বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ মোদীর, শনিবার মোদী–হাসিনা দ্বিপাক্ষিক বৈঠক
ঢাকায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ছবি সৌজন্য–এএনআই।
ঢাকায় প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। ছবি সৌজন্য–এএনআই।

মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সঙ্গে সাক্ষাৎ মোদীর, শনিবার মোদী–হাসিনা দ্বিপাক্ষিক বৈঠক

  • সেখানে রাজনৈতিক নেতা থেকে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করেন তিনি। এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জাতীয় স্মৃতিসৌধে ’৭১–এর বীর শহিদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান।

বাংলাদেশের স্বাধীনতা দিবসে এলেন মুক্তিযুদ্ধের সহযোগী পড়শি রাষ্ট্র ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী। মুজিববর্ষ, স্বাধীনতার সুবর্ণজয়ন্তী এবং ভারতের সঙ্গে কূটনৈতিক সম্পর্কের ৫০ বছর উদযাপন উপলক্ষ্যে দু’ দিনের রাষ্ট্রীয় সফরে ঢাকায় পা রাখলেন তিনি। সেখানে রাজনৈতিক নেতা থেকে মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্যদের সঙ্গে দেখা করেন তিনি। এদিন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী জাতীয় স্মৃতিসৌধে ’৭১–এর বীর শহিদের প্রতি গভীর শ্রদ্ধা জানান। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের প্রতি শ্রদ্ধা জানাতে তিনি ধানমন্ডির ৩২ নম্বরে বঙ্গবন্ধু স্মৃতি জাদুঘরে যান।

এখানে বাংলাদেশের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে তাঁর দ্বিপাক্ষিক আলোচনা হয়। ভারতের প্রধানমন্ত্রী শুক্রবার বিকেলে জাতীয় প্যারেড স্কোয়ারে উপস্থিত হলে তাঁকে অভ্যর্থনা জানান অনুষ্ঠানের সভাপতি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে তার বোন শেখ রেহানাও ছিলেন। অনুষ্ঠানের প্রধান অতিথি রাষ্ট্রপতি মহম্মদ আবদুল হামিদও উপস্থিত রয়েছেন। ‘মুজিব চিরন্তন’ শিরোনামে ১০ দিনব্যাপী অনুষ্ঠানের আজ শেষ দিনের আয়োজনের প্রতিপাদ্য ‘স্বাধীনতার ৫০ বছর ও অগ্রগতির সুবর্ণরেখা’।

জানা গিয়েছে, সন্ধ্যায় নরেন্দ্র মোদী বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে যৌথ ভাবে ‘বঙ্গবন্ধু–বাপু জাদুঘর’ উদ্বোধন করবেন। সেখানে মোদী তাঁর সম্মানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আয়োজিত রাষ্ট্রীয় ভোজসভায়ও যোগ দেবেন। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ভারতের শাস্ত্রীয় সংগীতজ্ঞ পণ্ডিত অজয় চক্রবর্তীর পরিবেশনায় বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে নির্মিত নতুন রাগ ‘মৈত্রী’ পরিবেশন করা হবে। ‘পিতা দিয়েছে স্বাধীন স্বদেশ, কন্যা দিয়েছে আলো’ শীর্ষক থিমেটিক কোরিওগ্রাফি থাকছে অনুষ্ঠানে।

মুক্তিযুদ্ধের সহযোগী দেশ, প্রতিবেশী, ব্যবসা–বাণিজ্য ও সাংস্কৃতিক আদান-প্রদানের কারণে দুই দেশের সম্পর্কও সুগভীর। নরেন্দ্র মোদীর ঢাকা সফর উপলক্ষ্যে বিমান বন্দর থেকে বঙ্গভবন-সহ রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক ও সড়ক দ্বীপ দু’দেশের পতাকায় সাজানো হয়েছে। ঢাকা পৌঁছনোর পর বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফল বাংলাদেশি তরুণদের সঙ্গে দেখা করেন নরেন্দ্র মোদী। এই দলে সাকিব ছাড়াও ছিলেন বাংলাদেশের সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা, মহিলা ক্রিকেট দলের তারকা সালমা খাতুন, জাহানারা আলম, অভিনেত্রী জয়া আহসান, নুসরাত ফারিয়া, চিত্র পরিচালক রেদোয়ান রনি, সংগীত তারকা শারমিন সুলতানা সুমি প্রমুখ।

জানা গিয়েছে, সন্ধ্যায় নরেন্দ্র মোদী বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে যৌথ ভাবে ‘বঙ্গবন্ধু–বাপু জাদুঘর’ উদ্বোধন করবেন। সেখানে মোদী তাঁর সম্মানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা আয়োজিত রাষ্ট্রীয় ভোজসভায়ও যোগ দেবেন। সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে ভারতের শাস্ত্রীয় সংগীতজ্ঞ পণ্ডিত অজয় চক্রবর্তীর পরিবেশনায় বঙ্গবন্ধুকে উৎসর্গ করে নির্মিত নতুন রাগ ‘মৈত্রী’ পরিবেশন করা হবে। ‘পিতা দিয়েছে স্বাধীন স্বদেশ, কন্যা দিয়েছে আলো’ শীর্ষক থিমেটিক কোরিওগ্রাফি থাকছে অনুষ্ঠানে।

মুক্তিযুদ্ধের সহযোগী দেশ, প্রতিবেশী, ব্যবসা–বাণিজ্য ও সাংস্কৃতিক আদান-প্রদানের কারণে দুই দেশের সম্পর্কও সুগভীর। নরেন্দ্র মোদীর ঢাকা সফর উপলক্ষ্যে বিমান বন্দর থেকে বঙ্গভবন-সহ রাজধানীর বিভিন্ন সড়ক ও সড়ক দ্বীপ দু’দেশের পতাকায় সাজানো হয়েছে। ঢাকা পৌঁছনোর পর বিভিন্ন ক্ষেত্রে সফল বাংলাদেশি তরুণদের সঙ্গে দেখা করেন নরেন্দ্র মোদী। এই দলে সাকিব ছাড়াও ছিলেন বাংলাদেশের সাবেক ওয়ানডে অধিনায়ক মাশরাফি বিন মুর্তজা, মহিলা ক্রিকেট দলের তারকা সালমা খাতুন, জাহানারা আলম, অভিনেত্রী জয়া আহসান, নুসরাত ফারিয়া, চিত্র পরিচালক রেদোয়ান রনি, সংগীত তারকা শারমিন সুলতানা সুমি প্রমুখ।|#+|

আজ শুক্রবার বেলা ১টায় রাজধানীর সোনারগাঁও হোটেলে নরেন্দ্র মোদীর সঙ্গে সৌজন্য সাক্ষাৎ করেন জাতীয় সংসদের প্রধান বিরোধী দল জাতীয় পার্টির চার নেতা। প্রায় ২৫ মিনিট তাঁরা ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে কথা বলেন। সেখানে তিস্তা জলবন্টন ইস্যুতে কথা হয় বলে সূত্রের খবর। পরে বৈঠক শেষে জাতীয় পার্টির নেতা জিয়াউদ্দিন বাবলু বলেন, ‘আমরা বলেছি যোগাযোগ ব্যবস্থা যাতে দুই দেশের জনগণের স্বার্থেই হয় এবং দুই দেশের মানুষের মধ্যে যাতে বন্ধুত্ব বাড়ে, তার জন্য কাজ করতে হবে।’

শনিবার সকালে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী গোপালগঞ্জের টুঙ্গীপাড়ায় জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সমাধিসৌধ পরিদর্শন করবেন এবং পুষ্পস্তবক দিয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতি শ্রদ্ধা নিবেদন করবেন। তারপর সাতক্ষীরার শ্যামনগরের ঈশ্বরীপুরে অবস্থিত যশোরেশ্বরী দেবী মন্দির এবং গোপালগঞ্জের কাশিয়ানি উপজেলায় শ্রী হরিচাঁদ ঠাকুরের ওড়াকান্দি মন্দির দর্শন করবেন। বিকেলে দুই প্রধানমন্ত্রী দ্বিপাক্ষিক বৈঠকে যোগ দেবেন। দুই দেশের প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতে বেশ কিছু সমঝোতা স্মারক স্বাক্ষর হবে। তারই সঙ্গে দুই দেশের যৌথভাবে করা বিভিন্ন প্রকল্প ভার্চুয়ালি উদ্বোধনের কথা রয়েছে।

বন্ধ করুন