্য সংবিধানে শপথ নিয়েছেন। বাংলার মানুষকে সাহায্য করার জন্য তিনি সেখানে গিয়েছিলেন। 

তাঁর সঙ্গে এহেন আচরন পীড়াদায়ক।তবে উল্লেখযোগ্য বিষয়, গতকালের বৈঠকের পর মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়কে সোমবার সকালের মধ্যে নর্থ ব্লকে রিপোর্ট করতে বলা হয়েছে। অনেকেই এই বিষয়ে প্রশ্ন তুলেছেন, মুখ্যসচিব হিসাবে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে না থাকার জন্যই কী এই বদলির নির্দেশ দেওয়া হয়েছে।

বন্ধ করুন