বাংলা নিউজ > ঘরে বাইরে > গণতন্ত্রে প্রতিদিন শাসকদের আত্মসমালোচনা করা উচিত, বললেন ভারতের প্রধান বিচারপতি
সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এন ভি রামান্না। (ফাইল ছবি, সৌজন্য অরবিন্দ যাদব/হিন্দুস্তান টাইমস)
সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এন ভি রামান্না। (ফাইল ছবি, সৌজন্য অরবিন্দ যাদব/হিন্দুস্তান টাইমস)

গণতন্ত্রে প্রতিদিন শাসকদের আত্মসমালোচনা করা উচিত, বললেন ভারতের প্রধান বিচারপতি

  • কিছুটা আক্ষেপ প্রকাশ করে ভারতের প্রধান বিচারপতি জানান, আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থা শুধুমাত্র উপযোগিতামূলক কাজের দিকে দৃষ্টি নিক্ষেপ করে।

গণতান্ত্রিক কাঠামোয় নিয়মিত আত্মসমালোচনা করা উচিত শাসকদের। তাঁরা যে সিদ্ধান্তগুলি নিয়েছেন, সেগুলি ভালো কিনা, তা বিবেচনা করা প্রয়োজন। সেইসঙ্গে তাঁদের কোনও বাজে স্বভাব আছে কিনা, তা নিয়েও চিন্তাভাবনা করে দেখা উচিত। এমনটাই বললেন সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি এন ভি রামান্না।

রামায়ণ এবং মহাভারতকে উদ্ধৃত করে সোমবার অন্ধ্রপ্রদেশের অনন্তপুরামু জেলায় একটি প্রতিষ্ঠানের সমাবর্তন অনুষ্ঠানে সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতি জানান, শাসকদের ১৪ টি বাজে স্বভাব থাকে। যা তাঁদের এড়িয়ে চলা উচিত। তিনি বলেন, 'নিজেদের প্রতিদিনের কাজ শুরুর করার আগে গণতান্ত্রিক কাঠামোর যে কোনও শাসকের আত্মসমালোচনা করে দেখা উচিত, তাঁর কোনও বাজে স্বভাব আছে কিনা। শুধু প্রশাসনিক পরিষেবা দেওয়ার প্রয়োজন আছে। যা মানুষের প্রয়োজন অনুযায়ী হওয়া উচিত। এখানে অনেক বিজ্ঞ মানুষ আছেন। আপনারা দেখছেন যে বিশ্বজুড়ে এবং দেশজুড়ে কী কী বিষয় হচ্ছে।' ভারতের প্রধান বিচারপতি জানান, যে কোনও গণতন্ত্রে মানুষই হলেন প্রধান। শাসক দল যে সিদ্ধান্ত নিয়ে থাকুক না কেন, তাতে মানুষের লাভ হতে হবে। তিনি জানান, দেশের সমস্ত ব্যবস্থা স্বাধীন হওয়া উচিত। যা মানুষের স্বার্থের জন্য কাজ করবে। 

তারইমধ্যে কিছুটা আক্ষেপ প্রকাশ করে ভারতের প্রধান বিচারপতি জানান, আধুনিক শিক্ষা ব্যবস্থা শুধুমাত্র উপযোগিতামূলক কাজের দিকে দৃষ্টি নিক্ষেপ করে। তা নৈতিক বা আধ্যাত্মিক বিষয়ের সঙ্গে সামঞ্জস্য রাখার ক্ষেত্রে উপযুক্ত নয়। যা আদতে পড়ুয়াদের চরিত্র গঠন করে। সামাজিক দায়-দায়িত্ব এবং সচেতনতা গড়ে তোলে। তাঁর মতে, পড়ুয়াদের মধ্যে নম্রতা, শৃঙ্খলা, স্বার্থহীনতা, সহানুভূতি, সহনশীলতা, ক্ষমা এবং পারস্পরিক শ্রদ্ধার ভিত্তিপ্রস্তর তৈরি করে দেয় প্রকৃত শিক্ষা।

বন্ধ করুন