সোনার জোড়া খনির হদিশ মিলল উত্তরপ্রদেশে। (প্রতীকী ছবি)
সোনার জোড়া খনির হদিশ মিলল উত্তরপ্রদেশে। (প্রতীকী ছবি)

জোড়া সোনার খনি মিলল উত্তরপ্রদেশে, রয়েছে ৩,৬০০ মেট্রিক টন সোনা

সোনভদ্রের উইন্ডহ্যামগঞ্জে সোন পাহাড়ির খনিতে প্রায় ২,৯৪৬ মেট্রিক টন এবং হারদি গ্রামের কাছে পাহাড়ি অঞ্চলের খনিটিতে ৬৫০ মেট্রিক টন সোনা রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।

উত্তরপ্রদেশে সন্ধান পাওয়া গেল পর পর দু’টি সোনার খনির। সোন পাহাড়ি এলাকার দুটি খনিতে রয়েছে বলে জানিয়েছে জিওলজিক্যাল সার্ভে অফ ইন্ডিয়া (সিএসআই)।

বৃহস্পতিবার সোনভদ্রর জেলা খনি আধিকারিক কে কে রাই জানিয়েছেন, ‘সোন পাহাড়ি এবং হারদি গ্রামের কাছে জঙ্গলে দুটি সোনার খনির সন্ধান পেয়েছে জিএসআই ও উত্তরপ্রদেশ ভূতত্ব ও খনি বিভাগের দু’টি দল। খনিগুলিতে ৩,৬০০ মেট্রিক টনের বেশি সোনা রয়েছে বলে জানা গিয়েছে।’

এর মধ্যে উইন্ডহ্যামগঞ্জের সোন পাহাড়ির খনিতে প্রায় ২,৯৪৬ মেট্রিক টন এবং হারদি গ্রামের কাছে পাহাড়ি অঞ্চলের খনিটিতে ৬৫০ মেট্রিক টন সোনা রয়েছে বলে জানিয়েছেন রাই।

তিনি আরও জানিয়েছেন, ‘প্রায় দেড় দশক ধরে সোন পাহাড়ি অঞ্চলে অনুসন্ধানরত জিএসআই-এর দলটি সম্প্রতি ওই সোনার খনির হদিশ পেয়েছে। ওই এলাকা ঝাড়খণ্ড সীমান্তের কাছাকাছি।’

কে কে রাই বলেছেন, নির্দিষ্ট জঙ্গলাকীর্ণ এলাকা দু’টি চিহ্নিত করেছে শুল্ক দফতর এরপরে বন দফতর ও খনি দফতর থেকে খননকাজ শুরু করার জন্য আবেদন জানানো হবে। বন দফতরের অনুমোদন পাওয়া গেলে খননকাজের জন্য টেন্ডার ডাকা হবে। তারপরে শুরু হবে খনি থেকে সোনা তোলার কাজ।পাশাপাশি, উত্তরপ্রদেশ ভূতত্ব ও খনি বিভাগের ২২ সদস্যের একটি দল দু’টি খনিরই জিও-ট্যাগিংয়ের কাজ শুরু করেছে বলে জানিয়েছেন রাই। এই পদ্ধতি সম্পূর্ণ হলে তার রিপোর্ট পাঠানো হবে ভূতত্ব ও খনি বিভাগের অধিকর্তা রোশন জেকবকে।

বন্ধ করুন