বাংলা নিউজ > ময়দান > ‘হয় ও চাঁদে পৌঁছবে, নয় সন্ধ্যে পার করবে না’, পন্তকে এমন কেন বললেন পাক প্রাক্তনী?
ঋষভ পন্ত।

‘হয় ও চাঁদে পৌঁছবে, নয় সন্ধ্যে পার করবে না’, পন্তকে এমন কেন বললেন পাক প্রাক্তনী?

  • ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ম্যাঞ্চেস্টার ওডিআই-এর আগে ভারতের হয়ে তিনি ২৬টি ওডিআই এবং ৫০টি টি-টোয়েন্টিতে মাত্র আটটি হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন। কিন্তু রবিবার পন্ত সাদা বলের ফরম্যাটে দুরন্ত শতরান হাঁকান। তাঁর অপরাজিত ১২৫ রানে ১৬টি বাউন্ডারি এবং দু'টি ছক্কা ছিল।

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ঋষভ পন্তের অপরাজিত ১২৫ রানের দুর্দান্ত নকটি বিশ্ব ক্রিকেটে প্রচুর প্রশংসা অর্জন করেছে। ওডিআই ফরম্যাটে এটি ছিল ২৪ বছরের তারকার প্রথম সেঞ্চুরি। যা ভারতকে ৫ উইকেটের জয় পেতে সাহায্য করেছিল। এবং সিরিজটি ভারত ২-১ ব্যবধানে জিতে গিয়েছিল।

যাইহোক পাকিস্তানের প্রাক্তন অধিনায়ক রশিদ লতিফ পেস বোলারদের বিরুদ্ধে পন্তের অসামান্য ব্যাটিং ক্ষমতার প্রশংসা করেছেন। পন্ত ইতিমধ্যেই টেস্ট ফরম্যাটে ভারতের একজন নির্ভীক ব্যাটার হিসেবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। কিন্তু সীমিত ওভারে সে অর্থে নজর কাড়া পারফরম্যান্স না থাকায় তাঁকে সমালোচনার মুখেও পড়তে হয়েছিল।

আরও পড়ুন: ইংল্যান্ডকে উড়িয়ে ICC র‌্যাঙ্কিংয়ে এগোল ভারত, দূরত্ব বাড়ল পাকিস্তানের সঙ্গে

ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ম্যাঞ্চেস্টার ওডিআই-এর আগে ভারতের হয়ে তিনি ২৬টি ওডিআই এবং ৫০টি টি-টোয়েন্টিতে মাত্র আটটি হাফ সেঞ্চুরি করেছিলেন। কিন্তু রবিবার পন্ত সাদা বলের ফরম্যাটে দুরন্ত শতরান হাঁকান। তাঁর অপরাজিত ১২৫ রানে ১৬টি বাউন্ডারি এবং দু'টি ছক্কা ছিল।

আরও পড়ুন: ‘শুধু বিজ্ঞাপনই করো’, কোহলির পোস্ট ঘিরে তুমুল ক্ষোভ উগরালেন ভক্তরা

ইউটিউব চ্যানেল 'কট বিহাইন্ড'-এ কথা বলতে গিয়ে লতিফ বলেছেন, ‘উসকা চালা তো চান্দ তাক, না তো শাম তাক (ও খেললে হয় চাঁদে পৌঁছবে, নয় সন্ধ্যেও পার করবে না)। আমরা সবাই ওর সম্পর্কে জানি। ও স্টাম্পিং থেকে বেঁচে যায়...জোস বাটলারও একই বিভাগে পড়ে। তবে আমি অবশ্যই বলব যে, ওর ব্যাটিং দুর্দান্ত ছিল, বিশেষ করে ফাস্ট বোলারদের বিরুদ্ধে, ও ওর পারফরম্যান্সে যে ভারসাম্য দেখিয়েছিল, এবং এটা প্রথম বার নয় যে, এমনটা ঘটতে আমরা দেখেছি। এই ইংল্যান্ড সফর, তার আগে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সিরিজে... ঋষভের নাম সব সময় রয়েছে।’

এর সঙ্গে তিনি যোগ করেন, ‘কখনও কখনও অনেকেই ওর ব্যাটিং নিয়ে প্রশ্ন তোলে। বিশেষ করে যখন ও দ্রুত আউট হয়ে যায়। তবে কখনও কখনও ও এমন ভাবে ব্যাট করে যে, কেউ এটি অনুকরণ করতে পারে না। সে জন্য বারবার বলেছি, ও যে উইকেটকিপারদের ব্রায়ান লারা, সেটা প্রমাণ করে দিল। সামগ্রিক ভাবে ও মিশ্র প্রদর্শন করে - কখনও কখনও ম্যাচ জয়ী নক খেলে দলকে পুনরুজ্জীবিত করে। আবার কখনও কখনও ও জেতা জায়গা থেকেও খেলাটি হারাতে পারে।’

বন্ধ করুন