বাংলা নিউজ > ময়দান > ভারতীয় দলের গভীরতা নিয়ে যতটা উচ্ছ্বসিত ইয়ান চ্যাপেল, ততটাই হতাশ অজিদের নিয়ে
ইয়ান চ্যাপেল।
ইয়ান চ্যাপেল।

ভারতীয় দলের গভীরতা নিয়ে যতটা উচ্ছ্বসিত ইয়ান চ্যাপেল, ততটাই হতাশ অজিদের নিয়ে

  • ভারতীয় দলের মধ্যে যেমন গভীরতা রয়েছে, তেমনই নাকি নিউজিল্যান্ড এবং ইংল্যান্ড দলের মধ্যেও গভীরতা রয়েছে বলে দাবি ইয়ান চ্য়াপেলের। কিন্তু অস্ট্রেলিয়া দল নিয়ে তিনি চূড়ান্ত হতাশ।

সাউদাম্পটনে নিউজিল্যান্ডের বিরুদ্ধে বিশ্ব টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ ফাইনালে ভারত বিশ্রি ভাবে হারলেও, তাদের নিয়ে উচ্ছ্বসিত অস্ট্রেলিয়ার কিংবদন্তি ক্রিকেটার ইয়ান চ্যাপেল। তিনি মনে করেন, ভারতীয় দলের মধ্যে গভীরতা রয়েছে। যে গভীরতাটা নিউজিল্যান্ড এবং ইংল্যান্ড দলের মধ্যেও রয়েছে বলে দাবি তাঁর। কিন্তু অস্ট্রেলিয়া দল নিয়ে তিনি চূড়ান্ত হতাশ।

এক সংবাদমাধ্যমকে সাক্ষাৎকার দেওয়ার সময়ে প্রাক্তন অজি অধিনায়ক ইয়ান চ্যাপেল বলেছেন, ‘এই অতিমারীর সময়ে একটি বিষয় পরিষ্কার হয়ে গিয়েছে, ক্রিকেটে গভীরতা থাকাটা খুবই জরুরি। ভাল হয়, যদি ব্যাটিং এবং বোলিং দুই ক্ষেত্রে এই গভীরতা থাকে।’ তিনি আরও বলেছেন, ‘ভারত কিন্তু ইতিমধ্যে এই গভীরতা দেখিয়েছে। বিশেষত অস্ট্রেলিয়া সফরে বোলিং-এর ক্ষেত্রে। শুধু ভারতই নয়, ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে নিউজিল্যান্ডও এজবাস্টনে দ্বিতীয় টেস্টে দলে ছ'টি পরিবর্তনের করেছিল। তার পরেও তারা খুব সহজে ইংল্যান্ডকে পরাজিত করেছে। নিউজিল্যান্ডও কিন্তু তাদের ট্যালেন্ড দেখিয়ে সবাইকে চমকে দিয়েছিল।’

পাকিস্তানের বিরুদ্ধে ইংল্যান্ডের পারফরম্যান্স নিয়েও চ্যাপেল বেশ খুশি। তিনি বলেছেন, ‘পাকিস্তানের বিরুদ্ধে একদিনের সিরিজে ইংল্যান্ড কিন্তু খুবই ভাল গভীরতা এবং নমনীয়তা, দু'টোই দেখিয়েছে। এর পাশাপাশি শাকিব মাহমুদ এবং ব্রাইডন কারসের স্কিল অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে অ্যাসেজে ইংল্যান্ডেকে আরও বেশি উদ্বুদ্ধ করবে। এই দুই বোলার বাউন্সি পিচেও অসাধারণ।’

এর সঙ্গেই ভারতীয় দল নিয়ে চ্যাপেল আরও বলেছেন, ‘ব্যাটিং ট্যালেন্টের দিক থেকে দেখতে গেলে, সব টিমের মধ্যে ভারতই এগিয়ে রয়েছে। তাদের ডেভলপমেন্ট সিস্টেমটাই খুব ভাল। তারা ট্র্যাডিশনাল এবং ভাল কৌশলযুক্ত প্লেয়ারদের উঠে আসতে সাহায্য করে। এবং প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে পর্যাপ্ত সুযোগ দেয়। যেটা ওদের প্লাস পয়েন্ট।’

সেখানে অস্ট্রেলিয়ার পারফরম্যান্স নিয়ে একেবারেই হতাশ ইয়ান চ্যাপেল। তাঁর দাবি, ‘একটি বড় দল, যাদের সাম্প্রতিক পারফরম্যান্সগুলোয় গভীরতার কোনও লেশমাত্র ছিল না, সেটি হল অস্ট্রেলিয়া। অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিংই উদ্বেগের মূল কারণ হয়ে দাঁড়িয়েছে। ক্যারিবিয়ানদের বিরুদ্ধে একেবারেই ভাল পারফরম্যান্স করতে পারেনি ব্যাটসম্যানরা। শুধু মাত্র মিচেল মার্শই নজর কেড়েছে। তবে মার্শের ক্ষেত্রে আবার টেস্টে ছ'নম্বরে নামা অলরাউন্ডার ক্যামেরুন গ্রিনের বিকল্প হয়ে ওঠার সম্ভাবনা নেই। স্টিভ স্মিথ এবং ডেভিড ওয়ার্নার ছাড়া অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটিং অর্ডার একেবারেই ভেঙে পড়েছে।’

বন্ধ করুন